previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  বাহুবল  >  বর্তমান নিবন্ধ

কথিত ধর্ষণের নাটক সাজিয়ে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছেন লাখাইয়ের এক সুন্দরী নারী, ৩ বছরে ৫টি ধর্ষণের মামলা দায়ের করেছেন শারমিন

 সেপ্টেম্বর ১৫, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

ছবি: শারমিন জাহান রিপন।

 

তারেক হাবিব : শারমিন জাহান রিপন বয়স আনুমানিক ত্রিশের কাছাকাছি। সৌন্দর্য তার কাছে অলঙ্কার নয়, অহংকারও নয়, ভয়ঙ্কর এক অস্ত্র। এ অস্ত্র দিয়ে তিনি ঘায়েল করেন তার ঘনিষ্ঠ শিকারদের। যুবক, মধ্য বয়সী অথবা কোন বৃদ্ধ কেউই বাদ পড়েননি তার কবল থেকে। কেউ হারিয়েছেন পরিবার, কেউ হারিয়েছেন সারা জীবনের সঞ্চিত মূলধন আবার কেউ খেটেছেন জেল।

এভাবেই নিঃস্ব হয়েছে অনেক পরিবার। সাদা চামড়া ও আকর্ষণীয় বাচন ভঙ্গিকে পুঁজি করে নিরীহ মানুষকে বেকায়দায় ফেলে হাতিয়ে নিচ্ছেন লাখ লাখ টাকা। বলছি লাখাই উপজেলার পূর্ব সিংহ গ্রামের রমজান আলীর সুন্দরী কন্যা শারমিন জাহান রিপন (৩০) এর কথা। মা বাবার ৪ পুত্র ও ৩ কন্যা সন্তানের মধ্যে শারমিন সবার ছোট। জানা গেছে, বাল্যকাল থেকেই ছিলেন উগ্র মেজাজি ও চালাক-চতুর। শিক্ষা জীবনে বেশী দূর যেতে না পারলেও চেহারা ও চাল-চলন দেখে বুঝার উপায় নেই তিনি স্বল্প শিক্ষিত। বেহায়াপনা চলা ফেরার এক সময় নিজের ইচ্ছায় বিয়ে করেন একই উপজেলার বামৈ গ্রামের বশির মিয়া নামে এক যুবককে। বিয়ের কিছু দিন যেতেই পরকীয়ার আসক্ত হয়ে পড়েন শারমিন। স্বামীর অনুপস্থিতিতে সময় কাটান পর পুরুষের সাথে। বিষয়টি তার স্বামী বশির মিয়া আঁচ করতে পারলে সংসার ভাঙ্গে শারমিন জাহান রিপনের। এর কিছুদিন পরই পরকীয়া প্রেমিকের সাথে আবারো বিয়ের পিড়িতে বসেন তিনি।

ক্রমান্বয়ে বাড়তে থাকে তার লাগামহীন উগ্র চলাফেরা। দ্বিতীয় স্বামীর সংসার ছেড়ে নেমে পড়েন রাস্তায়। অভিযোগ আছে, তার অজানা বহু বিবাহসহ প্রেমের অভিনয়ে একের পর এক ধর্ষণের নাটক সাজিয়ে লোকজনকে ফাঁসিয়ে হাতিয়ে নিয়েছেন লাখ লাখ টাকা। ‘‘দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’’ এর অনুসন্ধানে উঠে এসেছে এমনই কিছু চাঞ্চল্যকর তথ্য। যৌতুক ও নির্যাতনের অপরাধে স্বামী আব্দুস সালামের বিরুদ্ধে ২০১৭ সালে হবিগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন আদালতে মামলা দায়ের করেন। পরে এ মামলায় মোটা অঙ্কের টাকা নিয়ে আপোষ করেন শারমিন। ২০১৯ সালে লাখাই উপজেলার নোয়াগাঁও গ্রামের আব্দুর রউফ মিয়ার পুত্র ইকবাল মিয়া ও ছাহেব আলীর পুত্র আব্দুস সালামসহ আরও কয়েকজনকে আসামী করে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে দায়ের করেন গণ-ধর্ষণের মামলা।

এর কিছু দিন পর আবারো বিয়ের নাটক সাজিয়ে ইকবাল মিয়া, লাভলী আক্তারসহ কয়েকজনকে আসামী করে আদালতে নারী নির্যাতনের মামলা দায়ের করেন। চলতি বছরের ৬ই জুন শারমিন নিজে বাদী হয়ে রুহুল আমিন, রাশিদা বেগম ও জান্নাতুল মুন্নিকে আসামী করে লাখাই থানায় দায়ের করেন আরেকটি মামলা। সর্বশেষ আবারো ধর্ষণের নাটক সাজিয়ে উপজেলার সিংহ গ্রামের বুল্লা বাজার মালিক ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সাবেক সভাপতি বাদশা মিয়া ও সিংহ গ্রামেরই ইউপি সদস্য ভিংরাজ মিয়াকে আসামী করে লাখাই থানায় মামলা দায়ের করেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, এ মামলায় অভিযুক্ত বাদশা ও ভিংরাজ মিয়া আসন্ন ইউপি নির্বাচনে প্রার্থী হিসেবে নিজেদের প্রচারণা চালিয়ে আসছিলেন। একটি শক্তিশালী প্রতিপক্ষের কাছ থেকে মোটা অঙ্কের টাকা গ্রহণ করে তাদের বিরুদ্ধে কথিত ধর্ষণের মামলা সাজিয়েছেন তিনি।

এ ব্যাপারে শারমিন জাহান রিপনের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ‘‘দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’’কে বলেন, ‘‘আমি মামলাগুলো বাধ্য হয়ে করেছি। এ ছাড়া আমার আর কোন উপায় ছিল না। সবার কাছে প্রতারিত হয়েছি। প্রথমত ভিংরাজ মিয়া আমাকে সিলেটের দরগা গেইটের হোটেল হলি লেন এর ২১৩নং রুমে নিয়ে যায়। সেখানে রেখে আমাকে ধর্ষণের চেষ্টা করলে আমি বাংলাদেশ পুলিশের ৯৯৯ এ কল দিলে সিলেট কোতোয়ালি থানার পুলিশ আমাকে উদ্ধার করে। আমি সুন্দরী হওয়াতে অনেকেই আমার উপর কু-নজর দেয়। বিভিন্ন প্রতিশ্রæতি দিয়ে আমাকে ধর্ষণ করে’’।

ভুক্তভোগী ভিংরাজ মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, “শারমিন আমার উপর যে অভিযোগ এনেছে তা পুরোটাই মিথ্যে। ঘটনায় তারিখ ও সময়ে আমি জরুরী প্রয়োজনে সিলেট কোতোয়ালি থানায় অবস্থান করছিলাম। তার কাজই হচ্ছে প্রতিপক্ষের কাছ থেকে টাকা নিয়ে অহেতুক নাটক সাজিয়ে মামলা দায়ের করা। এভাবে আমার মত অনেক নিরীহ মানুষকে সে মামলায় ফাঁসিয়েছে।”

এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে লাখাই থানার ওসি (তদন্ত) অজয় চন্দ্র দেব জানান, “নিয়ম অনুযায়ী কেউ যদি ধর্ষণের অভিযোগ দায়ের করে তা আমরা আমলে নিয়ে তদন্ত করে সত্যতা পেলে অভিযোগ পত্র প্রদান করি। আর তদন্তে মিথ্যা প্রমাণিত হলে সেটার চূড়ান্ত রিপোর্ট দেয়া হয়। গত ডিসেম্বরে শারমিন জাহান রিপনের আদালতে দায়ের করা মামলার তদন্তে সত্যতা না পাওয়ায় সেটাতে তার বিরুদ্ধে রিপোর্ট প্রদান করা হয়েছে।”

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

বাহুবলের কাজীহাটি পূর্ব জামে মসজিদ কমিটি’র পক্ষ থেকে ডাঃ মুশফিক হোসেন চৌধুরীকে সংবর্ধনা

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!