ঢাকারবিবার , ৯ মে ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জ-৩ আসন : রাজনৈতিক মেরুকরণে নতুন রুপ নিচ্ছে

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
মে ৯, ২০২১ ১২:২২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

বিশেষ প্রতিনিধি :  বাংলাদেশের স্বাধীনতার ইতিহাস থেকে বর্তমান দেশ ও জাতির কল্যানে অগ্রণী ভূমিকায় নেতৃত্বের দাবীদার বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।

১৯৭৫ এর নির্মম হত্যাকাণ্ডের পর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে চিরতরে নিশ্চিহ্ন করার মিশনে নামে ঘাতকের দল মীরজাফর মোস্তাকরা।

বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা পরিবার পরিজন হারিয়েও পিতার স্বপ্ন বাস্তবায়নের লড়াইয়ে বিচ্ছিন্ন আওয়ামী লীগ কে ঐক্যবদ্ধ করে ক্ষমতায় আসেন।

ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগ দেশ ও জাতির কল্যানে কাজ করে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এখন বিশ্বে রোল মডেল।

আওয়ামী লীগ সরকারের উন্নয়নে বিশ্ব হতবাক, বিশ্বকে নেতৃত্ব দেওয়ার ক্ষমতা অর্জনকারী দল আওয়ামী লীগ একটানা তৃতীয় বার ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত।

দেশরত্ন শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ যখন দেশে উন্নয়নের জোয়ার সৃষ্টি করছে তখন আওয়ামী লীগ নামধারী আওয়ামী লীগের উন্নয়নকে প্রশ্নবিদ্ধ করছেন ক্ষমতার অপব্যবহার করে।

হবিগঞ্জ -৩ আসন এর সংসদ সদস্য আবু জাহির এর অন্যতম উদাহরণ। একজন নির্বাচিত সংসদ সদস্য নানাবিধ কুকর্মের সাথে জড়িত, আধিপত্য বিস্তারে গড়ে তুলেছেন সন্ত্রাস বাহিনী, যাদের দিয়ে সাধারণ মানুষকে ভয় ভীতি দেখিয়ে নিজের স্বার্থ সিদ্ধিতে মগ্ন।

একজন সংসদ সদস্যের মধ্যে যদি স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা না থাকে তবে তাকে জনপ্রতিনিধি মানবে কেন জনগণ।

 

 

ছবি : এমপি আবু জাহির ও সুশান্ত দাস গুপ্ত

গত এক বছরে হবিগঞ্জ -৩ এর সংসদ সদস্য আবু জাহির এর আমলনামার অনেক তথ্য জনসম্মুখে প্রকাশ করেছে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকা। একজন সংসদ সদস্যের অপকর্ম তুলে ধরতে গিয়ে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদক সহ অনেক সাংবাদিক নিরপরাধ হওয়া সত্বেও সত্য প্রকাশ করায় আবু জাহির এমপি’র নির্দেশে মিথ্যে বানোয়াট ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলায় কারাভোগ করতে হয়েছে যা খুবই দুঃখজনক। জেল জুলুম উপেক্ষা করে সত্যের লড়াইয়ে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদক সুশান্ত দাস গুপ্ত ও দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সাংবাদিক টিম সত্য প্রকাশ থেকে পিছুপা হয়নি। সংসদ সদস্য আবু জাহির অনেক ভাবে চেষ্টা করেছেন অর্থের লোভ দেখিয়ে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকা ও সত্যের সৈনিক সুশান্ত দাস গুপ্ত কে থামানো যায় কিনা!  কিন্তু সংসদ সদস্যের সকল অপচেষ্টা সুশান্ত দাস গুপ্তের সত্যের আলোকবর্তিকার কাছে পরাজিত।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় হবিগঞ্জের সংসদ সদস্য আবু জাহির এমপি সহ বড় বড় রাঘব বোয়ালদের আধিপত্য বিস্তার, সন্ত্রাসী কর্মকান্ড ও সরকারি অর্থায়নের বিভিন্ন বাজেটের অর্থ আত্মসাৎ এর  মতো অপকর্মের তথ্য প্রকাশ করায় আবু জাহির এমপি সহ রাঘববোয়ালদের আঁতে ঘা লাগে।

ফলে আবু জাহির এমপি সহ রাঘববোয়ালরা নড়েচড়ে বসে এবং সত্য প্রকাশে নির্ভিক দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকাটির বিরুদ্ধে হবিগঞ্জের অন্যান্য মিডিয়াকে উস্কে দেয় । কিন্তু তাতেও কোন ফায়দা নিতে পারেনা, কারণ দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকাটি এই অল্প সময়ের মধ্যে সাধারণ মানুষের অন্তরে সত্যের বাণী হিসাবে জায়গা করে নিয়েছে।  এতো কম সময়ের মধ্যে একটি পত্রিকা এতোটা জনপ্রিয় ও পাঠক প্রিয় হওয়ায় অন্যান্য পত্রিকার জনপ্রিয়তা মুখ থুবড়ে পড়ে, ফলশ্রুতিতে হবিগঞ্জের কিছু স্থানীয় পত্রিকার সম্পাদক, সাংবাদিকও তখন যোগ দেয় আবু জাহির এমপি সহ রাঘববোয়ালদের দলে। দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকা ও সম্পাদক সুশান্ত দাস গুপ্তের বিরুদ্ধে মিথ্যে বানোয়াট তথ্য প্রকাশ করে অপপ্রচার চালায় তারা কিন্তু তাদের অপপ্রচার ভিত্তিহীন তা সাধারণ মানুষ বুঝতে পারে।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকা সত্যের প্রতীক হিসাবে সংবাদ সংগ্রহ ও প্রকাশে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ সাধারণ মানুষ তা জেনে গেছে। ফলে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকা সৃষ্টির পর থেকে আজ অব্দি কোন প্রকাশিত সংবাদ মিথ্যে প্রমাণ করতে পারেনি আবু জাহির এমপি ও তার দলবল।

সত্যের লড়াইয়ে পরাজিত হয়ে আবু জাহির এমপি ও তার সন্ত্রাসী বাহিনীর যোগসাজশে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদক সুশান্ত দাস গুপ্তকে প্রাণে মেরে ফেলার ষড়যন্ত্র সহ পত্রিকা বন্ধের দাবীতে একের পর এক মানববন্ধনে লিপ্ত হয়। এতো কিছুর পরেও যখন সন্ত্রাস বাহিনীরা সুশান্ত দাস গুপ্ত কে পরাজিত করতে না পারে তখন মিথ্যে অপবাদ প্রচার শুরু করে, সুশান্ত দাস গুপ্তকে একজন মাদক ব্যবসায়ী ও জামাত শিবিরের এজেন্ডা হিসেবে আখ্যা দিতেও পিছুপা হয়নি তারা, ফলশ্রুতিতে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সাংবাদিককে প্রশাসন দিয়ে মিথ্যে মাদক পাচার মামলায় অভিযুক্ত করে কারাগারে প্রেরণ করে তারা।

আবু জাহির এমপি সম্প্রতি একটি দু’শ বছরের পুরনো মন্দিরের জায়গায় বিএনপি থেকে আসা নব্য আওয়ামিলীগকে ভবন নির্মাণে ভিত্তি প্রস্তর উদ্বোধন করে দেন ।  মন্দিরের জায়গায় প্রাসাদ বানানোর খবর দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় প্রকাশিত হওয়ায় জনমনে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। যদিও সংসদ সদস্যের দাপট ও সন্ত্রাসী বাহিনীর ভয়ে সাধারণ মানুষ মুখ খুলে কিছু বলতে পারেনা তবুও এমনকান্ডে অনেকেই সমালোচনা করেছেন যা আবু জাহির এমপি সহ্য করতে না পেরে গত ১৯ এপ্রিল সন্ত্রাসী বাহিনী দিয়ে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকা অফিস ও সম্পাদক সুশান্ত দাস গুপ্তের শশুড়ালয়ে হামলা ভাংচুর ও লুটপাটের তান্ডব চালিয়েছে। এই হামলার নেতৃত্ব দিয়েছেন হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী যুবলীগের সভাপতি ও হবিগঞ্জ পৌর মেয়র  আতাউর রহমান সেলিম, প্রকাশ্যে দিবালোকে সন্ত্রাসী হামলা লুটপাটের তান্ডবের ভয়াল ভিডিও প্রদর্শনী সোস্যাল মিডিয়ায় সয়লাব। সারাদেশের মানুষ এমন ন্যাক্কারজনক হামলা ও লুটপাটে তীব্র নিন্দা জানিয়েছে।

এমন ন্যাক্কারজনক কর্মকান্ডে হবিগঞ্জের সাধারণ মানুষ যতটা ভীতসন্ত্রস্ত ততোটাই ভাবছে আগামীর নেতৃত্ব নির্বাচন নিয়ে।

হবিগঞ্জের মানুষের মাঝে সুশান্ত দাশ গুপ্ত এখন ফাটাকেস্ট হিসাবে জায়গা পেয়েছে। সকল অন্যায় অবিচার ও দুর্নীতির বিরুদ্ধে হবিগঞ্জের সাধারণ মানুষের মুখে এখন একটি নামই উচ্চারিত হচ্ছে..  ফাটাকেস্ট সুশান্ত দাস গুপ্ত। সাধরণ মানুষের মাঝে বিরাজমান বর্তমান সময়ের হবিগঞ্জের আলোচিত ফাটাকেস্ট সুশান্ত দাশ গুপ্তকে হবিগঞ্জের মানুষ হবিগঞ্জের রাজনীতিতে এক নতুন মেরুকরণ রুপে দেখছেন। বর্তমান সংসদ সদস্য আবু জাহির এমপি প্রিয় সিংহভাগ সাধারণ মানুষের মনেও শান্তির আভা ছড়িয়েছে সত্যের সৈনিক, বঙ্গবন্ধু আর্দশের সাবেক ত্যাগী ছাত্রলীগ নেতা ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ কেন্দ্রীয় উপকমিটির সাবেক সদস্য, দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সফল সম্পাদক ও প্রকাশক -প্রকৌশলী সুশান্ত দাস গুপ্ত।

হবিগঞ্জের সুশীল সমাজ ও সাধারণ মানুষের অভিপ্রায় থেকে জানা যায়, হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের রাজনীতি ও আগামী নেতৃত্ব নির্বাচনে, দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদক ও প্রকাশক, প্রকৌশলী সুশান্ত দাস গুপ্ত হতে পারে এক নতুন মেরুকরণ! মেরুকরণের নব্য রুপ…  ফাটাকেস্ট!!

লেখক , ব্লগার – এস আই সাগর 

Developed By The IT-Zone