ঢাকাWednesday , 11 March 2020
আজকের সর্বশেষ সবখবর

১১ মার্চ ১৯৭১

Link Copied!

নুরুজ্জামান মানিক
নির্বাহী সম্পাদক

অসহযোগ আন্দোলনের শুরু থেকে এ পর্যন্ত সবচেয়ে অবাক করা ঘটনা ঘটে এদিনে। নারায়ণগঞ্জের প্রেক্ষাগৃহগুলোতে ছায়াছবি শুরুর আগে পাকিস্তানের জাতীয় সংগীতের বদলে ‘জয় বাংলা বাংলার জয়’ গানটি পরিবেশন করা হয়। বরিশাল জেলখানা ভেঙে বেরিয়ে আসেন ৪০ জন কয়েদি। এ সময় কয়েদিদের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে দুই কয়েদির মৃত্যু ঘটে। আহত হন ২০ কয়েদি ও ২৪ জন কারারক্ষী। একইভাবে কুমিল্লা কারাগার ভেঙে বেরিয়ে আসার সময় কারারক্ষীর গুলিতে তিন কয়েদি মারা যান। সংঘর্ষে আহত হন শতাধিক কয়েদি ও পুলিশ। ন্যাপ (ওয়ালী) বাংলাদেশ শাখার সভাপতি অধ্যাপক মোজাফফর আহমদ, পাঞ্জাব আওয়ামী লীগ সভাপতি এম খুরশীদ, কাউন্সিল মুসলিম লীগ প্রধান মমতাজ দৌলতানার বিশেষ দূত পীর সাইফুদ্দিন ও ঢাকায় নিযুক্ত জাতিসংঘের সহকারী আবাসিক প্রতিনিধি কে উলফ বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে তার ধানমন্ডির বাসায় পৃথক বৈঠক করেন। সংগ্রামী জনতা সেনাবাহিনীর রসদ ও নিত্যপ্রয়োজনীয় সামগ্রীর স্বাভাবিক সরবরাহের ক্ষেত্রে বাধা সৃষ্টি করে। সিলেটে রেশন নেওয়ার সময় সেনাবাহিনীর একটি কনভয়কে বাধা দেওয়া হয়। রংপুর ও যশোরেও এ ধরনের ঘটনা ঘটে। রাতে সামরিক কর্তৃপক্ষ ১১৪ নং সামরিক আদেশ জারি করে নির্দেশ দেয় যে, কেউ প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে সরকারি সম্পত্তির ক্ষতিসাধন করলে অথবা সশস্ত্র বাহিনীর রক্ষণাবেক্ষণের বা সেনাবাহিনীর গতিবিধিতে অন্তরায় সৃষ্টি করলে তাদের কার্যকলাপ আক্রমণাত্মক কাজের শামিল বলে গণ্য হবে, যা সংশ্লিষ্ট সামরিক বিধি অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য। এদিকে টাঙ্গাইলে বিন্দুবাসিনী হাইস্কুল মাঠে অনুষ্ঠিত জনসভায় ন্যাপপ্রধান মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানী বঙ্গবন্ধু ঘোষিত স্বাধীনতাসংগ্রামের প্রতি পূর্ণ সমর্থন ঘোষণা করে বলেন, শেখ মুজিবুর রহমান সাত কোটি বাঙালির নেতা, তার নির্দেশ পালন করুন। লক্ষ্য অর্জনের জন্য সবাই একসাথে ঐক্যবদ্ধ সংগ্রাম করুন। এ মুহূর্তে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে কোনো রকম বিরোধ থাকা উচিত নয়। জনগণ এখন নিজেদের অধিকার আদায়ের জন্য ঐক্যবদ্ধ হয়েছে।