ঢাকাWednesday , 10 April 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হালখাতা ও বঙ্গাব্দের ইতিকথা

Link Copied!

আমরা এখন পহেলা বৈশাখ উদযাপনের দ্বারপ্রান্তে। আশির দশকে যখন আমি পুরান ঢাকার “অরুণাচল আর্ট পাবলিসিটি” নামক প্রতিষ্ঠানটির দেখভাল করতাম, তখন বহু ধরণের কাজ আসতো প্রতিষ্ঠানটিতে। বিশেষভাবে উল্লেখ্য যে, বাবুবাজার চাউলের আড়তে রংসহ সৌন্দর্য বর্ধনের কাজ। তাদের দোকানপাটে নতুন রং লাগানোসহ বিভিন্ন আলপনা, ফরমায়েশি ছবি, লেখা ইত্যাদি কাজ করে দেয়ার অনুরোধ আসতো। যারপরনাই তখন অরুণাচল আর্ট পাবলিসিটির সকল সদস্য এ কাজটিকে ঘিরে পহেলা বৈশাখ আসার সপ্তাহখানেক আগে থেকেই আনন্দ-উল্লাসে মাতোয়ারা হয়ে বুড়িগঙ্গা নদী সংলগ্ন চাউলের আড়তগুলির প্রাক উৎসবে শরীক হতো।

ব্যবসায়ীরা তাদের প্রাণের প্রতিষ্ঠানটিকে ধুঁয়ে-মুছে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে নানা জাতের ফুল, বেলুন, রঙিন কাগজ আর ‘শুভ নববর্ষ’, ‘শুভ হালখাতা’ লেখা ব্যানার-ফেস্টুন ও লাইটিংয়ের মাধ্যমে নতুন করে সাজানোর প্রস্তুতি নিতেন। নতুন বছরের জন্য তারা লালসালু কাপড়ে মোড়ানো নতুন খাতা, ক্যালকুলেটর, বাংলা বর্ষপঞ্জি ও কলমসহ দোকানের সবকিছুই নতুন করে সংগ্রহ করতেন।

আর নববর্ষের প্রথম দিনে দোকানের সকল গ্রাহককে রঙ-বেরঙ্গের বাহারি কার্ড দ্বারা আমন্ত্রণের ব্যবস্থা করতেন। হালখাতার খাবারের আয়োজনে মিষ্টির পাশাপাশি যুক্ত করা হতো পিঠা-পুলি ও অন্যান্য লোভনীয় খাবার। যদিও বর্তমানে ক্ষীর, হালিম, আচার ও কোমল পানীয়ও পরিবেশন করা হয়।

শত বছরের ঐতিহ্য, পুরান ঢাকার হালখাতা। বাংলা নববর্ষের প্রথম দিনটিকে ঘিরে বরাবরই রঙিন সাজে মেতে ওঠে পুরান ঢাকা। মোঘল সম্রাট বৈশাখকে প্রথম মাস ধরে বাংলা বছর গণনা চালু করার পর থেকেই পহেলা বৈশাখের প্রচলন শুরু হয়। এ দিন বছরের সব দেনা-পাওনা মিটিয়ে নতুন বছরের জন্য নতুন খাতা খোলেন ব্যবসায়ীরা।

আনন্দ-আয়োজন, আপ্যায়ন আর নানা প্রকার আকর্ষণীয় উপহারসামগ্রী প্রদানের মধ্য দিয়ে লালসালু কাপড়ে মোড়ানো খাতা খোলা হয়ে থাকে। পুরান ঢাকার শাঁখারি বাজার ও তাঁতী বাজারের জুয়েলার্স, সদরঘাট ও ইসলামপুরের কাপড়ের দোকান, শ্যাম বাজারের আড়ত, চক বাজারের পাইকারি দোকান ও বাবুবাজারের চাউল ও ফলের আড়তগুলোতে হালখাতা খোলা হয়।

ইতিহাস পর্যালোচনায় হালখাতা সম্পর্কে যে বিবরণ পাওয়া যায়, তা হলোঃ তৎকালীন সময়ে বিনিময় প্রথার মাধ্যমে উৎপাদিত কৃষি পণ্য ব্যবহার হতো। লাঙল বা হালের মাধ্যমে চাষকৃত উৎপন্ন পণ্যসামগ্রী বিনিময়ের সকল হিসাব একটি খাতায় লিখে রাখা হতো। সেই খাতার নামই ছিল হালখাতা।

পুরান ঢাকার বেশ কয়েকজন ব্যবসায়ীর সঙ্গে বর্তমান হালখাতা বিষয়ে আলাপ করে জানা যায় যে, সারাবছর জুড়েই এখানে বাকিতে ব্যবসা চলে। পহেলা বৈশাখ এলেই হালখাতা খোলা হয়। নতুন হালখাতা খুলে পুরনো হিসাব বন্ধ করা হয়। এই প্রথা যুগ যুগ ধরে চলে আসছে। তবে এখন ধীরে ধীরে পহেলা বৈশাখে হালখাতা উৎসব বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। এখন নাকি ব্যবসায়ীরা ইংরেজি মাসকেই অনুসরণ করে ক্রেতাদের কাছ থেকে বাকিতে দেওয়া টাকা আদায় করে থাকে।

এর কারণ খুঁজে জানা যায়, যুগের পরিবর্তনে পাল্টে গেছে বেচাকেনা আর লেনদেনের মাধ্যম। ব্যবসায়ীদের অনেকেই এখন ডিজিটাল প্রযুক্তিতে ব্যাংকের মাধ্যমে লেনদেন করেন। হিসাব-নিকাশের জন্য প্রায় সকল প্রতিষ্ঠানেই কম্পিউটার ব্যবহার হচ্ছে। তাছাড়া মোবাইল অ্যান্ড্রয়েড ফোনের মাধ্যমেই হিসাব-নিকাশসহ যাবতীয় কাজ করা যায় ।
উল্লেখ্য, পুরান ঢাকায় শাঁখারি বাজারের ব্যবসায়ীরা পূর্বের রীতিনীতি মেনে এখনও পহেলা বৈশাখে তাদের পুরনো খাতার হিসাব মিটিয়ে নতুন করে লালসালু কাপড়ে মোড়ানো খাতা দিয়ে বেচাকেনা শুরু করেন।

পহেলা বৈশাখের সংক্ষিপ্ত ইতিকথাঃ—

পহেলা বৈশাখ, বৈশাখী মেলা, চৈত্র সংক্রান্তি, হালখাতা, বাংলা সন, নতুন জামা ও বাহারী ফুলে সজ্জিত হয়ে বয়স ভেদে সালোয়ার-কামিজ ও শাড়ী পড়ে ঘুরতে যাওয়া, ‘এসো হে বৈশাখ, এসো এসো’ গানটিসহ “মঙ্গল শোভাযাত্রা” এ সব কিছুই ছিলো না আগে।

আজ থেকে প্রায় ৫০০ বছর আগের কথা। তখন রাজ্য চলতো প্রজাদের দেয়া খাজনায়। একসময় সম্রাট দেখলেন রাজ্যে প্রজাদের খাজনা দেয়া বন্ধ হয়ে যাচ্ছে। এমন অবস্থায় কি করা যেতে পারে। খাজনা আদায় নিয়ে সম্রাট মহা চিন্তায় পড়ে গেলেন। রাজ্যের সভাসদদের ডাকলেন। এর সু্ষ্ঠু সমাধান বিষয়ে পরামর্শ চাইলেন। তাদের মধ্যে বুদ্ধিমান একজন বিজ্ঞানী, জ্যোতির্বিদ ও চিন্তাবিদ ফতেহউল্লাহ সিরাজি বললেন- আমাদের দেশে সবকিছু চলে হিজরি সালের তারিখ অনুসরণ করে। চাঁদের উপর নির্ভরশীল হয়ে হিজরি সাল গণনা করা হয়।

চাঁদের হিসাবে চন্দ্র বছর হয় ৩৫৪ দিনে। আর পৃথিবী সূর্যের চারিদিকে ঘুুরে আসতে সময় লাগে ৩৬৫ দিন। এজন্য প্রতি বছরেই ১১/১২ দিনের পার্থক্য হয়ে যায়। কয়েক বছর পর, এ পার্থক্যই অনেক দিনের পার্থক্য হয়ে বছর এগিয়ে আসে। তাই খাজনা দেয়ার তারিখও এগিয়ে আসে। যেহেতু দেশ কৃষিনির্ভর, তাই কৃষকদের ফসলতো আর এগিয়ে আসে না। তাই খাজনা আদায় এবং প্রদানের মধ্যে প্রচুর বিপত্তির সৃষ্টি হওয়ায় সম্রাট জ্যোতির্বিদদের কাছে এ থেকে পরিত্রাণ পাওয়ার উপায় জানতে চাইলেন।

সম্রাটের এ প্রশ্নের জবাবে জ্যোতির্বিদ ফতেহউল্লাহ সিরাজি বললেন, আমরা নতুন একটি বর্ষপঞ্জি তৈরি করার মাধ্যমে এর সমাধান করতে পারি। এতে চাঁদ ও সূর্যের ব্যবহার একই সাথে হবে। সূর্যের চারিদিকে একবার ঘুরে আসতে পৃথিবীর সময় লাগে ৩৬৫ দিন। এই ৩৬৫ দিনকে যদি ১২ মাস দিয়ে ভাগ করি, তাহলেই ফসল ফলার তারিখ ও খাজনার তারিখ আর পরিবর্তন হবে না। তখন সম্রাট বললেন তবে তাই হোক।

এভাবেই বেশ কয়েকজন জ্যোতির্বিদের অক্লান্ত পরিশ্রমে তৈরী হলো নতুন বর্ষপঞ্জি। এর নাম দেয়া হলো তারিখ-ই-ইলাহী। উল্লেখ্য, সর্বপ্রথমে এই বাংলা সনের নামকরণ করা হয়েছিলো ‘ফসলি সন’ নামে। পরবর্তীতে ধীরে ধীরে কালের পরিবর্তনে ফসলি সন’ই বঙ্গাব্দ বা বাংলা বর্ষ নামেই পরিচিতি পায়। যার বিচক্ষণতায় আমরা পেলাম এ নতুন বর্ষপঞ্জি, তিনি হলেন সম্রাট হুমায়ুন পুত্র ‘সম্রাট আকবর’।

যদিও ১৫৮৪ খ্রিস্টাব্দের ১০/১১ই মার্চ থেকেই এই নতুন প্রবর্তিত বাংলা সনের গণনা শুরু হয়, কিন্তু এই গণনা পদ্ধতি কার্যত চালু করা হয় সম্রাট আকবরের সিংহাসন আরোহণের সময় (৫ই নভেম্বর, ১৫৫৬) থেকেই।
নতুন বর্ষপঞ্জির কথা ঢাক ঢোল পিটিয়ে প্রজাদের জানানো হয়। এখন থেকে প্রজারা নতুন বছরের প্রথমদিন নতুন জামা কাপড় পড়ে খাজনা দিতে আসবে। খাজনা দেয়ার পর সম্রাট পরিবেশিত বিভিন্ন পদের মিষ্টান্ন খেয়ে আনন্দ স্ফূর্তি করে নিজ নিজ বাড়ি ফিরে যাবে।

বর্তমানে পহেলা বৈশাখকে বরণ করার ধরণ পাল্টেছে। এখনকার প্রজন্ম পহেলা বৈশাখের প্রভাতে উদীয়মান সূর্যকে রবি ঠাকুরের ‘এসো হে বৈশাখ, এসো এসো’ গানের মাধ্যমে স্বাগত জানিয়ে শুরু করে বাংলা নববর্ষের জাঁকজমকপূর্ণ উৎসবটি। ঢাকার পহেলা বৈশাখের আরেকটি অন্যতম আকর্ষণীয় বিষয়ের নাম “মঙ্গল শোভাযাত্রা”। ১৯৮৯ সাল থেকে প্রতি বছরই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের উদ্যোগে পহেলা বৈশাখ সকালে এই শোভাযাত্রাটি বের হয়।

লেখক —
আর্টিস্ট (অবসরপ্রাপ্ত)
বিআরডিবি, ঢাকা-১২১৫