ঢাকাবৃহস্পতিবার , ৩ নভেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হাজার চেষ্টা করেও সত্যকে কোনো দিন আড়াল করা যায় না-জি কে গউছ

বিশেষ প্রতিনিধি
নভেম্বর ৩, ২০২২ ৭:৪৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আমি আলহাজ্ব জি কে গউছ ২০০৪ সালে ২ লাখ ১ হাজার ৫৬৩ টাকা নগদ এবং প্রায় ৩ কোটি টাকার বকেয়া বিদ্যুৎ বিল ও ঠিকাদারের প্রায় ৫০ লাখ টাকা পাওনা মাথায় নিয়ে তৎকালীন চেয়ারম্যান শ্রদ্ধেয় শহীদ উদ্দিন চৌধুরীর নিকট থেকে হবিগঞ্জ পৌরসভার দায়িত্ব গ্রহন করেছিলাম। আমি যে রাজনৈতিক দলের কর্মী সেই দলটি আমি পৌর চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার মাত্র ২ বছর রাষ্ট্রক্ষমতায় ছিল।

এর মধ্যেই হবিগঞ্জ বাস টার্মিনাল, নছরতপুর থেকে কামড়াপুর পর্যন্ত রেলটেকের উপর বাইপাস সড়ক নির্মাণ, খোয়াই নদীর উপর নির্মিত কামড়াপুর এম এ রব ব্রীজ, শাহ এএমএস কিবরিয়া ব্রীজ, মাছুলিয়ায় এম সাইফুর রহমান ব্রীজ, এম সাইফুর রহমান টাউন হল, কিবরিয়া ব্রীজের (দাড়িহাটা) গোড়া থেকে গরুর বাজার পর্যন্ত রাস্তা প্রশস্তকরণ, পৌদ্দার বাড়ী থেকে পুরাতন হাসপাতাল পর্যন্ত রাস্তা প্রশস্তকরণ, পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের সামন থেকে জেলা পরিষদ প্রশাসক কার্যলয় পর্যন্ত রোড ডিভাইডার স্থাপন, পানির ফোয়াড়া নির্মাণ, বেবীস্যান্ডে ২য় পানির ট্রিটম্যান্ট প্লান্ট নির্মাণ, শহরের দুই প্রান্থে দুর্গাপুজায় প্রতিমা বিষর্জনের জন্য খোয়াই নদীতে ২টি ঘাটলা নির্মাণ, মাছুলিয়ায় নতুন করে পৌরসভার অর্থায়নে শশ্মানঘাট নির্মাণ, শহরের অসংখ্য রাস্তা প্রশস্তকরণ, নতুন নতুন ড্রেইন নির্মাণ সহ শহরের অস্যখ্য মসজিদ, মন্দির ও ঈদগায়ের উন্নয়নের মাধ্যমে পৌরবাসীর হৃদয় জয় করেছিলাম।

১/১১ সরকারের সময় হবিগঞ্জের তথাকথিত তৎকালীন এক সেনা কর্মকর্তার সরাসরি প্রত্যক্ষ প্রস্তক্ষেপে আমার বিরুদ্ধে আনিত কাল্পনিক অভিযোগেরভিত্তিতে ৫৯১ দিন বাংলাদেশের বিভিন্ন কারাগারে আমি বন্দি থাকার কারণে আমার ও পৌর পরিষদের চেষ্টায় ও প্রচেষ্টায় এবং তৎকালিন অর্থমন্ত্রী মরহুম এম সাইফুর রহমান সাহেবের সহযোগীতায় ইউজিআইআইপি-১ প্রকল্পের ২১ কোটি টাকা তৎকালিন দায়িত্বপ্রাপ্ত পৌর পরিষদ খরচ করতে না পারায় প্রকল্প ওই টাকা হবিগঞ্জ পৌরসভা থেকে ফেরত নিয়ে যায়। এতে হবিগঞ্জ পৌরবাসী উন্নয়ন থেকে বঞ্জিত হন।

আমি কারাগার থেকে আইনী লড়াই করে জামিনে মুক্তি পেয়ে পুনরায় পৌরসভার মেয়র হিসেবে দায়িত্ব গ্রহনের পর আবার পৌরসভাকে ঢেলে সাজানোর জন্য নতুন উদ্যমে নিরলস প্রচেষ্টা শুরু করি। বাংলাদেশের ৩২০টি
পৌরসভার মধ্যে হবিগঞ্জ পৌরসভাসহ ৩১টি পৌরসভা যোগ্যতার ভিত্তিতে সরকারী দলের কোনো নেতার মৌখিক বা লিখিত সহযোগীতা ছাড়াই ৭৫ কোটি টাকা বরাদ্ধ পাওয়ার সক্ষমতা অর্জন করি।

যা গত উপ-নির্বাচনে নির্বাচিত মেয়র ও বর্তমান মেয়র আমার ও তৎকালিন পৌর পরিষদ এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চেষ্টায় আনিত এই অর্থের কাজ এখনো শেষ করতে পারেননি।

শহরের শ্বশানঘাট নামক স্থানে নির্মিত প্রায় ১০ কোটি টাকা ব্যয়ে পানির ৩য় ট্রিটম্যান্ট প্লান্টটির কাজ আমি শুরু করে এসেছিলাম। যা আজ পর্যন্ত নির্মাণ কাজ শেষ করে পৌরবাসীকে বিশুদ্ধ পানির সুবিধা দিতে পারেনি।

২০১৪ সালে হবিগঞ্জ শহর সংলগ্ন আতুকুড়া নামক স্থানে সরকারী ১নং খতিয়ানের ২২০ শতক জায়গা হবিগঞ্জ পৌরসভার নিজস্ব আয় থেকে ২০ লাখ টাকা (রেজিষ্ট্রি সহ) দিয়ে ক্রয় করেছিলাম ড্রাম্পিং স্ট্যাশন নির্মাণের জন।

কিন্তু সরকারী দলের অসহযোগীতার কারণে ইউজিআইআইপি-৩ প্রকল্পের পর্যাপ্ত বরাদ্ধ থাকার পরও রিসাইক্লিনিং ড্রাম্পিং স্ট্যাশন নির্মাণ করতে পারি নাই। যা পৌরবাসী অবগত আছেন।

২০১১ সালে শহরের শ্মশানঘাট রোডস্থ হবিগঞ্জ ল-কলেজ ও আশিয়াম ষ্টীল মিলের সামনে পৌরসভার নিজস্ব ভূমিতে দরিদ্র হকারদেরকে তৎকালিন জেলা প্রশাসকের সহযোগীতায় পুনর্বাসনের উদ্যোগ নেই।

কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্য সরকারী দলের প্রভাবশালী ব্যক্তির আত্মীয়ের সরাসরি বাঁধা ও তার চেষ্টায় উল্লেখিত স্থানে হাইকোর্টের নিষেধাজ্ঞার কারনে হকারদের পুনর্বাসন করা সম্ভব হয়নি।

গতকাল ০২ নভেম্বর হবিগঞ্জ থেকে প্রকাশিত দৈনিক খোয়াই, দৈনিক প্রতিদিনের বাণী, দৈনিক হবিগঞ্জের জনতার এক্সপ্রেস ও দৈনিক হবিগঞ্জের মুখ পত্রিকায় প্রকাশিত পৌর পরিষদের বক্তব্যে আমাকে জড়িয়ে পৌরবাসীকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করা হয়েছে। যা মোটেও সত্য নয়।

বর্তমান পৌর পরিষদ যে জায়গায় হকার মার্কেট নির্মাণ করেছেন, সেই জায়গা আামার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত তৎকালিন পৌর পরিষদের সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া জায়গা নয়। বর্তমান পৌর পরিষদকে অনুরোধ করবো, সত্যকে মিথ্যা দিয়ে আড়াল করার চেষ্টা না করে সত্য বলার চেষ্টা করুন। পৌরবাসী অনেক সচেতন, শিক্ষিত ও জ্ঞানের অধিকারী। মিথ্যা তথ্য দিয়ে পৌরবাসীকে বিভ্রান্ত করা যাবে না।

আমার দল রাষ্ট্রক্ষমতায় না থাকার কারণে হবিগঞ্জ পৌরসভায় যে কাজগুলো আমার পক্ষে করা সম্ভব হয়নি, সেই কাজগুলো আপনারা করে প্রমাণ করুন, আমি যা পারিনি আপনারা তা পেরেছেন। আমার দোয়া ও সহযোগীতা সব সময় আপনাদের সঙ্গে থাকবে।

যদি আল্লাহর মেহেরবানীতে আমি বড় পরিসরে কোনো দিন কাজ করার সুযোগ পাই তাহলে বাংলাদেশের অন্য ৫০টি পৌরসভায় যে বরাদ্ধ পাবে সেই পরিমাণ বরাদ্ধ হবিগঞ্জ পৌরসভায় নাগরিক সুবিধা বৃদ্ধির জন্য নিয়ে আসবো, ইনশাআল্লাহ।

আল্লাহ যেন আমাকে সেই তৌফিক দান করেন। পৌরবাসী অবগত আছেন আমি যেন পৌরবাসীর সেবা ঠিকমত করতে না পারি সে জন্য পৌরসভার সচিব, উপ-সহকারী প্রকৌশলী ও মেয়রের ব্যক্তিগত পি,এ- কে নজীরবিহীনভাবে বাংলাদেশের বিভিন্ন পৌরসভায় বদলি করে আমাকে পঙ্গু করার চেষ্টা করা হয়েছিল।

কিন্তু মহান আল্লাহর অশেষ মেহেরবানীতে এবং পৌরবাসীর দোয়া ও আর্শিবাদে আমি থেমে থাকিনি। আমি যতদিন পৌরসভায় মেয়রের দায়িত্ব পালন করেছি সকল ধর্ম, বর্ণ ও দল মতের উর্ধ্বে উঠে মানুষের সেবা করার চেষ্টা করেছি। যার প্রতিদান পৌরবাসী বারবার আমাকে দিয়েছেন।

১/১১ সরকার এবং বর্তমান সরকার আমার বিরুদ্ধে অনেক কাল্পনিক মিথ্যা মামলা দিলেও পৌরসভার কোনো অনিয়ম দূর্নীতির অভিযোগে কোনো মামলা দিতে পারেনি। আমি দল ও ধর্মের উর্ধ্বে উঠে যেভাবে টানা ৩ বার পৌরবাসীর সেবা করেছি, ভবিষ্যতেও তা অব্যাহত থাকবে, ইনশাআল্লাহ। সবাই ভাল থাকুন, সুস্থ্য থাকুন, আমি সকলের দোয়া কামনা করছি।

Developed By The IT-Zone