ঢাকাTuesday , 29 March 2022

হবিগঞ্জ চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবনে গত বছরের ১৫ নভেম্বরই স্থাপিত হয়েছিল মাতৃদুগ্ধপান কেন্দ্র।

Link Copied!

হবিগঞ্জে চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবনে ভলান্টিয়ার ফর বাংলাদেশ এর উদ্যোগে গত বছরের ১৫ নভেম্বর স্থাপন করা হয় ব্রেস্ট ফিডিং কর্নার বা মাতৃদুগ্ধপান কেন্দ্র। কিন্তু এ বছরের ১৬ মার্চ আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের আইন ও বিচার বিভাগের সিনিয়র সহকারী সচিব মোঃ একরামুল হক শামীম স্বাক্ষরিত পত্রে মাতৃদুগ্ধপান কেন্দ্র স্থাপন করা হয়নি এমন ২৬ টি জেলার তালিকায় হবিগঞ্জ জেলার নাম আসায় বিভ্রান্তি তৈরি হয়।

এ পত্রটির সূত্র ধরে গত ২৪ মার্চ ‘দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায়’ এছাড়া একাধিক অনলাইন এবং প্রিন্ট সংবাদমাধ্যমে হবিগঞ্জ জেলা আদালতে মাতৃদুগ্ধ পান কেন্দ্র স্থাপন করা হয়নি মর্মে সংবাদ প্রকাশ হয়।

বিষয়টি সংশ্লিষ্টদের নজরে আসলে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকা আইন বিষয়ক উপদেষ্টা এডভোকেট শিবলী খায়েরকে অবগত করা হয় । এরই প্রেক্ষিতে সোমবার( ২৮ মার্চ)  সরেজমিনে দেখা যায় মাতৃদুগ্ধপান কেন্দ্রটিতে স্তন্যদানকারী মায়েরা তাদের সন্তানদের দুগ্ধদান করতে পারছেন ।

এই সময় কথা হয় বানিয়াচং উপজেলার তারাসই গ্রামের অজুফা আক্তার এর সাথে, তিনি জানান তার পুত্র রাহুলকে নিয়ে একটি মামলা সংক্রান্ত কাজে আদালতে এসেছেন। মাতৃদুগ্ধপান কেন্দ্রটিতে তিনি তার সন্তানকে স্তন্যপান করিয়েছেন।

তিনি আরো জানান এ ধরনের সুবিধা থাকায় মায়েরা উপকৃত হচ্ছেন । জানা যায়, গত বছরের ১৫ নভেম্বর চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত ভবনের তৃতীয় তলায় স্থাপিত মাতৃদুগ্ধপান কেন্দ্রটির উদ্বোধন করেন চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ হারুন অর রশিদ ।

এসময় আরও উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত চীফ জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো. ইয়াসির আরাফাত, সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ সুলতান উদ্দিন প্রধান, সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আসমা বেগম, সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট পবন চন্দ্র বর্মণ, জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ নুরুল হুদা চৌধুরী, প্রশাসনিক কর্মকর্তা শাকিল মিয়া প্রমুখ।

এ সময় ভলান্টিয়ার ফর বাংলাদেশের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন ভিবিডি হবিগঞ্জের প্রেসিডেন্ট নাসির হোসাইন তানভীর, সদস্য রফিকুল ইসলাম, মুহিন শিপন, সাইফুল ইসলাম, তালহা জোবায়ের, জাহিদ আহমেদ প্রমুখ ।