ঢাকাWednesday , 15 April 2020
আজকের সর্বশেষ সবখবর

১৫ এপ্রিল ১৯৭১

Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক,নির্বাহী সম্পাদক।।

মধুপুরে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতিরক্ষাব্যূহ ভেঙে পড়ে। পাকিস্তানি বাহিনীর আক্রমণে ভৈরবের পতন হয়। পাকিস্তানি বাহিনী ভৈরবে ব্যাপক হত্যাযজ্ঞ এবং লুণ্ঠন, অগ্নিসংযোগের মাধ্যমে ধবংসযজ্ঞ চালায়। নগরবাড়ী ঘাটে পাকিস্তানি বাহিনী ফেরি থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের ওপর মর্টার ছোড়ে। পাকিস্তানি বাহিনীর এ আক্রমণে মুক্তিযোদ্ধারা তাদের অবস্থান থেকে ১০ কিমি পিছিয়ে বগুড়া মহাসড়কের ডাববাগান এলাকায় এসে অবস্থান নেয় এবং শত্রুবাহিনীর জন্য ত্রিমুখী ফাঁদ তৈরি করে।


পাকিস্তানি বাহিনী চুয়াডাঙ্গায় প্রচণ্ড বিমান হামলা চালায়। এ হামলায় অসংখ্য নিরস্ত্র নিরীহ মানুষ নিহত হয়। পাকিস্তানি বাহিনী হাজীগঞ্জ বাজারে প্রবেশ করে। অপর দিকে কলিমুল্লাহর নেতৃত্বে মুক্তিযোদ্ধাদের একটি দল চাঁদপুর ও ফরিদগঞ্জ থেকে ডাকাতিয়া নদীর দক্ষিণ পাড়ে সমবেত হয়ে প্রতিরক্ষামূলক অবস্থান নেয়। পাকিস্তানি বাহিনী ১০টি ট্রাক ও ৮টি জিপে করে গুলি করতে করতে ঠাকুরগাঁও শহরে প্রবেশ করে। আতঙ্কে ঠাকুরগাঁওবাসী শহর ছাড়তে শুরু করে। অল্পক্ষণের মধ্যে শহর হয়ে যায় ধু ধু জনশূন্য। তিতাস নদীর পূর্ব পাড়ে শাহবাজপুরের কাছে মুক্তিযোদ্ধারা একটি প্রতিরক্ষাব্যূহ রচনা করে। বিকালে পাকিস্তানি বাহিনীর হাতে ঝিনাইদহের পতন ঘটে। লে. মাহফুজ খাগড়াছড়িতে মেজর জিয়ার সাথে সাক্ষাৎ করে সুবেদার খায়রুজ্জামান, করিম, ইঞ্জিনিয়ার ইসহাক, ফারুক আহম্মদ, শওকত আলী প্রমুখকে নিয়ে রাঙামাটি বুড়িঘাট বাজারে আসেন ও অবস্থান নেন। এখান থেকে তারা পাকিস্তানি বাহিনীকে অতর্কিত আক্রমণ করে ব্যতিব্যস্ত করে তোলেন। চট্টগ্রামের রাজাঘাট এলাকা পাকিস্তানি বাহিনীর দখলে চলে যায়। মুক্তিবাহিনী পাকিস্তানি বাহিনীর কাছ থেকে কুমিল্লার গঙ্গাসাগর পুনরুদ্ধার করে। মুক্তিবাহিনী কয়েক দিন ধরে প্রতিরোধযুদ্ধের পর রাজশাহী শহরের অবস্থান ছেড়ে দেয়।

নিউজিল্যান্ডের ভারপ্রাপ্ত প্রধানমন্ত্রী মার্শাল এক বার্তায় বলেন, ও আমরা আশা করি, প্রেসিডেন্ট ইয়াহিয়া খান অবিলম্বে পূর্ব পাকিস্তানের বর্তমান গৃহযুদ্ধের অবসানের ব্যবস্থা করবেন ও ঢাকায়ও নাগরিক শান্তি কমিটির নাম পরিবর্তন করে পূর্ব পাকিস্তান কেন্দ্রীয় শান্তি কমিটি রাখা হয়। রাজা ত্রিদিব রায়ের আহ্বানে পাকিস্তানি বাহিনী রাঙামাটি শহরে এসে পৌঁছায়। বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন গোপনে দেখা করেন কলকাতায় নিযুক্ত পাকিস্তানের ডেপুটি হাইকমিশনার হোসেন আলীর সঙ্গে। হোসেন আলী এবং ডেপুটি হাইকমিশনে নিযুক্ত সকল বাঙালি যাতে ১৮ এপ্রিল একযোগে বাংলাদেশ সরকারের পক্ষে তাদের আনুগত্য পরিবর্তন করে, তার ব্যবস্থাদি সম্পন্ন হয় দু’দফায় বৈঠকে।