previous arrow
next arrow
previous arrownext arrow
Slider
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  বানিয়াচং  >  বর্তমান নিবন্ধ

বানিয়াচঙ্গে শিক্ষক মনিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ প্রমানিত

তার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় প্রধান শিক্ষক মনিরুল ইসলাম কে এই বিদ্যালয় থেকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ জানানো হয়েছে। এই সুপারিশ ও তদন্তের কপি ইতিমধ্যে বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ রানার বরাবরে জমা দেয়া হয়েছে।

 জুলাই ২৯, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

স্টাফ রিপোর্টার :   বানিয়াচং উপজেলা সদরের ৪নং দক্ষিণ-পশ্চিম ইউনিয়নের অন্তর্গত বনমথুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে দায়ের করা পুকুরের লীজের টাকা আতœসাৎ,রাতের আধারে বিদ্যালয়ের গাছ কর্তন,অভিভাবকদের সাথে অসদাচরণসহ নানা অপকর্ম ও দুর্নীতি অভিযোগের সত্যতা পেয়েছে তদন্ত কমিটি।

তার বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় প্রধান শিক্ষক মনিরুল ইসলাম কে এই বিদ্যালয় থেকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার পাশাপাশি প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়ার সুপারিশ জানানো হয়েছে। এই সুপারিশ ও তদন্তের কপি ইতিমধ্যে বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাসুদ রানার বরাবরে জমা দেয়া হয়েছে।

প্রধান শিক্ষক মনিরুল ইসলামের এহেন দুর্নীতি নিয়ে গত বছরের পহেলা অক্টোবর বনমথুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি হামদু মিয়া এলাকাবাসীর স্বাক্ষর নিয়ে একটি অভিযোগ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবরে দায়ের করেছিলেন। উক্ত অভিযোগের অনুলিপি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান,উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ও বানিয়াচং থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার বরাবরেও প্রেরণ করা হয়েছিল।

 

ছবি : তদন্তে প্রমাণিত হওয়া অভিযুক্ত প্রধান শিক্ষক মনিরুল ইসলাম। ফাইল ছবি

 

অভিযোগ থেকে জানা যায়,বনমথুরা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণের জন্য বিদ্যালয়ের মাঠে রোপনকৃত কয়েকটি গাছ কাটার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়। এর ফলশ্রুতিতে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মনিরুল ইসলাম রাতের আধারে পরিচালনা কমিটির সভাপতি,এমনকি কাউকে না জানিয়ে নিলাম ছাড়াই বিক্রি করে দেন। যার বাজার মূল্য ছিল প্রায় ১ লাখ টাকার মতো। উর্ধ্বতন কোন কর্মকর্তা বা কোন জনপ্রতিনিধি বিদ্যালয় পরিদর্শনে আসলে তাদের সাথে অপমানজনক ব্যবহার করেন বলেও অভিযোগে উল্লেখ করা হয়। তা ছাড়া এলাকার সহজ-সরল অভিভাবকদের সাথে তার ইচ্ছে মতো যাচ্ছেটাই ব্যবহার করেন মনিরুল ইসলাম।

তার বিরুদ্ধে বিগত বিশ বছর যাবত বিদ্যালয়ের পুকুর অবৈধভাবে লীজ দিয়ে সেই লীজের লাখ লাখ টাকা আত্নসাৎ করেন মর্মে অভিযোগে তুলে ধরা হয়। এলাকার কয়েকটি দাঙ্গা-হাঙ্গামার আসামি এই প্রধান শিক্ষকের এহেন হীন মানসিকতা,অপকর্ম ও দুর্ব্যবহারে এলাকাবাসী ও সর্বস্তরের সাধারণ মানুষ অতিষ্ঠ্য হয়ে পড়েন। কোমলমতি এই শিক্ষার্থীদের সুন্দর ভবিষ্যত জীবন ও বিদ্যালয় সুষ্ট পরিচালনার লক্ষ্যে প্রধান শিক্ষক মনিরুল ইসলামকে এই বিদ্যালয় থেকে দ্রুত অপসারণ বা অন্যত্র স্থানান্তরের দাবিও ছিল এলাকাবাসীর এই অভিযোগে।

এই নিয়ে গত বছরের ২৪ নভেম্বর দৈনিক “আমার হবিগঞ্জসহ বেশ কয়েকটি স্থানীয় পত্রিকায় শিক্ষক মনিরুল ইসলামের দুর্নীতি নিয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়। অভিযোগ পেয়ে সংবাদ প্রকাশ হলে নড়েচড়ে বসে স্থানীয় প্রশাসন। পরে তৎকালীন উপজেলা নির্বাহী অফিসার মামুন খন্দকার উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সাইফুল আলমকে প্রধান করে ৩সদস্য বিশিষ্ট কমিটি করে দেন তিনি।

দীর্ঘদিন এই শিক্ষকের বিরুদ্ধে চলা তদন্ত কাজ সম্পন্ন করে অবশেষে এই তদন্ত রিপোর্ট জমা দেয়া হয়েছে।

এই বিষয়ে বানিয়াচং উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ রানার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দৈনিক “আমার হবিগঞ্জ”কে জানান,অভিযুক্ত শিক্ষকের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। পাশাপাশি একটি সুপারিশও করা হয়েছে তদন্তে রিপোর্টে। এটা আপাতত না ই বললাম। এই রিপোর্ট আমরা অচিরেই জেলা শিক্ষা অফিসারের কাছে পাঠিয়ে দিব। আপনার পরবর্তীতে সেখান থেকে তথ্য অধিকার আইনে পুরো রিপোর্ট নিতে পারবেন।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

ময়মনসিংহের ভালুকা থেকে বানিয়াচংয়ের একটি হত্যা মামলার আসামি আটক

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!