previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  লাখাই  >  বর্তমান নিবন্ধ

বেরিয়ে আসছে লাখাইয়ের মামলাবাজ নারী শারমিন জাহান রিপনের যত অজানা কাহিনী

সংবাদ প্রকাশের জেরে প্রতিবেদককে মামলার হুমকি।

 সেপ্টেম্বর ১৬, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

ছবি: শারমিন জাহান রিপন।

 

তারেক হাবিব : লাখাই উপজেলার পূর্ব সিংহ গ্রামের রমজান আলীর সুন্দরী কন্যা শারমিন জাহান রিপন (৩০)। মা বাবার ৪ পুত্র ও ৩ কন্যা সন্তানের মধ্যে শারমিন সবার ছোট। পরিবারের সবার চেয়ে ছোট হলেও বাল্যকাল থেকেই চারিত্রিক দিকে থেকে ছিলেন একটু ভিন্ন। উচ্চাশা আর ভোগ বিলাসিতাই তাকে ডেকে নিয়ে যায় অপকর্মের দিকে।

প্রেম-পরকীয়া নানান সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন বহু পুরুষের সাথে। বেহায়াপনা চলা ফেরার এক সময় নিজের ইচ্ছায় বিয়ে করেন একই উপজেলার বামৈ গ্রামের বশির মিয়া নামে এক যুবককে। বিয়ের কিছু দিন যেতেই পরকীয়ার আসক্ত হয়ে পড়েন শারমিন।

স্বামীর অনুপস্থিতিতে সময় কাটান পর পুরুষের সাথে। বিষয় গুলো পরিবারের মুরব্বীদের নজরে আসলে সংসার ভাঙ্গে শারমিন জাহান রিপনের। পিত্রালয়ে গিয়ে নারী ও শিশু আদালতে স্বামীর উপর দায়ের করেন যৌতুকের মামলা। স্বামীকে জেল-হয়রানির এক পর্যায়ে মোটা অঙ্কের টাকা নিয়ে আপোষ করেন মামলা। এর কিছু দিন পার হতেই সেই পরকীয়া প্রেমিকের সাথে বিয়ের পীড়িতে বসেন শারমিন। দ্বিতীয় বিয়ের পর তার বেহায়াপনার মাত্রা আরও বেড়ে যায়।

অভিযোগ আছে, শারমিন জাহান রিপনের দ্বিতীয় স্বামী আব্দুস সালামের সাথেও বেশী দিন স্থায়ী হয়নি তার সংসার। স্বামীর অগোচরে পর পুরুষের সাথে ঘোরাফেরা অশালীন কর্মকান্ডের জন্য দ্বিতীয় স্বামীর সংসার ছেড়ে আবারও পিত্রালয়ে চলে আসেন তিনি। সিকিউরিটি গার্ডের চাকরি নেন শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার প্রাণ-আরএফএল কোম্পানিতে। চাকরির আড়ালে জড়িয়ে পড়েন মাদকসহ নানা প্রকার অবৈধ ব্যবসায়। ২০১৯ সালের ১১ই জানুয়ারি রাতে প্রাণ কোম্পানিতে ছুটির পর শহিদ ও শাহনাজ মিয়া নামে দুই সিএনজি চালকের সাথে স্থানীয় পুরাসুন্দা পাহাড়ে অনৈতিক কাজে লিপ্ত হন। তথ্য আছে কোন একটি বিষয় নিয়ে তাদের মনোমালিন্য হলে শারমিন পাহাড়েই শোর চিৎকার শুরু করেন।

স্থানীয়রা বিষয়টি আঁচ করতে পেরে তাদের আটক করে শায়েস্তাগঞ্জ থানায় সোপর্দ করলে শারমিন বাদী হয়ে শাহনাজ ড্রাইভারের উপর একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। এ ধর্ষণ মামলাও মোটা অঙ্কের টাকায় আপোষ করেন তিনি। মামলা যেন তার পেশা হয়ে যায়। অনুসন্ধানে দেখা গেছে গত ৩ বছরে তিনি ২টি গণধর্ষণসহ মোট ৫টি ধর্ষণের মামলা দায়ের করেছেন। এর মধ্যে ২টি মামলা ৪ লাখ টাকায় আপোষ করেছেন। সর্বশেষ তিনি ধর্ষণের নাটক সাজিয়ে উপজেলার সিংহ গ্রামের বুল্লা বাজার মালিক ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাবেক সভাপতি বাদশা মিয়া ও সিংহ গ্রামেরই ইউপি সদস্য ভিংরাজ মিয়াকে আসামী করে লাখাই থানায় মামলা দায়ের করেন। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ মামলায় অভিযুক্ত বাদশা ও ভিংরাজ মিয়া আসন্ন ইউপি নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে নিজেদের প্রচারণা চালিয়ে আসছিলেন। একটি শক্তিশালী প্রতিপক্ষের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা গ্রহণ করে তাদের বিরুদ্ধে কথিত ধর্ষণের মামলা সাজিয়েছেন তিনি।

এ ব্যাপারে শারমিন জাহান রিপনের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ‘‘দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’’ পত্রিকার এ প্রতিনিধিকে মামলার হুমকি দিয়ে বলেন, ‘‘তুইও মামলার জন্য রেডি থাকিস। মামলা করেছি, তোর উপরও করমু, দেখি তরে বাচায় কে?’’। শারমিন জাহান রিপনের বর্তমান স্বামী ইকবাল মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘‘মনে হয় তার (শারমিন জাহান রিপন) কিছুটা মানসিক সমস্যা আছে। আমার উপরও প্রথমে গণধর্ষণ মামলা করেছিল। পরে আমি তাকে বাধ্য হয়েছি বিয়ে করতে। বর্তমানে সে আমার দ্বিতীয় স্ত্রী’’।

ভুক্তভোগী ভিংরাজ মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, “শারমিন আমার উপর যে অভিযোগ এনেছে তা পুরোটাই মিথ্যে। ঘটনায় তারিখ ও সময়ে আমি জরুরী প্রয়োজনে সিলেট কোতোয়ালি থানায় অবস্থান করছিলাম। তার কাজই হচ্ছে প্রতিপক্ষের কাছ থেকে টাকা নিয়ে অহেতুক নাটক সাজিয়ে মামলা দায়ের করা। এভাবে আমার মত অনেক নিরীহ মানুষকে সে মামলায় ফাঁসিয়েছে’’।

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে লাখাই থানার ওসি (তদন্ত ) অজয় চন্দ্র দেব জানান, ‘‘নিয়ম অনুযায়ী কেউ যদি ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করে তা আমরা আমলে নিয়ে তদন্ত করে সত্যতা পেলে অভিযোগ পত্র প্রদান করি। আর তদন্তে মিথ্যা প্রমাণিত হলে সেটার চূড়ান্ত রিপোর্ট দেয়া হয়। গত ডিসেম্বরে শারমিন জাহান রিপনের আদালতে দায়ের করা মামলার তদন্তে সত্যতা না পাওয়ায় সেটাতে তার বিরুদ্ধে রিপোর্ট প্রদান করা হয়েছে’’।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

লাখাইয়ের মোড়াকরি ইউনিয়নে ভিজিডি’র চাল বিতরণ

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!