previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  লাখাই  >  বর্তমান নিবন্ধ

লাখাইয়ের সহকারী কমিশনার (ভুমি)’র বিরুদ্ধে ঐতিহ্যবাহী শ্রীশ্রী গোপাল জিউ আশ্রমের সম্পত্তি সমজিয়ে না দেওয়ার অভিযোগ

 অক্টোবর ১১, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

ছবি: এস.এ পর্চায় চিহ্নিত মন্দিরের ম্যাপ ও আশ্রম পরিদর্শকারী দলের একাংশ।

স্টাফ রিপোর্টার : লাখাই উপজেলায় ১৬৩ বছরের ঐতিহ্যবাহী শ্রীশ্রী গোপাল জিউ আশ্রমের প্রায় ৮০ শতাংশ জায়গা অনেক দিন ধরেই স্থানীয় প্রভাবশালী ব্যক্তিদের দখলে থাকার অভিযোগ আছে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক বরাবরে বারংবার স্মারকলিপি প্রদান এবং মানববন্ধন করেও কোন প্রতিকার না হওয়ায় চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে স্থানীয় হিন্দু সম্প্রদায়ের মধ্যে। জানা যায়, প্রায় ১৬৩ বছর আগে তৎকালিন জমিদার হর কিশোর চৌধুরীর একমাত্র পুত্র সাবেক বিচারপতি ব্যারিষ্টার তারা কিশোর চৌধুরী (১০৮) ওরফে শ্রীশ্রী স্বামী সন্তু দাস কাটিয়া মহারাজের স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তি গোপাল জিউ বিগ্রহের নামে দান করেন। আশ্রমটির অনুকুলে ১৫ একর ১২ শতাংশ জায়গা বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক ২০১২/১৩ সালে অর্পিত সম্পত্তি থেকে অবমুক্ত করা হয়। পরে ২০১৩/১৪ সালে ২৮১০নং খতিয়ানে শ্রীশ্রী গোপাল জিউ আশ্রমের নামে নামজারিও হয়েছে। শ্রীশ্রী গোপাল জিউ আশ্রমের নামে খাজনাও পরিশোধ করা হয়। তবে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এই সম্পত্তি শ্রীশ্রী গোপাল জিউ আশ্রমের নামে বুঝিয়ে দেওয়ার কথা থাকলেও অদ্যাবধি সম্পত্তি বুঝিয়ে দেওয়া হচ্ছে না।

সর্বশেষ ২০১৮ সালের ২৪শে মে হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে লাখাই উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভ‚মি) কে আশ্রমের সম্পত্তি সমজিয়ে দেওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের আদেশ দেওয়া হলেও অদৃশ্য কারণে বিষয়টি আর এগোয়নি। সূত্র জানায়, জমিদারী প্রথা বিলুপ্তি হবার পর এ জমি অধিগ্রহণের উদ্দ্যোগ নিয়ে ব্যর্থ হয় পাকিস্তান সরকার। এডঃ স্বরাজ রঞ্জন বিশ্বাস জানান, বামৈ এলাকায় কিছু লোক জাল-জালিয়াতির মাধ্যমে ভ‚য়া কাগজ তৈরি করে জায়গা দখল করে আছে। প্রশাসন ইচ্ছে থাকলেই এ সকল জায়গা দখল মুক্ত করা সম্ভব।

জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক অনুপ কুমার দেব মনা জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। আশা করছি খুব দ্রæতই মন্দিরের জায়গা দখল মুক্ত হবে। লাখাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুসিকান্ত হাজং জানান, বিষয়টি আমি খোঁজ নিয়ে দেখছি। আশ্রমের সম্পত্তি সমজিয়ে দিতে আমার যা যা করণীয় আমি অবশ্যই করব। দীর্ঘদিন ধরে বে-দখলে থাকা আশ্রমের এই সম্পত্তির খোঁজ নিতে মন্দির কমিটির সাধারণ সম্পাদক দিজেন্দ্র পালের নেতৃত্বে একটি দল ঘটনাস্থল সরেজমিনে পরিদর্শন করেন।

এই দলে আরো ছিলেন হবিগঞ্জের কমিউনিটি নেতা এডঃ শ্যামল কান্তি দাস, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক অনুপ কুমার দেব মনা, মোড়াকরি ইউপি চেয়ারম্যান আবুল কাশেম মোল্লা ফয়সল, ঢাকাস্থ লাখাই উপজেলা যুবলীগের সভাপতি মাসুদুল আলম মাসুদ, দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদক প্রকৌশলী সুশান্ত দাস গুপ্ত ও দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার রিপোর্টার আতাউর রহমান ইমরান। এই দলের সরেজমিন পরিদর্শনের সময় লাখাইয়ের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুসিকান্ত হাজং সবার সাথে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন এবং আশ্রমের সম্পত্তি সমজিয়ে দেওয়ার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেন।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

হবিগঞ্জ শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজে ক্রয় দুর্নীতি অভিযুক্তদের জামিন বাতিল ও ক্রয় কমিটির সদস্যদের মামলায় সম্পৃক্ত করার দাবিতে মানব বন্ধন

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!