previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  লাখাই  >  বর্তমান নিবন্ধ

দুই যুগ ধরে দখল হয়ে আছে লাখাইয়ের পুরাতন উপজেলা কার্যালয়

 সেপ্টেম্বর ১০, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

ছবি: দুই যুগ ধরে দখল হয়ে আছে লাখাইয়ের পুরাতন উপজেলা কার্যালয়।

 

স্টাফ রিপোর্টার : লাখাই উপজেলার লাখাই গ্রামে ১৯৬০ সালের তৎকালীন প্রেসিডেন্ট আইয়ুব খানের টাউনশিপ প্রকল্পের অধীনে নির্মিত পুরাতন সিও ডেভেলপমেন্ট এর বিভিন্ন সরকারী ভবন দখল করে বসবাস করছে অবৈধ দখলদারগন। সরকারি জমিতে তৈরি হয়েছে দোকানপাট। দোকান ভাড়া দিয়ে অবৈধভাবে ভাড়ার টাকা নিচ্ছে কাসেমুল উলুম মাদ্রাসা।

অভিযোগ উঠেছে এলাকার প্রভাবশালীরাই দখল করে রেখেছেন কয়েকটি ভবন। ৯ সেপ্টেম্বর ওই এলাকায় গিয়ে দেখা যায় দখলের এই ভয়াবহ চিত্র।

পুরনো ফ্লাড সেন্টার বা বন্যা আশ্রয় কেন্দ্রটি মেরামত করে বসেছে লাখাই টাউনশিপ কাসেমুল উলুম মাদ্রাসা। মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল এবং ম্যানেজিং কমিটির সম্পাদক মাওলানা মোশাররফ হোসাইন জানান মাদ্রাসাটি ১৯৯৯ সালে প্রতিষ্ঠিত। দীর্ঘ ২১ বছর ধরেই এখানে আছেন তারা। সরকারি ভবনে বিনা অনুমতিতে মাদ্রাসা করেছেন কেন এ প্রশ্নের উত্তরে তিনি জানান, ইউএনও তাদেরকে পরামর্শ দিয়েছেন মাদ্রাসা ভবনটি এই স্থানে বন্দোবস্ত নেয়ার জন্য। তারা অচিরেই লিজ নেয়ার জন্য দরখাস্ত করবেন।

সরকারি জমিতে দোকান ঘর করে ভাড়া দিয়েছেন কেন এ প্রশ্নের উত্তরে মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল জানান, জমিটি পড়ে ছিল বিধায় তারা মাদ্রাসার ফান্ডের টাকা দিয়ে সেখানে ঘর করে চারটি দোকান নির্মাণ করে ভাড়া দিয়ে ভাড়ার টাকা মাদ্রাসার ফান্ডে নিচ্ছেন। সরকারি জমিতে দোকান নির্মাণ করা বা অবৈধভাবে দখল করে সেখানকার মাদ্রাসা চালানো ধর্মীয়ভাবে জায়েজ কিনা এ প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ব্যাপারটি সেভাবে আমরা কখনো চিন্তা করিনি। তবে, বিষয়টি জানতে মুফতির শরণাপন্ন হতে হবে।

এ ব্যাপারে ইসলামী বিশেষজ্ঞদের সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, জমির মালিকের অনুমতি ব্যতিরেকে দোকানপাট তৈরি করে সেখানকার ভাড়ার টাকা ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান নিয়ে আসলে ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে সেটি নাজায়েজ হবে। এদিকে পুরানো সিও ভবনটি ২০ বছর ধরে দখল করে রেখেছেন এক হাতুড়ে ডাক্তার। নাম তার রুহুল আমিন। তিনি জানালেন ২০০০ সাল থেকে এ পর্যন্ত তিনি ভবনটিতে বসবাস করে আসছেন। ভবনটিতে একটি ফার্মেসিও চালান তিনি।

তবে তিনি দাবি করেন ২০০০ সালে ইউএনও অফিস থেকে ভবনটিকে কয়েক বছরের জন্য লিজ নিয়েছিলেন তিনি। তবে এ সংক্রান্ত কোন কাগজপত্র দেখাতে পারেননি তিনি।

সরকার যদি চলে যেতে বলে তাহলে চলে যাবেন কিনা এ প্রশ্ন করলে তিনি জানান, সরকারের কাছে তার আবেদন তাকে যেন ভবনটি লিজ দেয়া হয়। হাজী করিম হোসেন স.প্রা.বি দপ্তরি আলামিন দখল করে নিয়েছেন দ্বিতল বিশিষ্ট পুরাতন সাব রেজিস্টার ভবনটি। পুরাতন ইউনিয়ন পরিষদ ও তহশিল অফিস ভবন দখল করে দোকান বসিয়েছেন আলফু হাজীর ছেলে নজরুল, অন্যান্য ঘরগুলিতে দখল বসিয়েছেন স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার হাসিবসহ আরও য়েকজন প্রভাবশালী।

পুরনো প্রাইমারি স্কুল টিও দখল করেছেন স্থানীয় প্রভাবশালীগণ। সরকারি জমিতে ব্যক্তিগতভাবে দোকান তৈরি করে দখল করেছেন আলাউদ্দিন, নাজিম উদ্দিনসহ কয়েকজন দোকানদার। সরকারি কোয়ার্টারগুলি দখল করে আছেন বেশ কয়েকটি পরিবার সেখানে নতুন করে টিনের তৈরি বাড়ি ও নির্মাণ করেছেন তারা। স্বজনগ্রাম মৌজার ২৪৮৭ নং দাগের সরকারি অধিগ্রহণকৃত ১৫ শতক জমি দখল করে দোকান পাটসহ ঘরবাড়ি নির্মাণ করেছেন স্থানীয় প্রভাবশালী গিয়াস উদ্দিন এবং হাবিবুর।

এ ব্যাপারে আউলিয়া বেগম নামের গৃহহীন এক হতদরিদ্র নারী অভিযোগ করেন তিনি ওই একই জমিতে ছোট একটি ঘর নির্মাণ করতে গেলে গিয়াস উদ্দিন এবং হাবিবুর তাকে বাধা দেন। তাদের ভয় সেখানে তিনি আর যাননি। স্থানীয়দের দাবি এসব পরিত্যক্ত সরকারি ভবনগুলিকে সরকারি নিয়ন্ত্রণাধীনে এনে রক্ষণাবেক্ষণ করে সরকারি সেবা প্রতিষ্ঠানগুলিকে বরাদ্দ দিয়ে যাতে সংরক্ষণ করা হয়।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার পক্ষ থেকে এ বিষয়ে জানতে লাখাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার মোবাইল ফোন নম্বরে একাধিকবার কল দেয়ার পরেও তিনি কল রিসিভ করেননি।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

বানিয়াচঙ্গে ১৪ একর সরকারি ভূমি এখনো জেলা কৃষকলীগ সভাপতি হুমায়ুন কবীর রেজার জবর দখলে

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!