ঢাকাThursday , 4 January 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জ পাসপোর্ট অফিসে টেন্ডার ছাড়াই কোটি টাকা মূল্যের নথি বিক্রি

তারেক হাবিব
January 4, 2024 10:40 am
Link Copied!

কোন প্রকার টেন্ডার ছাড়াই কোটি টাকা মুল্যের সংরক্ষিত নথি ও অকেজো এমআরপি আবেদন ফরম বিক্রি করে দিয়েছেন হবিগঞ্জ জেলা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক বজলুর রশিদ। এ ঘটনায় তোলপাড় শুরু হয়েছে সর্বত্র।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জের হাতে থাকা আসা কিছু তথ্য প্রমাণ পর্যালোচনা করে দেখা যায়, হবিগঞ্জ জেলা পাসপোর্ট অফিসের স্টোররুমে সংরক্ষিত থাকা সেবা প্রত্যাশীদের দীর্ঘদিনের তথ্য-সম্বলিত নথি ও অকেজো এমআরপি আবেদন ফরমসহ বিভিন্ন ধরনের অকেজো মালামাল কোন প্রকার টেন্ডার বা বিজ্ঞপ্তি ছাড়াই বিক্রি করে দিয়েছেন সহকারী পরিচালক বজলুর রশিদ।

নামমাত্র কিছু টাকা সরকারি কোষাগারে জমা দিয়ে বাকী টাকা আত্মসাত করেছেন তিনি। অবৈধভাবে বিক্রিত এসব মালামালের মুল্য আনুমানিক ৭০ থেকে ৮০ লাখ টাকা হতে পারে বলে জানিয়েছে ক্রয় প্রক্রিয়ায় অংশ নেয়া প্রতিষ্ঠানের আরেকটি অঙ্গ সংগঠন। কিন্তু সরকারি কোষাগারে জমা দেয়া হয়েছে মাত্র ৭৯ হাজার ৯’শত ৯৬ টাকা এবং কাগজে-কলমেই পরিমান দেখানো হয়েছে মাত্র ২৮শত ৫৭ কেজি।

এমন ঘটনার কারনসহ বিস্তারিত জানতে গত ৩ জানুয়ারী মঙ্গলবার দুপুরে সরেজমিনে হবিগঞ্জ জেলা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক বজলুর রশিদের কাছে গেলে হেড অফিসের দোহাই দিয়ে দ্বায়সারা জবাব দিয়ে বলেন, ‘আগারগাঁও, কিশোরগঞ্জসহ আরও কয়েকটি অফিসে এ রকম হয়েছে।

হেড অফিসের নির্দেশনা মতেই এগুলো বিক্রি করা হয়েছে’। সেবা প্রত্যাশীদের দীর্ঘদিনের সংরক্ষিত তথ্য-সম্বলিত নথি বিক্রি করা হলে এটা সাধারণ মানুষের ক্ষতির কারন হতে পারে এগুলো বিক্রি না করে ধ্বংস করা উচিত ছিল এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘যে কোম্পানী বা সংস্থার কাছে বিক্রি করা হয়েছে তারা ধ্বংস করেছেন’।

সুত্র জানায়, নারায়নগঞ্জের ইকরা এন্টারপ্রাইজসহ আরও কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের কাছে ধাপে ধাপে বিক্রি করা হয়েছে এগুলো। সেখান থেকে স্থানীয় আল নূর পেপারস মিলে সরবরাহ করা হয়েছে মহামূল্যবান নথিগুলো।

শুধু তাই নয়, গাড়ী ভর্তি নথিগুলো দায়িত্ব নিয়ে নিরাপদভাবে নারায়নগঞ্জে পৌছে দিয়েছেন হবিগঞ্জ জেলা আঞ্চলিক পাসপোর্ট অফিসের কর্মকর্তারা।

এদিকে, পুরো টাকা পাসপোর্ট অফিসের সহকারী পরিচালক বজলুর রশিদ একাই আত্মসাত করেনি বরং বিষয়টি সুষ্ঠভাবে ধামাচাপা দিতে সবাইকে নিয়ে মিলে-মিশে খেয়েছেন বলে জানিয়েছে আরেকটি সুত্র।

পরে ঘটনাটির যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য দৈনিক আমার হবিগঞ্জের পক্ষ থেকে ইমিগ্রেশন ও পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এবং হবিগঞ্জের জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট সকলকে অবগত করা হয়।