ঢাকাবুধবার , ৩০ মার্চ ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জ দারুচ্ছুন্নাৎ মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ফারুক মিয়ার বিরুদ্ধে সরকারি বই কেজি দরে বিক্রির অভিযোগ

খায়রুল ইসলাম সাব্বির
মার্চ ৩০, ২০২২ ৬:৪৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সরকারের বিনামূল্যের বই ২০ টাকা কেজিদরে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে হবিগঞ্জ দারুচ্ছুন্নাৎ মাদ্রসার অধ্যক্ষ ফারুক মিয়ার বিরুদ্ধে । হবিগঞ্জ সদর উপজেলার দারুচ্ছুন্নাৎ কামিল মাদ্রাসার জন্য বরাদ্দ মাধ্যমিক স্তরের বই দিনেদুপুরে বিক্রি করে দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে ।

বই বিক্রির অভিযোগের খবর পেয়ে সত্যতা নিশ্চিত করতে মঙ্গলবার (২৯ মার্চ) সরেজমিনে গিয়ে হাতেনাতে পাওয়া যায় বই বিক্রির চিত্র।  দৈনিক আমার হবিগঞ্জের সাংবাদিকদের উপস্থিত টের পেয়ে বই বিক্রি করা বন্ধ করে পালালেন দারুচ্ছুন্নাৎ কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ মোহাম্মদ ফারুক মিয়া।

কেজি দরে সরকারি বই ক্রয় করতে আসা স্থানীয় ভাঙ্গারী ব্যবসায়ীদের সূত্রে জানা যায়,মঙ্গলবার (২৯ মার্চ) বিকেলে মাদরাসা ছুটির পর অধ্যক্ষ মোহাম্মদ ফারুক মিয়ার ভান্ডার কক্ষে সংরক্ষিত ২০১৯-২০২০, ২০২০-২০২১ শিক্ষাবর্ষসহ কয়েক বছরের বিভিন্ন শ্রেণির বিভিন্ন বিষয়ের সরকারি বই কেজি দরে গোপনে বিক্রি করার জন্য প্রস্তুতি নেন।

প্রায় ১৫’শ কেজি বই পাল্লায় পরিমাণ করে বস্তাবন্দি করা হয়। কিন্তু সাংবাদিকের উপস্থিত দেখেই বিভিন্ন তালবাহানা করে বই বিক্রি করা বন্ধ করে দেন তিনি।

কথা হয় বই ক্রয় করতে আসা ভাঙ্গারী ব্যবসায়ী নোমান মিয়ার সাথে, তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জকে বলেন, প্রধান শিক্ষকের মাধ্যমে ২০ টাকা কেজি আমরা বই ক্রয় করতে এসেছি । প্রায় ১৫’শ কেজি বই পরিমাপ করে বস্তাবন্দি করেছি।

বস্তা গুলো নিয়ে যাওয়ার জন্য আমরা গাড়ি নিয়ে এসেছি কিন্তু সাংবাদিকের উপস্থিত টের পেয়ে বইয়ে বস্তা গুলো ভান্ডারকক্ষে রেখার নির্দেশনা দেন ফারুক হুজুর ।  আর আমরা বই গুলা কক্ষে রাখার পরেই তালা দিয়ে চলে যান তিনি।

পরবর্তীতে আমরা বই গুলো নিয়ে যাওয়ার জন্য ফারুক হুজুরের সাথে ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন আজকে বই নেয়ার প্রয়োজন নেই কালকে এসে নিয়ে যাওয়ার জন্য বলেন তিনি৷ এবং আমরা হুজুরকে অগ্রিম ২০ হাজার টাকাও দিয়েছি।

এ বিষয়ে কথা হয় হবিগঞ্জ দারুচ্ছুন্নাৎ কামিল মাদরাসার অধ্যক্ষ মোহাম্মদ ফারুক মিয়ার সাথে, তিনি বলেন বই আমি বিক্রি করি না! আমাদের ১৮,১৯,২০ সেশনের যে বই ছিল সেগুলো আমাদের গুদামে ছিল। নতুন বিল্ডিং এর কাজ চলায় আমরা বই গুলো রেখে ছিলাম এখন মেয়েদের নামাজ পড়ার জায়গা নেইআর বই গুলো বিভিন্ন পুকায় থেয়ে ফেলায় আমি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের সাথে যোগাযোগ করে বলি স্যার বই গুলো নিয়ে নেন যেভাবে টেন্ডার দেয় সেইভাবে দেয়ার জন্য।

পরে স্যারে বলেন বইগুলা কাউকে দিয়ে পাটিয়ে দেন । তাই আমাদের লেবার ও বাহিরের কিছু লেবার নিয়ে এসে বই গুলো বস্তাবন্দি করছিলাম।
তবে তারা লেবার নয় ভাঙ্গারী ব্যবসায়ী এবং বই বিক্রির এডভান্স ২০ হাজার টকা নিয়েছেন প্রতিবেদকের এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন এটি একদম মিথ্যা কথা । বই গুলো আছে আপনারা আসলে দেখতে পারবেন বলে জানান তিনি।

এ বিষয়ে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার জিয়া উদ্দিন বলেন, ক্লাস নিতে সমস্যা হয় আমি অনেক আগে একবার বলছিলাম বই গুলো পাটিয়ে দেয়ার জন্য যেহেতু বই বিক্রির অভিযোগ এসেছে এই বিষয়টি আমি জানতাম না । তবে আমি এ বিষয়ে কঠোর ব্যবস্তা গ্রহন করবো বলে জানান তিনি।

Developed By The IT-Zone