শায়েস্তাগঞ্জে প্রকল্প অবহিতকরণ ও এডভোকেসি নেটওয়ার্ক গঠন সভা
নবীগঞ্জে কিশোরী অপহরণ : থানায় অভিযোগ দায়ের
রাত পোহালেই দুই উপজেলার ২১টি ইউনিয়নে শুরু হবে ভোটের লড়াই
বানিয়াচংয়ে পুলিশের অভিযানে পরোয়ানাভূক্ত ৭ আসামী গ্রেফতার
শায়েস্তাগঞ্জে প্রতিবন্ধী হারুনের স্বপ্ন পূরণ : পেল সরকারি ঘর
নবীগঞ্জের পানিউমদা ইউনিয়নে চাচা-ভাতিজার লড়াই : নির্বাচনী হালচাল-১৩
বানিয়াচংয়ে ভুমিহীনের জায়গা দখল পেতে ডিসি’র বরাবরে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানের আবেদন
নবীগঞ্জে অবৈধভাবে পাখি শিকার ও বিক্রয়ের দায়ে কারাদন্ড প্রদান
নবীগঞ্জের কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নে ত্রিমুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা : নির্বাচনী হালচাল-১২
শায়েস্তাগঞ্জে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ৪ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা
চুনারুঘাটে শিক্ষক-সাংবাদিকদের মাঝে বঙ্গবন্ধু সুরক্ষা বীমা হস্তান্তর অনুষ্ঠিত 
হবিগঞ্জে ২১জন শিক্ষার্থী পেল শাপলা কাপ অ্যাওয়ার্ড
কৃষকের ন্যায্য অধিকার দিতে সরকার বদ্ধ পরিকর : আবুল কাশেম চৌধুরী
মাধবপুরে কৃষকদের মাঝে প্রণোদনার সার ও বীজ বিতরণ
মাধবপুরে গৃহহীন পরিবারকে জমি দান করলেন তাঁতী লীগ নেতা
previous arrow
next arrow
শায়েস্তাগঞ্জে প্রকল্প অবহিতকরণ ও এডভোকেসি নেটওয়ার্ক গঠন সভা
নবীগঞ্জে কিশোরী অপহরণ : থানায় অভিযোগ দায়ের
রাত পোহালেই দুই উপজেলার ২১টি ইউনিয়নে শুরু হবে ভোটের লড়াই
বানিয়াচংয়ে পুলিশের অভিযানে পরোয়ানাভূক্ত ৭ আসামী গ্রেফতার
শায়েস্তাগঞ্জে প্রতিবন্ধী হারুনের স্বপ্ন পূরণ : পেল সরকারি ঘর
নবীগঞ্জের পানিউমদা ইউনিয়নে চাচা-ভাতিজার লড়াই : নির্বাচনী হালচাল-১৩
বানিয়াচংয়ে ভুমিহীনের জায়গা দখল পেতে ডিসি’র বরাবরে মুক্তিযোদ্ধা সন্তানের আবেদন
নবীগঞ্জে অবৈধভাবে পাখি শিকার ও বিক্রয়ের দায়ে কারাদন্ড প্রদান
নবীগঞ্জের কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নে ত্রিমুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা : নির্বাচনী হালচাল-১২
শায়েস্তাগঞ্জে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ৪ প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা
চুনারুঘাটে শিক্ষক-সাংবাদিকদের মাঝে বঙ্গবন্ধু সুরক্ষা বীমা হস্তান্তর অনুষ্ঠিত 
হবিগঞ্জে ২১জন শিক্ষার্থী পেল শাপলা কাপ অ্যাওয়ার্ড
কৃষকের ন্যায্য অধিকার দিতে সরকার বদ্ধ পরিকর : আবুল কাশেম চৌধুরী
মাধবপুরে কৃষকদের মাঝে প্রণোদনার সার ও বীজ বিতরণ
মাধবপুরে গৃহহীন পরিবারকে জমি দান করলেন তাঁতী লীগ নেতা
previous arrow
next arrow
Loading...
আপনি এখানে  প্রচ্ছদ  >  ভিডিও  >  বর্তমান নিবন্ধ

হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি-সেক্রেটারি’র কাণ্ড: উপজেলা সেক্রেটারি পদ দিতে ২০ লাখ টাকা লেনদেন

মুখ না খুলতে ভুক্তভোগিদের প্রতি হুমকি-ধামকি, ‘টাকা লেনদেনকারিরা ছাত্রলীগ করার অধিকার হারাবে’: লেখক ভট্টাচার্য্য

 জুলাই ২৩, ২০২০  /  কোন মন্তব্য নাই

স্টাফ রিপোর্টার।। হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সেক্রেটারি পদ দিতে ২০ লাখ টাকা লেনদেনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইদুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক মহিবুর রহমান মাহির বিরুদ্ধে এ অভিযোগ। তারা দুজন মাহতাবুর আলম জাপ্পি নামে এক ছাত্রলীগ কর্মীকে মাধবপুর উপজেলা কমিটির সেক্রেটারি পদ দেয়ার প্রলোভনে এ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন। এখন কমিটি না দিয়ে সাইদুর ও মাহি পাল্টা জাপ্পি ও তার ভাইকে মুখ না খুলতে নানাভাবে চাপ দিচ্ছেন বলে অভিযোগ করেছেন ভোক্তভোগিরা।

ছবিঃ সাইদুরের হোয়াটসএপ থেকে প্রস্তাবিত সাঃ সম্পাদক জাপ্পীর আমেরিকা প্রবাসী ভাই শাহীনের কাছে পাঠানো কমিটির স্ক্রিন শট। 

ভোক্তভোগিদের অভিযোগ, মাধবপুর থানা ছাত্রলীগের সেক্রেটারি পদ পাইয়ে দেয়ার প্রলোভনে হাতিয়ে নেয়া ২০ লাখ টাকার মধ্যে ১১ লাখ নিয়েছেন হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইদুর রহমান ও ৯ লাখ নিয়েছেন সাধারণ সম্পাদক মহিবুর রহমান মাহি। টাকা হাতিয়ে নিতে তারা হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের প্যাডে মাধবপুর থানা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি লিখে দুজনে সাক্ষর করে মাহতাবুর রহমান জাপ্পির আমেরিকা প্রবাসী ভাই শাহীনের হোয়াটসঅ্যাপে পাঠান। টাকা লেনদেন এবং কথোপকথনের যাবতীয় রেকর্ড দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার কাছে সংরক্ষিত রয়েছে। এদিকে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতারা বলছেন, টাকা লেনদেনকারীদের ছাত্রলীগে থাকার অধিকার নেই।

ছবিঃ জেলা ছাত্রলীগের অফিসিয়াল প্যাডে শহীদ আলী শান্তকে সভাপতি ও মাহতাবুর আলম জাপ্পিকে সাঃ সম্পাদক হিসেবে প্রেস রিলিজ; যা দেখিয়ে টাকা নেওয়া হয়েছিলো, কিন্তু ঘোষণা দেওয়া হয়নি।

অনুসন্ধানে জানা গেছে মাহতাবুর আলম জাপ্পি মাধবপুরের মনতলা কলেজের ছাত্র এবং ছাত্রলীগের সক্রিয় কর্মী। এ সুবাদে জাপ্পির সঙ্গে হবিগঞ্জ সরকারী বৃন্দাবন কলেজ শাখার এক নেতার সঙ্গে তার সুসম্পর্ক রয়েছে। এদিকে গত কয়েক মাস আগে মাধমপুর উপজেলা ছাত্রলীগের নতুন কমিটি দেয়ার কথা উঠে। এসময় হবিগঞ্জ সরকারি বৃন্দাবন কলেজের ওই ছাত্রলীগ নেতা জাপ্পির আমেরিকা প্রবাসী ভাই শাহীনকে একদিন ফোন করে জানায়, আপনার ভাই জাপ্পি যেহেতু ছাত্রলীগ করে চাইলে তাকে মাধবপুর উপজেলা ছাত্রলীগের সেক্রেটারি পদ পাইয়ে দেয়া যাবে। এ বিষয়ে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইদুর রহমান আপনার সঙ্গে কথা বলতে চান। পরে সাইদুর ফোনে কথা বলেন, আমেরিকার টেক্সাসে অবস্থানরত জাপ্পির ভাই শাহীনের সঙ্গে। ছোট ভাইকে কমিটিতে স্থান পাইয়ে দিতে তার কাছে ২০ লাখ টাকা চাওয়া হয়। তিনি এতে রাজি হয়ে যান। কথাবার্তার এক পর্যায়ে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি সাইদুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক মহিবুর রহমান মাহি জাপ্পি ও তার ভাইয়ের কাছ থেকে বেশ কিছু টাকা হাতিয়ে নেন। এরপর জাপ্পিকে মাধবপুর থানা ছাত্রলীগে স্থান দেয়া হচ্ছে এর প্রমাণস্বরূপ জেলা ছাত্রলীগের প্যাডে জেলা ছাত্রলীগ সভাপতি সাইদুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক মহিবুর রহমান মাহি স্বাক্ষরিত একটি কমিটির স্ক্যানকপি হোয়াটস অ্যাপের মাধ্যমে পাঠানো হয় জাপ্পির প্রবাসী ভাই শাহীনের কাছে। দেখা গেছে, গত ১৮ মে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত ওই প্যাডে লিখা আছে আগামী এক বছরের জন্য মাধবপুর উপজেলা শাখার অনুমোদন দেয়া হইল। এতে সভাপতি শহীদ আলী শান্ত ও সাধারণ সম্পাদক মাহতাবুর আলম জাপ্পি। আমেরিকা প্রবাসী শাহীন ৭৮০০ ডলার, যার ক্যাশ ডিপোজিট নম্বর #৯৫, একাউন্টের শেষের নম্বর #১২৩০ তারিখ ১৮/০৫/২০ইং আমেরিকায় সাইদুরের এক আত্মীয়ের একাউন্টে দেন। ওই ব্যক্তি সাইদুরের পক্ষ থেকে ওই টাকা বুঝে নেন।

ছবিঃ সাইদুরকে দেওয়া আড়াই লাখ টাকার ক্যাশ রশিদ।

তাছাড়া গত ১০ মে বাংলাদেশে সাইদুরের ডাচ বাংলা ব্যাংকের একাউন্টে (একাউন্ট নম্বর #১৮৭১৫১০০৫০৮৯৫) ৩৮৪৫১৬৪ নং রশিদে ২ লাখ পঞ্চাশ হাজার টাকা জমা দেন। (যার একাউন্ট নম্বর #১৮৭১৫১০০৫০৮৯৫ এবং বাকি টাকা নগদে জমা দেয়া হয়)। এছাড়া আরও ৫০ হাজার টাকা সাইদুরের একাউন্টে জমা দেওয়া হয়। এছাড়া ভোক্তভোগিদের অভিযোগ জেলা ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক মহিবুর রহমান মাহিকে ৯ লাখ টাকা দেয়া হয়েছে। এরমধ্যে নগদে ৫ লাখ ও চেকে ৪ লাখ টাকা দেয়া হয়েছে বলে ভোক্তভোগিরা জানিয়েছেন। এ লেনদেন গত ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসে হয়েছে বলে জানিয়েছেন অভিযোগকারীরা। এদিকে নগদ টাকা যাদের সামনে দেয়া হয়েছে, তাদের একজন ছাত্রলীগ নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, মহিবুর রহমান মাহির হাতে জাপ্পি আমাদের সামনেই ১ লাখ টাকার ৫টি বান্ডিল এবং একটি ব্যাংক চেক দেন। তার এ বক্তব্য দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার কাছে সংরক্ষিত আছে।

ছবিঃ সাইদুরের জন্য আমেরিকার একাউন্টে দেওয়া ৮৭০০ ডলারে ক্যাশ রশিদ। 

এদিকে মাহতাবুর আলম জাপ্পির ভাই আমেরিকা প্রবাসী শাহীন বলেন, আমি আসলে বুঝতে পারিনি এরা এতোবড় প্রতারণা করবে। আমি সরল বিশ্বাসে টাকা দিয়েছি। এখন টাকা পেয়ে পদতো দিচ্ছেই না, পাল্টা অস্বীকার করছে। অথচ আমার কাছে যে এসবের প্রমাণ রয়েছে তা তারা হয়তো জানে না। ছোট ভাই জাপ্পির প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, তার বয়স যখন ৮ বছর তখন থেকে আমরা দুই ভাই আমেরিকায় চলে আসি। এখানে ব্যবসা বাণিজ্য করছি। ছোট ভাইয়ের কোন আবদার আমরা অপুরণ রাখিনি। তাছাড়া পদের জন্য টাকা দেওয়া যে অপরাধমুলক কাজ সেই বিষয়টাও আমার মাথায় আসেনি। তিনি বলেন, আমি সরল মনে তাদেরকে টাকা দিয়েছি। এখন ওরা তার পদ দেবে দুরের কথা বিভিন্নজনকে দিয়ে আমাদেরকে মুখ বন্ধ রাখতে নানাভাবে হুমকি ধমকি দিচ্ছে।

অডিও-১ঃ সাঃ সম্পাদক মাহী ও প্রস্তাবিত সাঃ সম্পাদক জাপ্পির আমেরিকা প্রবাসী ভাই এর কথোপকথন।

সুনির্দিষ্ট মন্তব্যের জন্য হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সাধারন সম্পাদক মাহীর সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, এইসব অভিযোগ মিথ্যে। আপনাদের দু’জনের স্বাক্ষরিত বাংলাদেশ ছাত্রলীগের অফিসিয়াল প্যাডে মাধবপুরের উপজেলা কমিটি অনুমোদন দেয়া আছে যা আপনারা এখনো পাবলিশ করেননি এবং টাকা লেনদেনের চেক, অডিও রেকর্ড, ক্যাশ রিসিভ ও অন্যান্য ডকুমেন্টস “দৈনিক আমার হবিগঞ্জ”র কাছে আছে, এই বিষয়ে কী বলবেন? তখনও তিনি পূর্বের ন্যায় বলেন, এ ধরনের সব অভিযোগ মিথ্যে। আপনাদের কাছে প্রমান থাকলে অবশ্যই নিউজ করবেন। তাতে আমার কোন অসুবিধা নেই। যা খুশি নিউজ করেন। আমাদের কেউ কিছু করতে পারবে না।

অডিও-২:সভাপতি সাইদুর ও প্রস্তাবিত সাঃ সম্পাদক জাপ্পির আমেরিকা প্রবাসী ভাই এর কথোপকথন।

এ বিষয়ে সোমবার রাতে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইদুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন, বেশ দিন ধরেই শাহীনের সঙ্গে আমার কথা হতো। এসব কথা রেকর্ড করে রেখেছে সে। আমার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ সত্য না। তিনি বলেন, শাহীন একটা প্রতারক। নিজেকে আমেরিকান একটি বাহিনীর পরিচয় দেয় সে। এর কোন প্রমাণ আছেন কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার কাছে কোন রেকর্ড নেই। তবে তার আর্মির পোষাক পরা ছবি আছে। এরপর তিনি শাহীনের একটি ছবি পাঠান। এ ব্যাপারে প্রশ্ন করা হলে শাহীন বলেন, আমি আমেরিকার টেক্সাসে যেখানে ব্যবসা করি, সেখানে ৯টি ক্যান্টনমেন্ট। সেখানের লোকজন সবাই তাদের পোষাক পরে। বাংলাদেশের মতো কোন বাধ্যবাধকতা নেই। আরেক প্রবাসীর সঙ্গে যোগাযোগ করে একথা সত্যতা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনিও বলেন, এখানে পোষাক পরা কোন অপরাধ নয়। সবাই পরে।

অডিও-৩:সভাপতি সাইদুর ও প্রস্তাবিত সাঃ সম্পাদক জাপ্পির আমেরিকা প্রবাসী ভাই এর কথোপকথন।

হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের বিষয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের কাছে বারবার ফোন ও এসএমএস করার পরে সাধারণ সম্পাদকের বক্তব্য পাওয়া যায়। কেন্দ্রীয় সভাপতির কোন মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

কথা হয় কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাদ বিন কাদের’র সাথে। জানতে চাই, আপনারা এদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক কি ব্যবস্থা নিবেন? তিনি বলেন, এবিষয়ে আমি কিছু বলতে পারবোনা। আমাদের কাউকেই এখনো কোন জেলার সাংগঠনিকভাবে দায়িত্ব দেয়া হয়নি। তবে এবিষয়ে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের সাথে কথা বলতে পারেন।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগে সিলেট বিভাগের ছাত্রলীগ নেতা মিহির রঞ্জন দাশের সাথে অভিযোগের বিষয়ে মন্তব্যের কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন এ ধরণের অভিযোগ সত্য প্রমানিত হলে অবশ্যই তাদের বিরুদ্ধে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিবে। তবে ব্যাপারটা নিয়ে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের সঙ্গে আমি আলাপ করে তারপর আপনাকে জানাবো। আপনি আমাকে রাতে আরেকবার ফোন করবেন। রাতে ফোন দেয়ার পরেও তিনি ফোন রিসিভ করেনি। পরেরদিন সকালে তিনি নিজে থেকে ফোন করে আরেকজন নেতা রাজ’র নম্বর দিয়ে বলেন, আমি আপনার কথা রাজ’কে বলেছি, আপনি ফোন দিলে সাধারন সম্পাদকের সঙ্গে কথা বলতে সাহায্য করবে।

ফোন দেয়া হয় কেন্দ্রীয় নেতা  রাজ’র কাছে। তিনি বলেন আপনাদের ডকুমেন্টস থাকলে আমাকে দেন আমি দেখি কী করা যায়। তাকে বলা হলো, নাহ আগে আমরা সাধারণ সম্পাদকের সাথে কথা বলবো তারপর যদি সাধারন সম্পাদক দেখতে চান তাহলে আমরা অবশ্যই ডকুমেন্টস দিব। কেননা সাধারন সম্পাদক’র মন্তব্য আমাদের দরকার। তারপর আর তিনি ফোন দেননি এবং আমাদের ফোনও ধরেননি।

পরেরদিন সকালে পূর্বের ন্যায় মিহির রঞ্জন দাশের ফোন। তিনি বলেন, দাদা, (সাধারন সম্পাদক) আমাকে বিষয়টা দেখতে বলেছে। আপনারা এখন নিউজ না করে আমাকে একটু সময় দেন। আমি বিষয়টা দেখি, আপনি আমাকে যেকোনো একটা ডকুমেন্টস দেন। আপনাদের কাছে সাধারন সম্পাদকের মন্তব্য সন্ধার মধ্যে পৌঁছে দেব।

কেন্দ্রীয় নেতাকর্মী হিসেবে তাদের দায়িত্ববোধের জায়গা থেকে অভিযোগ সত্য হলে কী পদক্ষেপ নিবেন? এই মন্তব্যের উত্তরের জন্য রাজ ও মিহিরের একরকম এলোমেলো কথা বার্তায় সন্দেহ হয় আমাদের প্রতিবেদকের, কেননা দু’জনেই ডকুমেন্টস চাইলো। এভাবে ডকুমেন্টস চাওয়ার পরে ডকুমেন্টস না দেয়ায় তারা দু’জনেই আর ফোন ধরেনি।

এদিকে কেন্দ্রীয় দুই নেতার সাথে কথা বলার মাঝেও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি/সাধারণ সম্পাদক’র নম্বরে একাধিকবার ফোন করা হলেও তারা কেউ ফোন রিসিভ করেনি।

পরবর্তীতে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য্য এর ফোন আসে “দৈনিক আমার হবিগঞ্জ”র প্রতিবেদকের কাছে। তিনি জানতে চান, “দৈনিক আমার হবিগঞ্জ”র কাছে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে কী অভিযোগ? উত্তরে, হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলা ছাত্রলীগের কমিটি বানিজ্যে হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সাইদুর ও সেক্রেটারি মাহীর যথাক্রমে ১১ লাখ ও ৯ লাখ টাকা গ্রহণের ব্যাপারে বিস্তারিত বলা হলে, তিনি বলেন এ ধরনের কার্যকলাপে ছাত্রলীগ কোন ভাবে জড়িত থাকলে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। তবে তাদের আত্মপক্ষ সমর্থনের সুযোগ দিতে হবে। তাছাড়া টাকা নিয়েছে প্রমাণ পেয়েছেন কিন্তু টাকা নিয়ে যেহেতু কমিটি পাবলিশ করেনি সেক্ষেত্রে আমরাতো কোন কিছু করতে পারিনা। এমন মন্তব্যের ভিত্তিতে প্রশ্ন করা হয়, আপনারা তাহলে টাকা লেনদেনের ডকুমেন্টস ও জেলা ছাত্রলীগের অফিসিয়াল প্যাডে সভাপতি, সাধারণ সম্পাদকের স্বাক্ষরিত কমিটির কাগজ থাকা সত্বেও কোন ব্যবস্থা নিবেননা? প্রতি উত্তরে তিনি বলেন, তাহলে প্রমাণ গুলো আমাকে পাঠান। আমি আপনাকে কিছুক্ষণের মধ্যেই ফোন করে এব্যাপারে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের মন্তব্য জানিয়ে দিব। এরপর একে একে সব প্রমাণ তার ব্যক্তিগত মোবাইলের ওয়াট’সঅ্যাপ নম্বরে পাঠানো হয়।

সর্বশেষ এ ব্যাপারে মঙ্গলবার বিকেলে যোগাযোগ করা হলে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক লেখক লেখক ভট্টাচার্য্য বলেন, বিষয়টা আমি গভীরভাবে দেখছি । আমি জেলার প্রেসিডেন্ট সেক্রেটারির সঙ্গে কথাও বলেছি। ঘটনা যদি সত্য হয় তাহলে যারা টাকা দিয়েছে এবং যারা টাকা নিয়েছে দুইপক্ষই ছাত্রলীগ করার অধিকার হারাবে। তাদের বিরুদ্ধে আমরা সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেব। যাতে তারা কেউই ভবিষ্যতে আর ছাত্রলীগের রাজনীতিই না করতে পারে। তিনি বলেন, করোনার কারণে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ রয়েছে। যে কারণে এখন কেন্দ্র থেকেই কমিটি ঘোষণা দিতে নিষেধ করা হয়েছে।

  • প্রকাশক ও সম্পাদকঃ সুশান্ত দাস গুপ্ত

  • Sushanta.D.Gupta-Facebook

    Facebook Pagelike Widget
  • যেভাবে নিউজ পাঠাবেন

    নিউজ পাঠাতে ইচ্ছুক যে কেউ news@amarhabiganj.com এই ঠিকানায় নিজের নাম, ঠিকানা ও মোবাইল নাম্বার দিয়ে নিউজ পাঠাতে পারেন। আমরা যাচাই বাচাই শেষে আপনার নিউজ যথারীতি প্রকাশ করবো। উল্লেখ্য, নিউজগুলো অবশ্যই হবিগঞ্জ সম্পর্কিত হতে হবে।

  • জরুরী নোটিশ

    দৈনিক আমার হবিগঞ্জ এর প্রতিটি নিউজ ১০০ ভাগ মৌলিক। যদি কোন সংবাদকর্মী অন্য কারো বা অন্য কোন নিউজ কপি করেন এবং সেটা প্রমানিত হয় তাহলে তাকে বিনা নোটিশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ থেকে বরখাস্ত করা হবে এবং যথারীতি আইনী প্রক্রিয়ার আওতায় এনে শাস্তির ব্যবস্থা করা হবে।

You might also like...

রাত পোহালেই দুই উপজেলার ২১টি ইউনিয়নে শুরু হবে ভোটের লড়াই

আরও পড়ুন →

This function has been disabled for Amar Habiganj-আমার হবিগঞ্জ.

Don`t copy text!