ঢাকাসোমবার , ২২ নভেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

ভূয়া ট্যাক্স সার্টিফিকেট দিয়ে হবিগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সে সদস্য অন্তর্ভুক্তির অভিযোগ

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
নভেম্বর ২২, ২০২১ ৯:১৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

তারেক হাবিব ॥   টিন ও ট্যাক্স সার্টিফিকেট জালিয়াতির মাধ্যমে সদস্য অন্তর্ভুক্তির অভিযোগ উঠেছে হবিগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে। ট্যাক্স পরিশোধ না করেই ভূয়া সার্টিফিকেট ব্যবহার করে শাকিল মোহাম্মদ নামে এক ব্যক্তিকে সদস্য অন্তুর্ভুক্তির তথ্য পাওয়া গেছে।
শুধু সদস্য অন্তর্ভুক্তি ই নয়, আগামী ২৩ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের নির্বাচন তিনি দায়িত্ব পালন করছেন প্রধান নির্বাচন কর্মকর্তা হিসেবে।
জানা যায়, হবিগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের সিনিয়র সদস্য আবু হেনা মোস্তফা কামাল, দেওয়ান মিয়া এবং মিজানুর রহমান শামীমের সহযোগীতায় বেশ কিছুদিন আগে সদস্যপদ লাভ করেন শাকিল মোহাম্মদ নামে এক ব্যবসায়ী। সদস্যপদ লাভের পর থেকে তিনি দীর্ঘদিন ধরে নানা সুযোগ-সুবিধা লাভ করে আসছিলেন তিনি।
সাম্প্রতিককালে চেম্বার অব কমার্সের নানা জটিলতা দেখা দিলে সদস্যদের তথ্যানুসন্ধানে বিষয়টি নজরে আসে সবার। দৈনিক আমার হবিগঞ্জের হাতে আসা ওই ভূয়া ট্যাক্স ও টিন সার্টিফিকেট পর্যালোচনা করে দেখা যায়, ৬৪২০৫৬৮১০৮২৭ সনাক্তকরণ সংখ্যায় ২০২০ থেকে ২০২১ সালের কর পরিশোধের ভূয়া তথ্য উপস্থাপন করেছেন চেম্বার অব কমার্সের অফিসে।

ছবি : চেম্বারে দাখিল করা ভুয়া ট্যাক্স সার্টিফিকেট

বিষয়টি কর্তৃপক্ষের সন্দেহ হলে যাচাই-বাচাইয়ের জন্য হবিগঞ্জের সহকারী কর কমিশনার আব্দুর রাজ্জাকের কাছে গেলে এর কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি। এ ব্যাপারে শাকিল মোহাম্মদের যোগাযোগ করলে তিনি ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ‘এটা ভুয়া হলেও আসল গুলো আমার কাছে আছে’। জমাকৃত গুলো ভূয়া হলে আপনার তো সদস্যপদ থাকবে না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘আমি প্রেসিডেন্টের স্বাক্ষরে দায়িত্ব পালন করছি, তিনিই দেখবেন সব’।
হবিগঞ্জ জেলা সহকারী কর কমিশনার মোঃ আব্দুর রাজ্জাক জানান, বিষয়টি শুনেছি। তথ্য যাচাইয়ে ওই সার্টিফিকেটের কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি। এটা নিঃসন্দেহে জালিয়াতি ও দন্ডনীয় অপরাধ। এর দায়ে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা এবং ৬ মাসের বিনাশ্রম কারাদন্ড হতে পারে।
হবিগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সের প্রেসিডেন্ট মোঃ মোতাচ্ছিরুল ইসলাম দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে জানান, সন্দেহ হলে যাচাই বাচাইয়ে ট্যাক্স সার্টিফিকেটের কোন সত্যতা পাওয়া যায়নি। আমাকে অবগত না করে শাকিল মোহাম্মদকে সদস্য বানানো হয়েছে।
নাম প্রকাশ্যে অনিচ্ছুক এক সদস্য জানান, হবিগঞ্জ চেম্বার অব কমার্সে নানাবিধ জটিলতা তৈরি করতেই কৌশলে তাকে সদস্য বানানো হয়েছে। একটি ইস্যু তৈরি মামলা এবং নৈরাজ্যই এর প্রধান উদ্দেশ্য। এদিকে, নানাবিধ জটিলতায় আজ সোমবার (২২নভেম্বর) জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে বিষয়টির শুনানী অনুষ্ঠিত হবে বলে জানা গেছে।

Developed By The IT-Zone