ঢাকাTuesday , 31 March 2020
আজকের সর্বশেষ সবখবর

৩১ মার্চ ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
March 31, 2020 12:01 am
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক
নির্বাহী সম্পাদক।।

এক লাখের বেশি মানুষ নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ ত্যাগ করে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে ভারতে প্রবেশ করে। পার্বত্য চট্টগ্রামে ১ কিলোওয়াট ক্ষমতাসম্পন্ন স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র স্থাপিত হয়। ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী পার্লামেন্টে বাংলাদেশের জনগণের গণতান্ত্রিক সংগ্রামের প্রতি তার নিজের, ভারতীয় জনগণ ও সরকারের পক্ষ থেকে একাত্মতা ও সংহতি ঘোষণা করেন।

বিকেল ৪টা ৩০ মিনিটে কুষ্টিয়ায় কৃষক-পুলিশ-ইপিআরের সম্মিলিত ৫০০ যোদ্ধার দল পাকিস্তানি বাহিনীর ডেল্টা কোম্পানির সৈন্যদের পাঁচটি অবস্থানে হামলা চালায়। অগ্রসরমাণ জনতার সমুদ্র থেকে উত্থিত ‘জয় বাংলা’ ধ্বনি এবং অব্যাহত গুলিবর্ষণে ডেল্টা কোম্পানির প্রতিরোধ ভেঙে পড়ে। সকাল ৭টায় হালিশহরের কাঁচা সড়ক জংশনে পাকিস্তান সেনাবাহিনীর একটি ব্রিগেড আর্টিলারি, ট্যাংকসহ ইপিআর ব্যূহ ভেদ করে হালি শহরের দিকে অগ্রসর হয়। এই সংঘর্ষে পাকিস্তানি বাহিনীর গুলিতে ১৫ জনের অধিক ইপিআর সদস্য শহীদ হন। বেলা ২টায় চট্টগ্রাম ইপিআর সদর দপ্তর হালি শহরের পতন ঘটে। পাকিস্তানি অফিসার লে. আতাউল্লাহ শাহ আহত অবস্থায় মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে ধরা পড়েন। ক্যান্টনমেন্ট ব্যতীত সমগ্র যশোর শহর মুক্ত হয়। বাঙালি অপারেটর সেপাই মুজিবুল্লাহ যশোর সেক্টর থেকে ওয়্যারলেস সেট মারফত বাংলা, উর্দু ও ইংরেজিতে বিশ্বের কাছে বাঙালিদের সাহায্যে এগিয়ে আসার জন্য আকুল আবেদন জানান। দিনাজপুর শহর শত্রুমুক্ত হয়। সৈয়দপুর সেনানিবাসে অবস্থানরত তৃতীয় বেঙ্গল ব্যাটালিয়নের ওপর পাকিস্তানি বাহিনীর ২৬তম এফএফ এবং অন্যরা অতর্কিতে হামলা চালায়। ৩১তম পাঞ্জাব রেজিমেন্টের একটি কোম্পানি অকস্মাৎ ১২ নং উইং হেডকোয়ার্টার খাদেমনগর আক্রমণ করলে সেপাই আবদুল হালিম, সেপাই আবদুল রাজ্জাক, সেপাই শরাফত আলীসহ কয়েকজন শহীদ হন।

লে. মাহফুজ তার প্লাটুনসহ এক দুঃসাহসিক অভিযান চালিয়ে কর্ণফুলীর পাড়ে অবস্থিত কৃষি ভবনে অবস্থানকারী পাকিস্তানি বাহিনীর তৃতীয় কমান্ড ব্যাটালিয়নের একটি প্লাটুনকে বিতাড়িত করে উক্ত ভবনটি পুনর্দখল করেন। কুষ্টিয়া শহরের পাকিস্তানি বাহিনীর অবস্থানের ওপর মুক্তিযোদ্ধারা আক্রমণ চালায়। দুপুরের মধ্যে তারা পাকিস্তানি বাহিনীর দ্বিতীয় ঘাঁটি দখল করে নেয়।