ঢাকামঙ্গলবার , ৯ মার্চ ২০২১

হবিগঞ্জ পৌরসভার চৌধুরী বাজার এলাকায় পাবলিক টয়লেট দখল করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলেছেন ‘টয়লেট বাবুল’

অনলাইন এডিটর
মার্চ ৯, ২০২১ ৮:৩০ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

ছবি: এমদাদুর রহমান বাবুল (টয়লেট বাবুল)

 

স্টাফ রিপোর্টার: হবিগঞ্জ পৌরসভার চৌধুরী বাজার এলাকার চৌরাস্তার মোড়ের পাশে পৌরসভার পাবলিক টয়লেট। শহরের ব্যস্ততম এই চৌরাস্তাকে ঘিরে ফুটপাতে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চা-পান, ফলমূলের ব্যবসা করে আসছেন অসংখ্য ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী। মাসোহারা হিসেবে টাকা আদায়ের মাধ্যমে এসব দোকানে অবৈধ বিদ্যুৎসংযোগ দেয়া হয়েছে ওই পাবলিক টয়লেট থেকে।

হবিগঞ্জ শহরের ব্যস্ততম পয়েন্টে হাটবাজারকে উপলক্ষ্য করে গত ১৫ বছর আগে মাত্র কয়েক হাজার টাকার বিনিময়ে ইজারা নেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার রিচি গ্রামের মরহুম মুক্তার হোসেনের পুত্র ও শহরের কালীগাছতলা এলাকার বাসিন্দা এমদাদুর রহমান বাবুল। লীজ গ্রহণের পর থেকেই এই পাবলিক টয়লেটের দরজা পরিবর্তন করে সাটার লাগিয়ে টয়লেটে গড়ে তুলেন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান।

পাবলিক টয়লেটে ব্যবস্যা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলে নামে সাথে অর্জন করেছেন ব্যাপক পরিচিতি। স্থানীয়রা তাকে টয়লেট বাবুল নামেই চিনেন। পাবলিক টয়লেটের পাশেই দিনমজুর শ্রেণির মানুষ ব্যস্ততম রাস্তার পাশে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ফুটপাতে চা-পান এবং ফলমূলের ব্যবসা করে জীবিকা নির্বাহ করছেন। টয়লেট ইজারা নিয়ে ফুটপাতের দোকান থেকে টাকা আদায় কি চাঁদাবাজি নয়? সরেজমিন পাবলিক টয়লেট এলাকায় (২য় পাতায় দেখুন) গিয়ে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া যায়।

টয়লেটে দায়িত্বরত এক ব্যক্তি জানান, এমদাদুর রহমান বাবুলের কাছ থেকে দৈনিক ১শ’ টাকা চুক্তিতে কাজ করছেন তিনি। টয়লেটের পাশে থাকা আরেক দোকানি জানান, এতদিন দৈনিক হারে টাকা দিতাম তাকে, এবার মাসোহারা হিসেবে দেই। অপর এক ফল ব্যবসায়ী জানান, তিনি জেলা যুবলীগের সভাপতির বড় ভাই, অনেক ক্ষমতাধর। আমরা দোকান দেই ফুটপাতে। তিনি পাবলিক টয়লেট ইজারা নিয়েছেন, কিন্তু তিনি আমাদের কাছ থেকে দোকানের ভাড়া হিসেবে টাকা আদায় করেন ঠিকই। এটা তো রীতিমতো চাঁদাবাজি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন ফল ব্যবসায়ী জানান, হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ক্ষমতাধর রিচি গ্রামে প্রভাব বিস্তার করে তিনি যা তাই করে যাচ্ছেন। জুলুম করে তিনি আমাদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করেন তারপরও ভাড়া দিতে বাধ্য হচ্ছি। এছাড়া আমাদের আর কোন উপায় নেই, তার অনেক ক্ষমতা। আমরা প্রতিবাদ করলে রোজগারের পথটি বন্ধ হয়ে যাবে।

এ ব্যাপারে এমদাদুর রহমান বাবুলের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে বলেন, ‘গত ১০/১৫ বছর আগে লীজ নেয়া । তবে এগুলো তো মানুষের ব্যক্তিগত বিষয়। পত্রিকায় না দিলে হয় না? যা করা হয়েছে নিয়ম মেনেই হয়েছে। আপনার এর বেশী কিছু জানার থাকলে পৌরসভায় যোগাযোগ করতে পারেন।

হবিগঞ্জ পৌরসভার সচিব ফয়েজ আহমেদ জানান, লীজ শর্ত ভঙ্গ করলে তা বাতিল বলে গণ্য করা হবে। পাবলিক টয়লেটের গঠন কাঠামো পরিবর্তন করে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়লে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Developed By The IT-Zone