ঢাকাFriday , 27 March 2020
আজকের সর্বশেষ সবখবর

২৭ মার্চ ১৯৭১

অনলাইন এডিটর
March 27, 2020 12:24 pm
Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক, নির্বাহী সম্পাদক।।

সকালে সাময়িকভাবে কারফিউ তুলে নিয়ে হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে অবস্থানরত সকল বিদেশি সাংবাদিককে কড়া সেনা প্রহরায় সরাসরি বিমানবন্দরে নিয়ে যাওয়া হয়। বিশেষ বিমানে তাদের ঢাকা ত্যাগ করতে বাধ্য করা হয়। সেনাবাহিনীর দৃষ্টি এড়িয়ে দুজন সাংবাদিক অত্যন্ত ঝুঁকি নিয়ে ঢাকায় থেকে গিয়েছিলেন। তারা হলেন, ডেইলি টেলিগ্রাফের সাইমন ড্রিং এবং এএফপির ফটোগ্রাফার মিশেল। ঢাকা শহরজুড়ে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর নির্মমতার শিকার হাজার হাজার নিরীহ বাঙালির প্রাণহীন দেহ ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকতে দেখা যায়। কারফিউ প্রত্যাহারের সাথে সাথে ঢাকা শহর ছেড়ে দলে দলে নাগরিকেরা অন্যত্র নিরাপদ আশ্রয়ে চলে যেতে থাকে। চট্টগ্রাম শহরের চারপাশসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় মুক্তিযোদ্ধারা পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলেন এবং হানাদারদের বিরুদ্ধে প্রচণ্ড লড়াই শুরু করেন। দেওয়ানহাট থেকে পাকিস্তানি সেনাদের চারটি গাড়ি হালিশহরের দিকে এগোতে থাকলে ল্যান্সনায়েক আবদুর রাজ্জাক অতর্কিতে পাকিস্তানি সেনাদের ওপর আক্রমণ করে বেশ কয়েকজনকে হত্যা করেন এবং গাড়িটি ধ্বংস করে দেন। ইপিআর সৈনিকেরা এখান থেকে বেশকিছু অস্ত্র এবং গোলাবারুদ উদ্ধার করেন। তৎকালীন ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের মেজর জিয়াউর রহমান কালুরঘাটস্থ স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে মহান নেতা ও বাংলাদেশের সর্বাধিনায়ক শেখ মুজিবুর রহমানের পক্ষ হতে এক স্বাধীনতা ঘোষণাপত্র প্রচার করেন।

এদিন ভারতীয় লোকসভায় ভাষণদানকালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী বাংলাদেশের প্রতিরোধযুদ্ধ সম্পর্কে বলেন, পূর্ববঙ্গের সমগ্র জনগণ একবাক্যে গণতান্ত্রিক কর্মপন্থা গ্রহণ করেছে। একে আমরা অভিনন্দন জানাই। ইন্দিরা গান্ধী বলেন, ভারত সরকার পূর্ববঙ্গের সর্বশেষ পরিস্থিতি সম্পর্কে সজাগ রয়েছে এবং যথাসময়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে। মেজর সফিউল্লাহ তার ব্যাটালিয়নকে ময়মনসিংহে জমায়েত হবার আদেশ দেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মেজর শাফায়াত জামিলের নেতৃত্বে চতুর্থ বেঙ্গল রেজিমেন্টের পাঁচ-ছয় শ সৈনিক জয় বাংলা স্লোগান ও ফাঁকাগুলির মাধ্যমে বিদ্রোহ করে মুক্তিযুদ্ধে যোগ দেয়। বিদ্রোহের প্রাথমিক উত্তেজনা স্তিমিত হয়ে এলে তিনি সৈনিকদের আশপাশের গ্রামগুলোতে অবস্থান নেওয়ার নির্দেশ দেন। কারণ পাকিস্তানি বাহিনী বিমান হামলা চালাতে পারে। একজন অফিসারকে একদল সৈনিকসহ কুমিল্লার দিক থেকে পাকিস্তানি সেনাদের আক্রমণ ঠেকানোর জন্য শহরের দক্ষিণে অ্যান্ডারসন খালের পাশে অবস্থান নিতে পাঠান। বিকেল সাড়ে তিনটার দিকে শমসেরনগর থেকে মেজর খালেদ মোশাররফ তার সেনাদল নিয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এসে পৌঁছালে মেজর শাফায়াত জামিল চতুর্থ বেঙ্গল রেজিমেন্টের দায়িত্ব তার হাতে অর্পণ করেন।