ঢাকাWednesday , 10 January 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হারিয়ে যাচ্ছে হবিগঞ্জের আখের গুড় : নদী চরের মাটি ও বালুখেকোদের দায়ী করলেন আখ চাষিরা

Link Copied!

কালের বিবর্তনে হারিয়ে যাচ্ছে হবিগঞ্জের আখের গুড় (লালি গুড়)। এক সময় আখের গুড়ের সুনাম ছিল দেশের সর্বত্র। কিন্তু বর্তমানে সে সুনাম আর নেই। হবিগঞ্জের খোয়াই নদীর তীরে উৎপাদিত বিশেষ ধরনের আখের রস থেকে ক্রমাগত আগুনে জ্বাল দেয়ার পর আস্তে আস্তে তৈরি হয় আঠালো এ গুড়।

দিনকে দিন আখের চাষ হ্রাস পাওয়া ও খাদ্য তালিকা থেকে গুড়ের চাহিদা কমে যাওয়ায় এখন হবিগঞ্জের সর্বত্র আখের গুড় তৈরি কমে গেছে। ফলে এ পেশার সঙ্গে জড়িত কয়েকশ’ ব্যক্তি এখন বেকার হয়ে পড়েছে। কেউ কেউ ভিন্ন পেশায় চলে গেছে। তবে এর জন্য নদীর নাব্যতা ও বালুখেকোদের দায়ী করেছেন নদী চরের আখ চাষীরা।

দক্ষিণ চরহামুয়া এলাকার আখ চাষি সবুজ মিয়া বলেন, ‘আগে নদীর গভীরতা ছিল না বেশী। যে কারনে নদীর চরে জোয়ারের পানি আসত এবং এর সাথে আসা উর্ভর পলি মাটিতে ভাল ফসল হতো আখের।

এখন নদী গর্ভ থেকে মাত্রারিক্ত বালু ও মাটি উত্তোলনের ফলে চরের ফসলী জমি নদীর বুকে ভেঙ্গে পড়ছে। নদীগর্ভ অতিরিক্ত খনন করার ফলে জোয়ারের পানি আর উপরে আসে না। ফসলও ভাল হয় না।

জানা যায়, হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লস্করপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ চরহামুয়া, হামুয়া চুুনারুঘাট উপজেলার রাজার বাজার, খেতামারা ও মুখিপুর গ্রামের কয়েকটি অংশে তৈরি করা হয় মুখরোচক এই ‘লালি’ নামে ডাকা হয়।

শীতকালে চালের গুড়া দিয়ে তৈরি যে কোনো ধরনের পিঠার সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়া যায় এই লালি। গতকাল মঙ্গলবার ভোর সকালে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লস্করপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ চরহামুয়া এলাকার খোয়াই নদীর চর এলাকায় গেলে চোখে পড়ে আখের রস থেকে গুড় (লালি) তৈরির দেশীয় পদ্ধতি।

দেখা যায়, নদীর চরে খালি জায়গায় লোহার ঘানি বসিয়ে তৈরি করা হচ্ছে আখের রস। উৎপাদন করার পক্রিয়ায় ঘানী টানতে ব্যবহার করা হচ্ছে মহিষ। তবে অনেকাংশে আবার লেগেছে আধুনিকতার ছোঁয়া। মহিষের পরিবর্তে ব্যবহার হচ্ছে ডিজেল চালিত ইঞ্জিন।

প্রথমে উৎপাদিত আখ সংগ্রহ করে তা থেকে বিশেষ প্রক্রিয়ায় রস বের করে তা একটি পাত্রে ছেঁকে নেওয়া হয়। পরে তা চুল্লিতে জ্বাল দেওয়ার মাধ্যমে রস থেকে জলীয় অংশ বাষ্প হয়ে যায়। ক্রমাগতও জ্বাল দেওয়ার ফলে ধীরে ধীরে রসের রঙ লালচে হয় এবং রস এ টান টান ভাব দেখা যায়।

এরপর উত্তপ্ত রস শীতল করার মাধ্যমে গুড় পাওয়া যায়। এই রস কে গুড় না বানিয়ে চিনিও বানানো যায় তবে গুড় চিনির চেয়ে মিষ্টি কম হলেও পুষ্টিগুণে এগিয়ে থাকে। এইটা হচ্ছে গুড় বানানোর সনাতন পদ্ধতি।

একটি বিশেষ গবেষণায় দেখা গেছে, গুড়ে প্রচুর গুণাবলি আছে যা স্বাস্থ্য উপকারিতায় ভরপুর। গুড়ে ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, জিঙ্ক এবং ফসফরাসের মত উপাদান আছে যা পুষ্টিগুণের নিশ্চয়তা দেয়।

গুড়ে একটি বিষনাশক প্রভাব আছে যা শরীরের বিষক্রিয়া দূর করে এবং রক্ত শোধন করে থাকে। গুড়ে ভালো পরিমানে মাঙ্গানীজ থাকে। এ মাঙ্গানীজ মস্তিষ্কের ক্রিয়া উন্নত করতে সাহায্য করে। এ ছাড়াও গুড় ওজন কমানো ও ফুস্ফুসের কার্যক্ষমতা উন্নতি করে।