ঢাকাWednesday , 28 July 2021
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জে লোকসানের মুখে জেলার চামড়া ব্যবসায়ীরা : নেই বর্জ্য শোধনাগার

Link Copied!

তারেক হাবিব :   চামড়াজাত পণ্য বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম রফতানি পণ্য, তা সত্ত্বেও সিন্ডিকেটের কারসাজিতে শিল্পটি বিপন্ন হতে চলেছে। তৃণমূল পর্যায়ে বিক্রেতা ও ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীদের চামড়ার ন্যায্য মূল্য না পাওয়ার পেছনে আমলাতান্ত্রিক জটিলতার সঙ্গে সিন্ডিকেটের দৌরাত্মও রয়েছে।

সারা দেশের মত হবিগঞ্জেও কোরবানীর পশুর চামড়া কিনে চরম বিপাকে পড়েছেন জেলার টেনারী ব্যবসায়ীরা। এদের অনেকেই ধার-দেনা করে লাভের আশায় পশুর চামড়া কিনলেও তা সময়মত বিক্রি করতে না পারায় দারণ ক্ষতির আশঙ্কায় পড়েছেন তারা। তবে একই পরিস্থিতিতে পড়েছেন জেলার মৌসুমী ব্যবসায়ীরাও। পশুর চামড়া কিনে যথেষ্ট খরচ করে দীর্ঘদিন সংরক্ষণ করে বিক্রি করতে পারছেন কাঙ্কিত দামে। উল্টো প্রতি চামড়া বিক্রি করতে হচ্ছে ২’শ থেকে ৩’শ টাকা লোকসানে।

 

 

 

ছবি : ইন্টারনেট থেকে নেয়া

 

 

 

 

এজন্য অবশ্য অনেক ব্যবসায়ী দায়ী করছেন টেনারী মালিকদের। কেউ কেউ আবার বলছেন, টেনারী মালিকরা সিন্ডিকেট করে চামড়ার দাম কমিয়েছেন। চড়াও দামে কিনে সিন্ডিকেটের কবলে পড়ে বিক্রি করতে হচ্ছে অতি কম দামে। বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের কোরবানির ঈদে চামড়া সংগ্রহের জন্য দেয়া প্রায় ৭০০ কোটি টাকা ঋণের বেশির ভাগই আদায় হয়নি।

যদিও এবার কোরবানির পশুর চামড়া কিনতে রাষ্ট্রায়ত্ত চার ব্যাংক থেকে ট্যানারি মালিকদের ১ হাজার কোটি টাকা ঋণ দেয়ার লক্ষ্যমাত্রা ছিল। গত বছরের ঋণের অর্থ আদায় না হওয়ায় এ ঋণ বিতরণ নিয়েও জটিলতা তৈরি হয়।

 

হবিগঞ্জের কয়েকজন টেনারী ব্যবসায়ীরা জানান, চামড়া পক্রিয়াজাত দ্রব্যের মুল্য উধ্বগতি এবং প্রয়োজনীয় দীর্ঘদিন সংরক্ষণ করারমত অবস্থান না থাকায় অল্প সময়ের মাঝেই বিক্রি করতে হয় চামড়া। কাদির মিয়া নামে হবিগঞ্জের এক টেনারী ব্যবসায়ী জানান, চামড়া প্রক্রিয়াজাত করতে লবণের প্রয়োজন হয়। আগে যে দামে লবণ কেনা হত তার দাম এখন আগের তুলনায় তিনগুন। চামড়া গুলো দীর্ঘদিন সংরক্ষণ করতে হয়, সংরক্ষনের জন্য নেই সরকারী ভাবে কোন হিমাঘার।

 

বাংলাদেশ রফতানি উন্নয়ন ব্যুরোর (ইপিবি) তথ্যানুযায়ী, ২০১৪-২০১৫ অর্থবছরে চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য রফতানি করে আয় হয় ১১৩ কোটি ডলার। ২০১৫-২০১৬ অর্থবছরে রফতানি আয় বেড়ে দাঁড়ায় ১১৬ কোটি ডলারে। ২০১৬- ২০১৭ অর্থবছরে এই আয়ের পরিমাণ আরও বেড়ে হয় ১২৩ কোটি ৪০ লাখ ডলার। কিন্তু ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে রফতানি আয় অস্বাভাবিক কমে ১০৮ কোটি ৫৪ লাখ ডলারে দাঁড়ায়। ওই অর্থবছরে চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য খাতে রফতানি আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১১২ কোটি ডলার।

 

আয় হয়েছে ১০১ কোটি ডলার। লক্ষ্যমাত্রার তুলনায় এ ক্ষেত্রে আয় কম হয়েছে ৯ দশমিক ২৭ শতাংশ। হবিগঞ্জ সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বর্ণালী পাল জানান, চামড়া শিল্পের প্রতি সরকার যথেষ্ট সচেতন। হবিগঞ্জে কোথাও এ রকম তথ্য পাওয়া গেলে সঙ্গে সঙ্গে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।