ঢাকাশনিবার , ১৫ আগস্ট ২০২০

হবিগঞ্জে শোক দিবস উপলক্ষে ভার্চুয়াল সভা ও যুব ঋণ বিতরণ করল জেলা প্রশাসন

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
আগস্ট ১৫, ২০২০ ৭:১৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

ছবি : যুব ঋন বিতরণ করছেন বেসামরিক বিমান পর্যটন প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট মাহবুব আলী এমপি।

 

এফ এম খন্দকার মায়া ।। হবিগঞ্জে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর  ৪৫ তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ভার্চুয়াল আলোচনা সভা ও যুব ঋণ বিতরণ করল জেলা প্রশাসন।

শনিবার  (১৫ আগস্ট) সকাল ১০.৩০ মিনিটে জেলা প্রশাসন সম্মেলন কক্ষে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ কামরুল হাসান এর সভাপতিত্বে উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন হবিগঞ্জ ৪ চুনারুঘাট মাধবপুর আসনের সাংসদ  এডভোকেট মোঃ মাহবুব আলী এমপি, প্রতিমন্ত্রী, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়।বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন পুলিশ সুপার মোহাম্মদ উল্ল্যা বিপিএম,পিপিএম।

স্বাধীনতার স্থপতি, মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৪তম শাহাদতবার্ষিকী। জাতি-ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে বাঙালি জাতি গভীর শ্রদ্ধার সাথে পালন করে জাতির পিতাকে হারানোর এ দিনটিকে।

১৯৭৫ সালের শোকাবহ এই কালদিবসের ভোর রাতে সেনাবাহিনীর কিছুসংখ্যক বিপথগামী সদস্য ধানমন্ডির বাসভবনে বঙ্গবন্ধুকে স্বপরিবারে হত্যা করে।

ঘাতকরা শুধু বঙ্গবন্ধুকেই হত্যা করেনি, তাদের হাতে একে একে প্রাণ হারিয়েছেন বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব, বঙ্গবন্ধুর সন্তান শেখ কামাল, শেখ জামাল ও শিশু শেখ রাসেল সহ পুত্রবধু সুলতানা কামাল ও রোজি জামাল। পৃথিবীর এই জঘন্যতম হত্যাকাণ্ড থেকে বাঁচতে পারেননি বঙ্গবন্ধুর অনুজ শেখ নাসের, ভগ্নিপতি আবদুর রব সেরনিয়াবাত, তার ছেলে আরিফ, মেয়ে বেবি ও সুকান্ত বাবু, বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে যুবনেতা ও সাংবাদিক, মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক শেখ ফজলুল হক মণি, তার অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী আরজু মনি এবং আবদুল নাঈম খান রিন্টু ও কর্নেল জামিলসহ পরিবারের ১৬ জন সদস্য ও ঘনিষ্ঠজন। এ সময় বঙ্গবন্ধুর দু’কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা বিদেশে থাকায় প্রাণে রক্ষা পান। বিনম্র শ্রদ্ধায় সেই মহানায়কের প্রতি পুষ্পস্তবক অর্পণ করে বাঙালি জাতি।

১৯৭৫ সালে স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ বিনির্মানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যখন এই ধ্বংস যঙ্গ বাংলাদেশ কে বুকে লালন করে পুনরুজ্জীবিত করার লক্ষ্যে কাজ করেন।ঠিক সেই সময়ে আজকের এই ১৫ আগষ্টের কলঙ্কিত দিনে বিশ্বাস ঘাতক আয়েনার দল,স্বাধীনতার বিরোধী শক্তি পাকিস্তানের ওঁত পেতে থাকা পেতাত্তারা গভীর অন্ধকার ভোর রাতে আকস্মিকভাবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ তার পরিবারের সকল সদস্যদের নির্মম ভাবে হত্যা করে।যে দিন বাংলাদেশের মানুষ কলঙ্কিত দিন হিসাবে জানে।এই দিনে ব্যাথা আক্রান্ত ভরা মন নিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ সকল কে শ্রদ্ধার সাথে স্বরন করে,সকল শহিদদের আত্মার মাগফেরাত কামনায় নেয়া হয় নানা আয়োজন।

উল্লেখ্য আজকের বাংলাদেশের সফল প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা এমপি ও শেখ রেহানা এর দীর্ঘ হায়াত কামনা করেন।এবং আলোচনা সভা শেষে ৫ জন আত্ম কর্মশীল ব্যক্তির মাঝে যুব ঋন বিতরণ করা হয়।

এ সময়ে উপস্থিত ছিলেন সাবেক মহিলা সাংসদ সদস্য এডভোকেট আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরী, হবিগঞ্জ জেলার প্রশাসনিক, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিবৃন্দ বক্তব্য রাখেন।

Developed By The IT-Zone