ঢাকাWednesday , 2 February 2022
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জে স্টাম্প ও কোর্ট ফি’র কৃত্রিম সংকট সৃষ্টিকারী চক্রের মূল হোতা নুরুল হক ডিবি’র অভিযানে গ্রেফতার

Link Copied!

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় ‘হবিগঞ্জে রেভিনিউ স্টাম্প ও কোর্ট ফি’র কৃত্রিম সংকট’ শীর্ষক সংবাদ প্রকাশের পর হবিগঞ্জ জেলায় রেভিনিউ স্ট্যাম্প এবং কোর্ট ফি’র অননুমোদিত ও অবৈধ মজুদ গড়ে তুলে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি ও স্টাম্প জালিয়াত চক্রের মূল হোতা জেলা স্ট্যাম্প ভেন্ডার সমিতির কথিত সভাপতি স্ট্যাম্প ভেন্ডার শফিকুল ইসলামের পুত্র নুরুল হক ডিবি’র অভিযানে গ্রেফতার হয়েছেন। মঙ্গলবার (১ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় এ অভিযান পরিচালনা করে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ।

এ সময় ডাঃ ইশতিয়াক রাজ চৌধুরী নামে এক ব্যক্তির মালিকানাধীন হবিগঞ্জের বেবিস্টান্ড মোড়ের হোটেল আলিফের নিচতলায় অবস্থিত নুরুল হকের দোকান থেকে কয়েক লক্ষ টাকা মূল্যের বিপুল পরিমাণ অবৈধ রেভিনিউ স্ট্যাম্প ও কোর্ট ফি উদ্ধার করে ডিবি পুলিশ।

নুরুল হক সদর উপজেলার রিচি ইউনিয়নের দৌলতপুর গ্রামের বাসিন্দা। অভিযান চলাকালে নুরুল হকের সহযোগী ডাঃ ইশতিয়াক রাজ চৌধুরী বাধা প্রদান করেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

সূত্রে জানা যায়, ইশতিয়াক রাজ চৌধুরীর ছত্রছায়ায় বেপরোয়া নুরুল হক দীর্ঘদিন ধরে এ অবৈধ ব্যবসা চালিয়ে আসছিলেন। হবিগঞ্জ জেলা ডিবি পুলিশের উপ-পরিদর্শক অভিজিৎ ভৌমিকের নেতৃত্বে মঙ্গলবার সন্ধ্যায় প্রায় ১ ঘন্টাব্যাপী এ অভিযান পরিচালিত হয়।

উপ-পরিদর্শক অভিজিৎ ভৌমিক জানান, মূলত দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের প্রেক্ষিতে এ অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় ইশতিয়াক রাজ চৌধুরী ভুল বুঝেছিলেন, পরে তাকে বুঝিয়ে শান্ত করা হয়।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত ডাঃ ইশতিয়াক চৌধুরী রাজের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘স্টাম্প ভেন্ডারের সাথে আমার কোন সংশ্লিষ্টতা নেই, বরং তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে আমি জোর দাবী জানিয়েছি। তাছাড়া সে আমার দোকানের ভাড়াটিয়া না, এটা আমাদের পারিবারিক সম্পত্তি। সে আমার চাচাতো ভাইয়ের দোকানের ভাড়াটিয়া। এতে আমার সম্পৃক্ততা নেই।’

অন্যদিকে, জেলা স্টাম্প ভেন্ডার সমিতির সভাপতি আতাউর রহমান জানান, ‘নুরুল হকের গ্রেফতারের সময় তাকে ছেড়ে দিতে ইশতিয়াক রাজ চৌধুরী বার বার ডিবি পুলিশকে অনুরোধ করেন। নুরুল হকের সাথে ইশতিয়াক রাজের সংশ্লিষ্টতা আছে, এরা একে অপরের যোগসাজশে দীর্ঘদিন ধরে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে আদালত পাড়ায় নকল কোর্ট ফি ও স্টাম্প যোগান দিয়ে আসছিলেন। নুরুল হকের অন্যতম সহযোগী রাজ’।

এর আগে দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয় যে, হবিগঞ্জ জেলায় সরকারের রেভিনিউ স্টাম্প, কার্টিজ পেপার ও কোর্ট ফি এর দাম এখনো স্বাভাবিক হচ্ছে না। এসব অত্যন্ত দরকারী পণ্যের কৃত্রিম সংকট তৈরী করে অস্বাভাবিক রকম বাড়িয়ে দেয়া হয়েছে দাম।

২ টাকার কোর্ট ফি ৩ টাকায়, ২০ টাকার রেভিনিউ স্টাম্প ও কোর্ট ফি ২৫ টাকায়, ৫০ টাকার কোর্ট ফি রেভিনিউ স্টাম্প ৬০ টাকায় ও ১ শত টাকার কোর্ট ফি রেভিনিউ স্টাম্প ১ শত ১০ থেকে ১ শত ২০ টাকায় বিক্রি করার অভিযোগ পাওয়া যায়।

হবিগঞ্জ জেলা আদালত প্রাঙ্গণ, বার সমিতি ভবন, পুরনো বার সমিতি ভবন, সদর উপজেলা সাব রেজিস্ট্রার কার্যালয় প্রাঙ্গণসহ জেলার বিভিন্নস্থানে সরেজমিন অনুসন্ধানে এসব তথ্যের সত্যতা উঠে আসে। এ সময় কোন কোন স্ট্যাম্প ভেন্ডার নিয়মবহির্ভূতভাবে হবিগঞ্জ জেলা ট্রেজারী শাখা অননুমোদিত রেভিনিউ স্ট্যাম্প ও কোর্ট ফি বিক্রি করছেন বলে দেখা যায়।

হবিগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে জাল রেভিনিউ স্ট্যাম্প ও কোর্ট ফি ও বিক্রি করা হয় বলে তথ্য পাওয়া যায়। জানা যায়, সরকারি নিয়ম অনুযায়ী যত টাকার কোর্ট ফি ও স্টাম্প ঠিক তত টাকায় বিক্রয় করার কথা।

এছাড়া সরকারি নিয়ম অনুযায়ী প্রতিটি স্টাম্প ও কোর্ট ফি’র বিপরীতে স্ট্যাম্প ভেন্ডারদের নির্দিষ্ট মুনাফা ধার্য করা হয়েছে।

নিয়মকানুন থাকলেও এসব নিয়মের থোড়াই কেয়ার করে নিয়মবহির্ভূতভাবে বাড়তি দাম নিচ্ছেন স্টাম্প ভেন্ডাররা। যখন তখন নিজেদের খেয়ালখুশি মতো বিভিন্ন অজুহাতে এসব জিনিসের দাম বাড়িয়েই চলেছেন তারা।

এসব ব্যাপারে কেউ কিছু জিজ্ঞেস করলেই তারা সকলেই উত্তর দেন চাহিদা অনুযায়ী নাকি তারা স্টাম্প ও কোর্ট ফি পান না।