ঢাকাWednesday , 8 April 2020
আজকের সর্বশেষ সবখবর

৮ এপ্রিল ১৯৭১

Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক,নির্বাহী সম্পাদক।।

চাঁদপুরের বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে হাজীগঞ্জ ডাকবাংলোতে পাকিস্তানি বাহিনীর প্রতিরোধ নিয়ে এক বৈঠক হয়। এই বৈঠকে ডা. আবদুস সাত্তার, ড. আবু ইউসুফ, হাবিবুর রহমান, সাইদুর রহমান, বি এম কলিমুল্লাহ, আলী আহমদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। ডেপুটি কমিশনার মঞ্জুরুল করিম পরিস্থিতি নিয়ে সুবেদার মেজর লুৎফর রহমানের সাথে আলোচনায় বসেন এবং নোয়াখালী প্রতিরক্ষার পরিকল্পনা করেন। মেজর সি আর দত্ত ও ক্যাপ্টেন আজিজ সিলেট জেলা মুক্ত করার পরিকল্পনা গ্রহণ করেন। নড়াইল-যশোর রোডে দাইতলা নামক স্থানে অবস্থানরত মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিরক্ষাব্যূহতে পাকিস্তানি বাহিনী আক্রমণ চালায়। ৫ ঘণ্টা স্থায়ী এ যুদ্ধে পাকিস্তানি বাহিনী আর্টিলারি ও মর্টার ব্যবহার করে। মুক্তিযোদ্ধারা গোলাবারুদের অভাবে পিছু হটে নড়াইলে অবস্থান নেয়। রাত ১টায় সুবেদার বোরহানের নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধাদের একটি কোম্পানি লালমনিহারহাট থানা হেডকোয়ার্টারে অবস্থানরত পাকিস্তানি সেনাদের ওপর অতর্কিতে আক্রমণ চালায়। পাকিস্তানি সেনারা ফিল্ডগান আর্টিলারি এবং অন্যান্য আধুনিক অস্ত্রের সাহায্যে মুক্তিযোদ্ধাদের বদরগঞ্জ প্রতিরক্ষাব্যূহে আক্রমণ চালায়। এ যুদ্ধে তিনজন মুক্তিযোদ্ধা শহীদ হন। ভুষিরবন্দরে মুক্তিযোদ্ধাদের অবস্থানের ওপর পাকিস্তানি বাহিনী আক্রমণ চালায়। এ যুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধারা পিছু হটে এবং দশমাইল নামক স্থানে ডিফেন্স নেয়। কুড়িগ্রামে ক্যাপ্টেন নওয়াজেশের উদ্যোগে মুক্তিযোদ্ধাদের একটি সম্মেলন হয়। ভারতীয় বিএসএফের লে. কর্নেল লিমাইয়া, মেজর সি আর দত্ত ও ক্যাপ্টেন আজিজের সাথে সাক্ষাৎ করেন এবং সামরিক সাহায্যের প্রতিশ্রুতি দেন। পাকিস্তানি বাহিনী শালুটিকর বিমানবন্দর এবং লাক্কাতুরা এলাকা থেকে অগ্রসর হয়ে মুক্তিযোদ্ধাদের বিভিন্ন অবস্থানের ওপর হামলা চালায়। পাঁচদোনায় মুক্তিযোদ্ধাদের দৃঢ় প্রতিরক্ষাব্যূহে পাকিস্তানি সেনারা আক্রমণ চালায়। এই আক্রমণে পাকিস্তানি বাহিনী ১৫৫টি প্রাণ হারিয়ে এবং ব্যাপক ক্ষতির স্বীকার হয়ে পিছু হটে।

কালিহাতী সেতু এলাকায় মুক্তিযোদ্ধা ও পাকিস্তানি বাহিনীর মধ্যে তুমুল সংঘর্ষ হয়। পাকিস্তানি বাহিনী বেশ ক্ষতি স্বীকার করে। ভারতের ত্রিপুরায় বাংলাদেশের শরণার্থীদের জন্য ৯টি শরণার্থী শিবির খোলা হয়। জাতিসংঘে পাকিস্তানের স্থায়ী প্রতিনিধি আগা শাহি জাতিসংঘের মহাসচিব উথান্টের কাছে প্রেরিত এক নোটে বলেন, ভারত পাকিস্তানের অভ্যন্তরীণ ব্যাপারে হস্তক্ষেপ করছে। ভারত বিচ্ছিন্নতাবাদীদের প্রত্যক্ষ মদদ জোগাচ্ছে। ঢাকায় সামরিক কর্তৃপক্ষ ঘোষণা করে, পূর্ব পাকিস্তানে সশস্ত্র বাহিনী যে তৎপরতা চালাচ্ছে, বিমানবাহিনী তাতে সাহায্য করছে। বিমানবাহিনী অনুপ্রবেশকারীদের [মুক্তিযোদ্ধা] আস্তানায় ও যানবাহনের ওপর আঘাত হানছে। দুষ্কৃতকারীরা [মুক্তিবাহিনী] পূর্ব পাকিস্তানে সাধারণভাবে যানবাহন চলাচলে অন্তরায় সৃষ্টির জন্য রাস্তায় যে প্রতিবন্ধকতা তৈরি করেছে তা অপসারণ করা হয়েছে। কালবিলম্ব না করে পূর্ব পাকিস্তানের জনগণকে সমাজ ও রাষ্ট্রবিরোধীদের প্রতিরোধ করে দেশে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনতে হবে এ মর্মে কৃষক শ্রমিক পার্টির সভাপতি এ এস এম সোলায়মান ঢাকায় এক বিবৃতি দেন। মুসলিম লীগ নেতা কাজী আবদুল কাদের করাচিতে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, পূর্ব পাকিস্তানের সাম্প্রতিক অরাজকতার জন্য শেখ মুজিব ও বেআইনি ঘোষিত আওয়ামী লীগ দায়ী। তিনি সেনাবাহিনীর সময়োচিত হস্তক্ষেপের প্রশংসা করে বলেন, তারা বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হাত থেকে দেশ ও জনগণকে বাঁচিয়েছে। জাকার্তায় ইন্দোনেশীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা পূর্ব পাকিস্তানি দূতাবাসের সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শন করে।

দিঘী ইউনিয়নের মাইজখাড়া গ্রামে মো. মহারাজ, মঙ্গল মিয়া, জয়ড়ার বাহেরুদ্দিন ও নোয়াখালীর আবদুল মান্নান মানিকগঞ্জের কালীগঙ্গা নদীর পাড়ে পাকিস্তানি বাহিনীর গুলিতে শহীদ হন। তারা সবাই তরাঘাটের সড়ক ও জনপথ বিভাগের কর্মচারী। পাকিস্তানি বাহিনীর দুই কোম্পানি সৈনিক ৭টি স্পিডবোট ও ২টি লঞ্চ সহযোগে রাঙামাটি-মহালছড়ি নৌপথের আশপাশে অবস্থানরত মুক্তিবাহিনীর ওপর আক্রমণ করে। মুন্সি আবদুর রউফের এলএমজির কাভারিং ফায়ারে ক্যাপ্টেন খালেকুজ্জামান তার সৈন্যদের নিয়ে পিছু হটতে থাকেন। তার অব্যর্থ গুলিতে স্পিডবোটগুলো ডুবে যায় এবং সেগুলোতে অবস্থানরত পাকিস্তানি সৈন্যরা হতাহত হয়। বাকি সৈন্যরা লঞ্চ দুটিতে করে পালাতে থাকে। পাকিস্তানিরা এলএমজির রেঞ্জের বাইরে গিয়ে ৩ মর্টারের গোলাবর্ষণ করতে থাকে। অসমসাহসী মুন্সি আবদুর রউফ তখনো গুলি চালানো অব্যাহত রেখেছিলেন। হঠাৎ শত্রুর একটি গোলা তার ঠিক ওপরে পড়ে। মুহূর্তেই ছিন্নভিন্ন হয়ে যায় (বীরশ্রেষ্ঠ) মুন্সি আবদুর রউফের দেহ।