previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  বাহুবল  >  বর্তমান নিবন্ধ

অসময়ে হবিগঞ্জে তরমুজ চাষে চমক দেখালেন বাহুবলের তৌহিদ মিয়া

 সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

ছবি: তরমুজ চাষে চমক দেখালেন বাহুবলের তৌহিদ মিয়া।

 

শেখ পারভেজ : হবিগঞ্জের বাহুবল উপজেলায় প্রথম বারের মত সাগর কিং তরমুজ চাষ করে চমক দেখালেন হাফিজপুর গ্রামের তৌহিদ মিয়া। গ্রীষ্মকালের তরমুজ শরৎকালে বাম্পার ফলন হওয়ায় এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। সবুজ রংগের তরমুজ দেখতে যেমন সুন্দর, খেতেও তেমন সুস্বাদু।

এ কারণে এর চাহিদাও বেশি। এমন ব্যতিক্রমী চাষাবাদে অনুপ্রাণিত হয়েছে এলাকার সকল শ্রেণি পেশার মানুষ। অসময়ে উপজেলার হাফিজপুর গ্রামের কৃষক তৌহিদ মিয়া কৃষি অফিসারের পরামর্শে ১ বিঘা জমিতে মাঁচা পদ্ধতিতে ইন্ডিয়ান সাগর কিং (হাইব্রিড) জাতের তরমুজ চাষের উদ্যোগ নেন। ১বিঘা জমিতে ৫০০ চারা গজায়। চারাগুলোর ওপর বাঁশ ও জাল দিয়ে তৈরি নৌকার ছৈয়ার আদলে মাঁচানে লতা-পাতা বিস্তার করতে শুরু করে। তরমুজ রোপন করার ২ মাসের মধ্যেই মাঁচায় ঝুঁলছে কাঁচাপাকা তরমুজ। লোকসানের সম্ভাবনা না থাকায় তুলনামূলক খরচ কম হওয়ায় লাভ বেশি।

১বিঘা জমিতে ৬০ মণ তরমুজ ফলন হয়। আর এতে খরচ বাবদ ২ লাখ টাকা লাভের সম্ভাবনা দেখছেন কৃষক। প্রথম তরমুজ চাষ হওয়ায় দেখার জন্য বিভিন্ন জায়গা থেকে অসংখ্য দর্শনার্থীও আসছেন। উপজেলায় এই প্রথম তরমুজ চাষে সফলতা দেখে আগ্রহের কথা জানান অনেকেই।

তারা বলেন, বাহুবল উপজেলায় আমরা কখনো তরমুজ চাষ দেখিনি। এই প্রথম তৌহিদ মিয়ার তরমুজ চাষ দেখে আমাদেরও আগ্রহ বেড়ে যায়। তাছাড়া এখন তরমুজের সময় নয় কিন্তু ক্ষেতে এত ফলন হয়েছে যা সবাইকে অবাক করে দিয়েছে। আগামী বছর আমরাও অন্যান্য ফসলের পাশাপাশি তরমুজ চাষ করব। এদিকে কৃষক তৌহিদ মিয়া নিজের জমিতে তরমুজের বাম্পার ফলন দেখে হতবাক কৃষ। তিনি জানান, এ মাটিতে তরমুজ চাষ হবে আমি বিশ্বাস করিনি।

উপ-সহকারী কৃষি অফিসার মোঃ শামীমুল হক শামীম বার বার আমাকে পরামর্শ দেন তরমুজ চাষের। আমি এতটা আগ্রহ হয়নি। তারপর পরিক্ষামূলকভাবে ১বিঘা জমিতে তরমুজ চাষ করতে আগ্রহ প্রকাশ করলে তিনি আমাকে প্রশিক্ষণ দেন। বর্তমানে আমার জমিতে তরমুজের বাম্পার ফলন হয়েছে। মাত্র ৪০ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। আমি প্রাপ্তির চেয়েও বেশি লাভবান হব বলে আশা করছি। আগামীতে আরও কয়েক বিঘা জমিতে তরমুজ চাষ করবেন বলে জানান তৌহিদ মিয়া।

প্রতমবারের মত এ উপজেলায় তরমুজ চাষ হওয়ায় যা দেখার জন্য বিভিন্ন জায়গা থেকে অসংখ্য দর্শনার্থী আসছেন। স¤প্রতি কৃষি অফিসার উপ-সহকারী মোঃ শামীমুল হক শামীম এ প্রকল্প পরিদর্শনে এসে কৃষকদের সাথে মতবিনিময় সভা করেছেন।

উপ সহকারী কৃষি অফিসার মোঃ শামীমুল হক শামীম জনান, লোকসান নয়, লাভবানের আশ্বাস দিয়ে কৃষকদের সাথে মতবিনিময় সভা, নিয়মিত পরামর্শসহ তরমুজ চাষে আগ্রহের কথা জানাই। কৃষকদের মাঝে বিভিন্ন উৎসাগ-উদ্দিপনা দেই। তাদের প্রশিক্ষণ দিয়ে তরমুজ চাষাবাদের আগ্র জাগাই। তবে প্রথম চাষে সফলাতা এসেছে, আশা করি আগামী বছরে আরও অধিকহারে তরমুজ চাষ হবে।

বাহুবল উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ আব্দুল আওয়াল বলেন, এই অঞ্চলের কৃষক কখনো তরমুজ চাষ দেখেনি। এই প্রথম তরমুজ চাষ হয়েছ। আর এ দেখে বর্তমানে অনেকে কৃষক-ই তরমুজ চাষ করার জন্য আগ্রহ দেখাচ্ছেন। আমরাও নিয়মিত তাদের সাথে যোগাযোগ ও প্রশিক্ষন দিয়ে যাচ্ছি। আশা করছি আগামী বছর তুলনামূলক বেশি জমিতে তরমুজ আবাদ হবে। তিনি জানান, ১বিঘা জমিতে ৫০ থেকে ৬০ মন তরমুজ ফলন হয়। এতে ২ থেকে ৩লাখ টাকার তরমুজ বিক্রি করার এ উপজেলায় প্রথম বারের মত তরমুজ উৎপাদনে একটি মাইলফলক হিসেবে কাজ করবে। এছাড়া এ ফলনে ন্যায্য মূল্য প্রাপ্তির নিশ্চিতসহ মানুষের পুষ্টি চাহিদা পূরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। এমনটাই আশা করছেন অনেকে।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

বাহুবলের কাজীহাটি পূর্ব জামে মসজিদ কমিটি’র পক্ষ থেকে ডাঃ মুশফিক হোসেন চৌধুরীকে সংবর্ধনা

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!