ঢাকাThursday , 16 March 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জে সমাজসেবা-বৃক্ষরোপন ও বইপড়ার শর্তে আসামীদেরকে ১ বছরের কারাদন্ড প্রবেশন

Link Copied!

হবিগঞ্জের আদালত বিচারাধীন দুটি মাদক মামলায় দুই আসামিকে সমাজ সেবামূলক কর্মকা- বৃক্ষরোপণ কর্মসূচিতে অংশ নেয়া ও মুক্তিযুদ্ধের বই পড়ার শর্তে এক বছরের জন্য প্রবেশন প্রদান করেছেন।

বুধবার (১৫মার্চ) হবিগঞ্জের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ জাকির হোসাইন এ আদেশ প্রদান করেন। প্রবেশন প্রাপ্ত আসামিরা হলেন হবিগঞ্জ সদর উপজেলার মামলায় আসামি বহুলা গ্রামের বাসিন্দা আব্দুর রহমানের পুত্র মোঃ পলাশ জামান এবং নবীগঞ্জ থানার আরেকটি মামলার আসামি বানিয়াচং উপজেলার নদীপাড়া গ্রামের মোঃ আব্দুল হকের পুত্র মোঃ সাইদুল হক।

আদালত চারটি শর্তে প্রবেশন প্রদান করনের ফলে যা হলো, প্রবশনকালে মাদকসহ অন্য কোন অপরাধমূলক কর্মকান্ড জড়িত হওয়া যাবে না। আসামীরা আগামী ৬ মাস পর্যন্ত সপ্তাহে একদিন সমাজসেবা অফিস কর্তক নির্ধারিত সামাজিক কাজ সময় দেবেন।

সরকারী রাস্তার পাশ কিংবা কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিজ উদ্যোগে আগামী ১ বছরের মধ্য ৩০টি ফলজ ও ২০টি বনজ গাছ রাপন করবেন।

মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সংক্রান্ত ৩টি বই প্রবেশনকালে অধ্যয়ন করবেন। আদালতে প্রতি দুই মাস অন্তর সদর ও বানিয়াচং উপজেলা সমাজসবা অফিসার শর্ত পালনের বিষয়ে লিখিত প্রতিবদন দাখিলর জন্য নির্দেশ দেয়া হয়। প্রবেশন শেষে আসামীদ্বয়কে মামলার দায় হতে অব্যাহতি প্রদান করা হবে।

জানা যায়, ২০১৭ সালে ২৬ আগস্ট সন্ধ্যা ৭.২০ ঘটিকার সময় নবীগঞ্জ উপজলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সামনে মোঃ সাইদুল হক কে গ্রেফতার করে নবীগঞ্জ থানা পুলিশ ৯ পিছ ইয়াবা উদ্ধার কর মামলা দায়র করেন।

অপর মামলায় ২০১৭ সালের ২ নভেম্বর একটি প্রাইভেট কোম্পানির ম্যানেজার পলাশ জামানকে জেলা গোয়েন্দা শাখা গ্রেফতার করে তার নিকট থেকে ১২ পিস ইয়াবা ও ট্যাবলেট উদ্ধার করে আদালতে মামলা দায়ের করেন।

উল্লেখ্য, প্রবেশন বলতে কোন অপরাধীকে তার প্রাপ্য শাস্তি স্থগিত রেখে, কারাবদ্ধ না রেখে বা কোন প্রতিষ্ঠানে আবদ্ধ না করে সমাজে খাপ খাইয়ে চলার সুযোগ প্রদান করাকে বোঝায় ।

প্রবেশন ব্যবস্থায় প্রথম ও লঘু অপরাধে আইনের সাথে সংঘর্ষে বা সংস্পর্শে আসা শিশু-কিশোরেরা বা অন্য কোন প্রাপ্ত বয়স্ক ব্যক্তিকে প্রথমও লঘু অপরাধে দায়ে কারাগারে বা অন্য কোন প্রতিষ্ঠানে না রেখে আদালতের নির্দেশে প্রবেশন অফিসারের তত্ত্বাবধানে এবং শর্ত সাপেক্ষে তার পরিবার ও সামাজিক পরিবেশে রেখে কৃত অপরাধের সংশোধন ও তাকে সামাজিকভাবে একিভূত করণের সুযোগ দেয়া হয়।