ঢাকাশুক্রবার , ১৪ জানুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগে পদ পেতে ভূয়া ছাত্রদের দৌড়ঝাঁপ

তারেক হাবিব
জানুয়ারি ১৪, ২০২২ ৯:২৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের কমিটি ঘোষণার আগ মুহূর্তে সংগঠনটির শীর্ষ পদ পেতে তদবিরে ব্যস্ত এখন অর্ধশতাধিক নেতা। তবে বর্তমান ও সাবেক ছাত্রলীগ নেতারা বলছেন, সাবেক নেতাদের গড়ে ওঠা ‘সিন্ডিকেটের আশীর্বাদ’ নিয়ে এবার পদ পাওয়া সম্ভব নয়। নানা নাটকীয়তা এবং বিতর্কের তিন বছর পর আবারও শুরু হতে হচ্ছে ছাত্রলীগের নতুন কমিটি।

কেন্দ্রীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী নতুন কমিটি গঠনের লক্ষ্যে সিভি সংগ্রহে গত ২ জানুয়ারী হবিগঞ্জ আসেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সোহানুর রহমান সোহান, সহ-সম্পাদক রুবেল শিকদার এবং উপ-প্রচার সম্পাদক ফয়জুল্লাহ মানিক।

কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের তথ্য মতে, মোট সিভি জমা পড়েছে ৫৭টি। এর মধ্যে সভাপতি পদ প্রত্যাশী ২০টি এবং সাধারণ সম্পাদক পদ প্রত্যাশী ৩৭টি। তবে বরাবরের মতই এদের বেশীর ভাগই হাইব্রীড,অনু-প্রবেশকারী, ভূয়া ছাত্র এবং বয়স্কদের সংখ্যাই বেশী।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জের অনুসন্ধানে উঠে আসে ভূয়া কিছু তথ্য উপস্থাপনের বিষয়। জানা যায়, সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে জমাকৃত সিভির অনেকই ৫ম এবং ৮ম শ্রেণী যোগ্যতা সম্পন্ন। শুধু তাই নয়, এদের বেশীর ভাগেরই বয়স ৩৫ এর বেশী। সভাপতি পদ প্রত্যাশী মোশারফ হোসেন আরিফ বাপ্পি নামে এক ব্যক্তি ২ জানুয়ারিতে নিজের সিভি উপস্থাপন করেন কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দদের কাছে।

সিভিতে প্রাইভটে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মাস্টার্স সম্পন্ন করার তথ্য উল্লেখ করা থাকলে বাস্তবে তার যোগ্যতা ৮ম শ্রেণীরও চেয়েও কম বলে জানা গেছে, জাতীয় পরিচয়পত্র অনুসারে তার বর্তমান বয়স ৩২। তবে পদ পেতে যোগ্যতা ও বয়সের দিকে না তাকিয়ে ইতিমধ্যে তিনি দৌড়ঝাপ শুরু করেছেন কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দদের কাছে।

অর্থের বিনিময়ে পদ ভাগিয়ে নিতে বিক্রি করেছেন ধানী জমিসহ বসববাড়ির কিছু অংশ । যেকোন মূল্যেই তিনি হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি পদে আসবেন বলে নিশ্চিত করেছে একটি সুত্র। পদে আনতে তার পক্ষে কাজ করছেন হবিগঞ্জের বাঘা-বাঘা নেতারা।

হবিগঞ্জ জেলার দায়িত্ব থাকা বাংলাদেশ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সোহানুর রহমান সোহান জানান, এরকম কিছু অভিযোগ আমাদের কাছে আছে। এগুলো যাচাই-বাচাই করা হবে।

অভিযুক্ত সভাপতি পদ প্রত্যাশী মোশারফ হোসেন আরিফ বাপ্পির সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’কে বলেন, ‘আমি একটি প্রাইভেট স্কুল থেকে এসএসসি পাস করেছি, আইএ পাস করছি একটি প্রাইভেট কলেজ থেকে। মাস্টার্স করেছি একটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে’।

স্কুল-কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম জানতে চাইলে তিনি কোন প্রতিষ্ঠানের নাম বলতে নারাজ হয়ে লাইন কেটে দেন তিনি।

এর আগে, গত ২১ ডিসেম্বর মেয়াদোত্তীর্ণ ও বিতর্কিত নানা অভিযোগ থাকায় কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বিলুপ্ত ঘোষণা করেন হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের কমিটি।

কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণার পর অনেককেই মিষ্টি বিতরণ করতে দেখা গেছে হবিগঞ্জ শহরে। জেলা ছাত্রলীগের সাবেক বিতর্কিত সভাপতি সাইদুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক মহিবুর রহমান মাহির বিরুদ্ধে গরু চুরি, ম্যানিব্যাগ, মোটরসাইকেল চুরি এবং কমিটি বাণিজ্যের নামে টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠে।

বিষয়টি কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দের নজরে আসলে তাৎক্ষণিকভাবে স্থগিত করা হয় হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের কমিটির সার্বিক কার্যক্রম। নানা অভিযোগে ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ সাতজনের বিরুদ্ধে গত ১৬ আগস্ট গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত। পদ-বাণিজ্য, চাঁদাবাজি, গরু চুরির মামলা, পত্রিকা অফিসে হামলা, ইয়াবা ইস্যু, মন্ত্রীকে নিয়ে কুরুচির্পূণ মন্তব্যসহ নানা বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে অভিযুক্ত হয় হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগ।

এত অভিযোগ থাকার পরও অনেকটাই নীরব থাকেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি আল-নাহিয়ান খান জয় ও সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য। এ নিয়ে সচেতন মহলে চলে নানা সমালোচনা।

২০১০ সালে হবিগঞ্জের বানিয়াচং থানায় গরু চুরির মামলা হয় সাধারণ সম্পাদক মাহির বিরুদ্ধে। ২০২০ সালের ২৫ আগস্ট ৩০০ পিস ইয়াবাসহ পুলিশের হাতে গ্রেপ্তার হয় মাহির অন্যতম সহযোগী বানিয়াচং উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি মাহমুদ হোসেন খান। এ ঘটনায় মাহমুদ হোসেন খানকে শৃঙ্খলাভঙ্গের অভিযোগে ছাত্রলীগ থেকে বহিষ্কার করতে বাধ্য হয় জেলা ছাত্রলীগ।

এমন একাধিক ভিডিও এখন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল। বন, পরিবেশ ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন আহমদকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে কুরুচিপূর্ণ মন্তব্য করে মহিবুর রহমান মাহি। এজন্য তাকে এলাকায় অবাঞ্ছিত ঘোষণা করে জেলা ছাত্রলীগের একাংশ।

গত ১৯ এপ্রিল দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকার সম্পাদকের বাসভবনেও হামলা করে মাহি। এ ছাড়া মাহির বিরুদ্ধে অসহায় মানুষের জমি দখল ও চাঁদাবাজির একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

বর্তমানে সাইকেল চুরি ও সাংবাদিককে মারধরের ঘটনায় গ্রেফতারী পরোয়ানা নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন হবিগঞ্জ জেলা ছাত্রলীগের সদ্য বিদায়ী সভাপতি সাইদুর রহমান ও তার সহযোগী।

১৩ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ সালে অনুষ্ঠিত জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনে জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি সাইদুর রহমানকে সভাপতি, সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মহিবুর রহমান মাহিকে সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়।

দীর্ঘ ৩ বছরের কাছাকাছি দলীয় পদে থাকার পরও পূর্ণাঙ্গ কমিটি করতে ব্যর্থ তারা। নানা বিতর্ক কর্মকান্ডসহ কমিটির মেয়াদ পার হওয়ার অজুহাতে অবশেষে সেই দুইজনের কমিটিকে বাতিল করেন কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি/সেক্রেটারি।

Developed By The IT-Zone