ঢাকাSunday , 31 December 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জ-৩ আসনে নৌকা ‘রিল্যাক্সে : বাকীদের দৌড়াচ্ছে ঈগল

তারেক হাবিব
December 31, 2023 9:53 am
Link Copied!

ভোট গ্রহণের দিন যত এগিয়ে আসছে ততোই প্রচার-প্রচারণার ব্যস্ত সময় পার করে মাঠ সরগরম করে তুলছেন প্রার্থীরা। তবে নৌকার প্রার্থীদের তুলনায় ভোটারদের দরজায় কড়া নাড়ছেন বেশী মনোনয়ন বঞ্চিত ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।

এদিকে, সমতুল্য প্রতিদ্বন্দ্বী না থাকায় একটু রিল্যাক্সেই আছেন হবিগঞ্জ-৩ আসনের পরপর ৩ বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট মোঃ আবু জাহির। তিনি ২০০৮ সালে মহাজোটের প্রার্থী হিসেবে হবিগঞ্জ-৩ আসন থেকে প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

এরপর তিনি একই আসন থেকে পরপর তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অ্যাডভোকেট আবু জাহিরের তেমন কোন হেভিওয়েট প্রতিদ্বন্দী প্রার্থী নেই বললেই চলে। দলীয় সিদ্ধান্তের প্রতি সম্মান দেখিয়ে মনোনয়ন বঞ্চিতরা নির্বাচন থেকে সরে গেলেও তেমন শক্তিশালী না জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী আব্দুল মুমিন চৌধুরী বুলবুল।

এ ছাড়াও বিএনএম, বাংলাদেশ তরিকত ফেডারেশন, ন্যাশনাল পিপলস পার্টি, জাকের পার্টি, ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ, বাংলাদেশ কংগ্রেস, মুক্তিজোট (জেডিপি) এগুলো নামমাত্র প্রতিদ্বন্দ্বী বললেই চলে।

দ্বাদশ সংসদ নির্বাচন সুষ্ঠু, নিরপেক্ষ ও অংশগ্রহণমূলক হলে জাতীয় সংসদের ২৪১তম সংসদীয় আসন (হবিগঞ্জ-৩) আসনটিতে আবারও আওয়ামী লীগই বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বলে জানা গেছে।

অপরদিকে, প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলীর শক্ত প্রতিদ্বন্দ্বী হয়ে উঠেছেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। ৫ লাখ ১২ হাজার ৩০৮ জন ভোটারের এই আসনে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৮ জন প্রার্থী।

এদের মধ্যে বর্তমান সংসদ সদস্য বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মাহবুব আলী ও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে আলোচিত ব্যক্তিত্ব ব্যারিস্টার সাইদুল হক সুমনের মধ্যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

হবিগঞ্জ-৪ আসনে ঈগল প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্রভাবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ব্যারিস্টার সাইদুল হক সুমন। তিনি এই আসনের বিভন্ন স্থানে স্থানে গিয়ে গণসংযোগ করছেন। পাচ্ছেন লোকজনের ভালোবাসা। আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের মাহবুব আলীও নেই পিছিয়ে।

সংসদীয় এই আসনে ফাঁড়িসহ প্রায় ২৮টি চা বাগান রয়েছে। চা বাগানের শ্রমিকরা প্রথম থেকেই নির্বাচনে নৌকাকে ভোট দিয়ে আসছেন। এবার অনেক শ্রমিক ব্যারিস্টার সাইদুল হক সুমনকে ভোট দেওয়ার কথা জানিয়েছেন। কারণ হিসেবে তারা উল্লেখ করেন, ব্যারিস্টার সুমনকে তারা সুখে-দুঃখে পাশে পান। এসব চা বাগানের লাখের কাছাকাছি ভোটারদের ওপর নির্বাচনের জয় পরাজয় নির্ভর করছে।

আওয়ামী লীগ প্রার্থী অ্যাডভোকেট মোঃ মাহবুব আলী বলেন, তৃণমূল লোকেরা আমাকে ভালোবাসেন। এ কারণে তারা আমাকে পরপর দুইবার এমপি (সংসদ সদস্য) নির্বাচিত করেছে। এবারও নৌকার পক্ষে গণজোয়ার তৈরি হয়েছে। স্থানে স্থানে বরাদ্দ দিয়ে উন্নয়ন করেছি। এজন্য লোকজন আবারও আমাকে বিপুল ভোটে নির্বাচিত করবেন।

ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন বলেন, আমার এলাকার মানুষকে দুর্নীতিবাজদের থেকে মুক্ত করতে চাই। যারা পরিবেশ নষ্ট করে তাদের থেকে মুক্ত করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে চাই। তিনি আরও বলেন, ‘আমি হাজার হাজার গাছ লাগিয়েছি। আমি স্বতন্ত্র ঠিকই। কিন্তু আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক।

অনুমতি নিয়ে স্বতন্ত্র নির্বাচন করছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একজনকে নৌকার নমিনেশন দিয়েছেন। আমাকে দিয়েছেন স্বতন্ত্র নির্বাচন করার পারমিশন। আমাকে একেবারেই স্বতন্ত্র বলা হয় সেটি বলা ঠিক হবে না।

জেলার নবীগঞ্জ ও বাহুবল উপজেলা নিয়ে গঠিত হবিগঞ্জ-১ আসন। এ আসনে ভোটার সংখ্যা ৪ লাখ ৩১ হাজার ৪২২ জন। প্রার্থী ছিলেন ৬ জন। আসন ভাগাভাগির ফলে নৌকার প্রার্থী জেলা পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান ডা. মুশফিক হুসেন চৌধুরীকে প্রার্থীতা প্রত্যাহার করতে হয়েছে। বর্তমানে এ আসনে ৫জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এরা হলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী সাবেক এমপি অ্যাডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী (ঈগল), জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থী সাবেক এমপি এমএ মুনিম চৌধুরী বাবু (লাঙ্গল), স্বতন্ত্র প্রার্থী গাজী মোহাম্মদ শাহেদ (ট্রাক), ইসলামি ঐক্যজোট বাংলাদেশের মোস্তাক আহমেদ ফারহানী (মিনার), কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের অ্যাডভোকেট মোঃ নুরুল হক (গামছা)।

এরমধ্যে নৌকার এ আসনে মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত মহিলা আসনের সাবেক এমপি স্বতন্ত্র প্রার্থী অ্যাডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী। তিনি ঈগল পাখি প্রতীক নিয়ে স্থানে স্থানে গিয়ে ভোট ও দোয়া চাইছেন।

অপরদিকে লাঙ্গল প্রতীক নিয়ে সাবেক এমপি এমএ মুনিম চৌধুরী বাবুও ব্যাপক প্রচারণা চালাচ্ছেন। উভয় উপজেলায় আওয়ামী লীগ ও জাপা মিলে যৌথভাবে নেতাকর্মীরা লাঙ্গলের পক্ষে ভোট চাইছেন। কেয়া চৌধুরীর পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, ঈগল পাখির জয় ঠেকানো যাবে না। কারণ তিনি এমপি থাকাকালীন সময়ে ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। যেহেতু নৌকা নেই, তাই ফাঁড়িসহ ১২ চা বাগানবাসী ঈগলকে বেছে নিবে।

অ্যাডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী বলেন, এমপি থাকা অবস্থায় স্থানে স্থানে গিয়ে উন্নয়নমূলক কাজ করেছি। উন্নয়নের স্বার্থে লোকজন আমাকে এমপি দেখতে চায়। ঈগলের পক্ষে গণজোয়ার তৈরি হয়েছে। আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীরা বলছেন এ আসন নৌকার ঘাঁটি।

নৌকা নিয়ে এ আসন থেকে ২০১৮ সালে এমপি নির্বাচিত হন গাজী মোহাম্মদ শাহনওয়াজ (মিলাদ গাজী)। তার আগে মিলাদ গাজীর বাবা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা সাবেক মন্ত্রী দেওয়ান ফরিদ গাজী ১৯৯৬, ২০০১ ও ২০০৮ সালের নিবার্চনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

২০১০ সালের ১৯ নভেম্বর দেওয়ান ফরিদ গাজী মৃত্যুবরণ করেন। শূন্য আসনে ২০১১ সালের ২৭ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত উপনির্বাচনে আওয়ামী লীগের দূর্গে প্রথমবারের মতো হানা দেয় বিএনপি।

বিএনপি মনোনীত প্রার্থী আলহাজ্ব শেখ সুজাত মিয়া আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে ওই উপনিবার্চনে তৎকালীন জেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ডাঃ মুশফিক হুসেন চৌধুরীকে পরাজিত করেন। ২০১৪ সালে অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আসন ভাগাভাগিতে জাতীয় পার্টি প্রার্থী এমএ মুনিম চৌধুরী বাবু বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এমপি নির্বাচিত হন।

আওয়ামী লীগের ঘাটি খ্যাত হবিগঞ্জ ২, আজমিরীগঞ্জ-বানিয়াচং নির্বাচনী এলাকায় নির্বাচনী হাওয়া বেশ জোরে সুরে বইছে। ভোটের আমেজ বিরাজ করছে গ্রাম পাড়া মহল্লায়। এলাকার বিভিন্ন হাটবাজারে ও পাড়া মহল্লার চায়ের দোকানে সকাল বিকেল চলে নির্বাচনী আলোচনা।

আসন্ন দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামি লীগ মনোনয়ন দিয়েছে অত্র এলাকার সাবেক সংসদ সদস্য ও হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সভাপতি প্রয়াত অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিননের পুত্র বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক আইন বিষয়ক সম্পাদক ও হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট ময়েজ উদ্দিন শরীফ রুয়েলকে।

অন্যদিকে, দলের কৌশলী সিদ্ধান্তে উদ্বুদ্ব হয়ে আসনটিতে ঈগল প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে লড়ছেন অত্র এলাকার টানা তিনবারের (বর্তমান) সংসদ সদস্য হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক সাংগঠনিক ও সাধারণত সম্পাদক আলহাজ্ব অ্যাডভোকেট আব্দুল মজিদ খান।

বরাবর এই আসনে আওয়ামী লীগের বিজয় হয় বলে আসনটিকে আওয়ামী লীগের ঘাটি বলা হয়ে থাকে। ২০০৮ সাল থেকে ২০২৩ সাল পর্যন্ত আব্দুল মজিদ খান এলাকায় ব্যাপক উন্নয়নমুলক কর্মকাণ্ড করেছেন। যার ফলে ভোটারের বিশাল একটা অংশ তাকে সমর্থন করছেন।

অন্যদিকে দুই উপজেলার দলীয় নেতাকর্মী প্রায় সবাই নৌকার বিজয়ের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছেন। সর্বোপরি অন্যান্য আসনে হাড্ডা-হাড্ডি লড়াই হলেও অ্যাডভোকেট আবু জাহিরের যথাযথ প্রতিদ্বন্দ্বি নেই বললেই চলে।