previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  শায়েস্তাগঞ্জ  >  বর্তমান নিবন্ধ

শায়েস্তাগঞ্জের পশু হাসপাতালের করুণ দশা ভাড়া ভবনে চলছে চিকিৎসা সেবা

 সেপ্টেম্বর ৩, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

 

স্টাফ রিপোর্টার : শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার একমাত্র সরকারী পশু হাসপাতালটির করুণ দশা পরিলক্ষিত হচ্ছে। নাম মাত্র চিকিৎসা দিলেও হাসপাতালের ভবনটি চলছে ভাড়ায়। ইতোমধ্যে শায়েস্তাগঞ্জ থানা থেকে উপজেলায় উন্নীত হওয়ায় উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তাও যোগদান করেছেন। কিন্তু পুরনো পশু হাসপাতালের করুণ দশা এবং প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার বসার স্থায়ী ভবন না থাকায় একটি ভবন ভাড়া নিয়ে হাসপাতালের কাজ চালাতে হচ্ছে ।

জানা যায়, পৌর শহরের দাউদনগর বাজার থেকে থানায় যেতে হলে চোখ পড়বে পৌরসভার ২নং ওয়ার্ডের তালুগড়াই নামক স্থানে জঙ্গলবেষ্টিত ময়লা আবর্জনার একটি স্থান। এ স্থানটির মধ্যে রয়েছে ভেঙ্গে পড়া ভবন। এটি শায়েস্তাগঞ্জ পশু হাসপাতাল। হাসপাতালটি উল্লেখিত স্থানে প্রায় ২৮ শতক জমির উপর ১৯০৩ সালে নির্মাণ করা হয়।

তৎকালীন ব্রিটিশ সরকারের আমলে নির্মিত এ হাসপাতালে শায়েস্তাগঞ্জ অঞ্চলসহ প্রায় ১০টি চা-বাগানের পশু চিকিৎসা সেবা চলে আসছিল। এরই মধ্যে পূর্ণাঙ্গ চিকিৎসা সেবা চালু অবস্থায় এরশাদ সরকারের আমলে প্রশাসনিক বিকেন্দ্রীকরণে হাসপাতালটি এ করুণ দশায় পরিণত হয়। তখন একজন এসডিএলও, দুজন ভেটেরিনারি ডাক্তার ও একজন ভেটেরিনারি সহকারী দীর্ঘ দিন যাবত হাসপাতালটিতে পশু চিকিৎসা সেবা পরিচালনা করে আসছেন। একে একে এ হাসপাতাল থেকে সবাই অন্যত্র চলে যান।

তারপরও একজন ভেটেরিনারি সহকারীর মাধ্যমে শুধু মাত্র কৃত্রিম প্রজনন চালু ছিল। এ ভেটেরিনারি সহকারীও চলে গেলে এখানে পশু চিকিৎসা কার্যক্রম একেবারে বন্ধ হয়ে যায়। পরে ২০১৭ সালের ২০ নভেম্বর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে তাঁর তেজগাঁওয়ের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস-সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির (নিকার) বৈঠকে ৪৯২তম উপজেলা হিসেবে শায়েস্তাগঞ্জকে অনুমোদন দেওয়া হয়। এরপর উপজেলা নির্বাহী অফিসার যোগদান করে শায়েস্তাগঞ্জ ভূমি অফিসের একটি ভবনে বসে কার্যক্রম পরিচালনা করছেন। পর্যায়ক্রমে স্থায়ীভাবে মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা, মৎস্য কর্মকর্তা, নির্বাচন কর্মকর্তা যোগদান করেন।

এদিকে ১৭ নভেম্বর প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেছেন ডা. রমাপদ দে। প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ রমাপদ দে ‘‘দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’’কে বলেন, ‘যোগদান করে ভাড়া ভবন নিয়ে কার্যক্রম শুরু করেছি। তবে পশু হাসপাতালের নিজস্ব জমিতে দ্রুত ভবন নির্মাণের জন্য কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।’ প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার যোগদানের খবরে স্থানীয় গবাদি পশু পালনকারীদের মাঝে বিপুল উৎসাহ দেখা দিয়েছে। কারণ এখন আর পশুর চিকিৎসার জন্য হবিগঞ্জে যেতে হচ্ছে না। শায়েস্তাগঞ্জেই পশু চিকিৎসা হচ্ছে। সমাজসেবক আব্দুল্লাহ সরদার বলেন, ‘শায়েস্তাগঞ্জসহ তার আশপাশ এলাকা এখনও কৃষি প্রধান অঞ্চল।

এ হিসেবে অনেকেরই গবাদি পশু রয়েছে। অনেকে আবার বাণিজ্যিকভাবে গবাদি পশু লালন-পালন করছেন। কিন্তু চিকিৎসা সেবা বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছিলেন গবাদি পশুর মালিকরা। এ কারণে শায়েস্তাগঞ্জ এলাকায় গবাদি পশু পালন দিন দিন হ্রাস পাচ্ছিল। যাই হোক প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা যোগদান করে কার্যক্রম পরিচালনা করছেন।

উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ তালুকদার ইকবাল বলেন, ‘হাসপাতালের পাকা ভবনটি সেই মান্ধাতার আমলেই ভেঙ্গে পড়েছিল। তারপর বাঁশের ভেড়া ও টিনের চাল দিয়ে তৈরি করা হয় আরেকটি ভবন। কয়েক বছর পূর্বে প্রবল ঝড়ে ঝুঁকিপূর্ণ এ ভবনটিও ক্ষতিগ্রস্ত হয়।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

করোনায় উদ্যান বন্ধ ঘোষণা করলেও থেমে নেই অপরাধীরা, অপরাধের নিরাপদ আশ্রয়স্থল চুনারুঘাট উপজেলার সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!