ঢাকাWednesday , 20 December 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জ শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজের বেহাল দশা : বারবার চিঠি দিলেও হৃদয় গলছে না গণপূর্তের

তারেক হাবিব
December 20, 2023 9:33 am
Link Copied!

প্রতি বর্গকিলোমিটারে ৭৯২ জন ঘনত্বের প্রায় ২১ লাখ জনসংখ্যা অধ্যুষিত হবিগঞ্জে চিকিৎসা সেবার একমাত্র শেষ আশ্রয়স্থল ‘হবিগঞ্জ শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ’ ভবনটি বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে।

উদ্বোধনের মাত্র কয়েক বছরের মধ্যেই অকেজো হয়ে পড়েছে বেসিন, হ্যান্ডেল কলসহ শৌচাগারের যাবতীয় জিনিষপত্র। বিকল হয়ে গেছে মেডিকেল কলেজের প্রতিটা ফ্লোরের বর্জ্য নিষ্কাশন পাইপলাইন। কোথাও কোথাও আবার পাইপ ভেঙ্গে চলাচলের রাস্তার পাশের বের হচ্ছে বাথরুমের ময়লা।

সরেজমিনে হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের জরুরী বিভাগের সামনে গেলেই দেখা যায় এমন চিত্র। চরম ভোগান্তিতে পড়ছেন হাসপাতালে আগত রোগী ও সাধারণ মানুষেরা। ময়লার দুর্গন্ধে নাক চেপে প্রবেশ করছেন ভেতরে। তবে বার বার লিখিত চিঠি ও তাগিদ দিলেও হৃদয় গলছে না হবিগঞ্জ গণপূর্ত বিভাগের।

বলে এমনটাই অভিযোগ করে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে জানিয়েছেন হবিগঞ্জ ২৫০ শয্যা সদর আধুনিক হাসপাতালের তত্তাবধায়ক ডাঃ মোহাম্মদ আমিনুল হক সরকার।

সুত্র জানায়, হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের এই ৬ তলা ভবন (বর্তমান মেডিকেল কলেজ হিসেবে ব্যবহৃত) নির্মাণে সার্বিক তত্ত্বাবধান করে হবিগঞ্জ গণপূর্ত বিভাগ।

এর আগে নির্মাণাধীন সময়ে নানা অনিয়ম ও অব্যবস্থাপনার অভিযোগ উঠে হবিগঞ্জ গণপূর্ত বিভাগের বিরুদ্ধে। জানা যায়, হাসপাতালের ৬ তলা ওই ভবন নির্মাণে গুরুতর অনিয়ম ধরা পড়ে ওই সময়ে ।

যথাযথ অনুমোদিত নকশা অনুযায়ী নির্মাণ হয়নি ভবন। এব্যাপারে গণমাধ্যমে তাৎক্ষণিক সংবাদ প্রকাশ হলে উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী দেবতোষ দেব ৪৯৬/১(৫)নং স্বারকে ত্রুটি সংশোধনের বিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য নির্বাহী প্রকৌশলীর কাছে চিঠি প্রদান করেন। তবে এতেও প্রয়োজনীয় সংশোধন হয়নি বলে জানা গেছে।

ভবনের প্রতিটি কলামে ২৫ এমএম এর ১২টি করে রড দেওয়ার কথা থাকলেও সেখানে দেওয়া হচ্ছে ৪ থেকে ৬টি করে রড। কোনও কোনও কলামে ২৫ এমএম রড দেওয়ার কথা থাকলেও দেওয়া হচ্ছে ২০ এমএম রড।

সরেজমিন তদন্তে বিল্ডিং নির্মাণে এমন গুরুতর অসঙ্গতি ধরা পড়লেও হবিগঞ্জের গণপূর্ত বিভাগের দায়িত্বে থাকা তৎকালিন নির্বাহী প্রকৌশলী আব্দুল মুনিম কোনও ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন না বলে অভিযোগ করা হয়।

একইভাবে ছাদ ঢালাইয়ের ক্ষেত্রেও নির্দিষ্ট পরিমাণ রড, ইট, সিমেন্ট দেওয়া হয়নি। গণপূর্তের ঠিকাদার নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠান হাসপাতালের ভবন নির্মাণের শুরু থেকেই নিম্নমানের রড, ইট, সিমেন্ট ও বালু ব্যবহার করে আসছিলো বলে জানা যায়।

গণপূর্তের এমন ‘কান্ডজ্ঞানহীন’ কর্মকান্ডে জনদুভোর্গ ও পরিবেশ বিনষ্টের পাশাপাশি যে কোন সময় ঘটতে পারে বড় ধরণের দূর্ঘটনা। আর সেই ঝুকিপুর্ণ ভবনে গাদাগাদি করে কোন রকমে চলছে চিকিৎসাসেবা।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ ২৫০ শয্যা সদর আধুনিক হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডাঃ মোহাম্মদ আমিনুল হক সরকার দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে জানান, বর্জ্য নিষ্কাশন পাইপলাইন মেরামতসহ যাবতীয় বিষয়ে মেরামত করার জন্য হবিগঞ্জ গণপূর্ত কর্তৃপক্ষকে বার বার চিঠি ও তাগিদ দেয়া হয়েছে। কিন্তু তারা বিষয়টির যথাযথ কোন সমাধান করছেন না।

বিষয়টির কারন জানতে হবিগঞ্জ গণপূর্ত বিভাগে সরেজমিনে উপস্থিত হলে উপ- সহকারী প্রকৌশলী আহসান উল্লা জানান, সাধারণ মেরামত হলে এমনিই করে দেয়া যেত! কিন্তু যেহেতু কাজগুলো গুরুতর তাই ভাল করে পরিদর্শন করে দিতে হবে। তবে কবে পরিদর্শন করে ব্যবস্থা নেয়া হবে এমন বিষয়টি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে জানাননি তিনি।

উল্লেখ্য, ৫১ শিক্ষার্থী নিয়ে প্রথম যাত্রা শুরু করে হবিগঞ্জ শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ। ২০১৫ সালের ১ জানুয়ারি অনুমোদন পায় এই মেডিকেল কলেজ। ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বরে অধ্যক্ষ হিসেবে নিয়োগ পান সমালোচিত দুদকের মামলায় অভিযুক্ত ডাঃ মোঃ আবু সুফিয়ান।

তিনি দায়িত্ব নিয়ে কাজ শুরু করলেও ক্লাস নেয়ার স্থানের অভাবে এ বছর শিক্ষার্থী ভর্তিতে অনুমোদন পায়নি। অবশেষে ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষে ৫১ জন শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয়। এর মাঝে ৩৩ জন ছাত্রী ও ১৮ জন ছাত্র।