ঢাকাFriday , 28 June 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জে নৌকা তৈরিতে ব্যস্ত কারিগররা

এম এ রাজা
June 28, 2024 11:41 am
Link Copied!

বর্ষা মৌসুমে নৌকা তৈরিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন হবিগঞ্জের বানিয়াচং আজমিরীগঞ্জ ও লাখাই উপজেলার নৌকা কারিগররা। বর্ষায় মৌসুমকে কেন্দ্র করে জেলার তিন উপজেলার নৌকার কারিগর ও কাঠ ব্যবসায়ীরা দিনে রাতে সমান তালে ব্যস্ত সময় পার করছেন। নতুন নৌকা তৈরির যেমন ধুম পড়েছে আবার অনেকেই পুরনো নৌকা মেরামতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন।

বর্ষা মৌসুমে ভাটি এলাকার বাসিন্দাদের যোগাযোগের মাধ্যম হয়ে ওঠে নৌকা। চারদিকে বর্ষায় যখন রাস্তাঘাট তলিয়ে যায়, তখন নৌকা ও কলাগাছের ভেলা হয়ে ওঠে পারাপারের একমাত্র ভরসা। এ কারণে জ্যৈষ্ঠের শুরু থেকেই জেলার এই তিন উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে নৌকা তৈরির কাজ শুরু হয়ে যায়। অনেকে আবার কলাগাছের ভেলা তৈরি করছেন। তবে আগের মতো আর কলাগাছের ভেলা খুব বেশিেএকটা ব্যবহার হয় না। তাই আগের মত আর ভেলার গুরুত্ব নেই।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) বিকেলে সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার বানিয়াচং এর বিভিন্ন গ্রামের নৌকা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন নৌকার কারিগররা। উপজেলার কাগাপাশা গ্রামের বাজারের নৌকা কারিগর চিত্তরঞ্জন দাস বলেন, এই বাজারে ২০ থেকে ৩০ জন নৌকার কারিগর নিয়মিত নৌকা তৈরি করছেন।

এই পর্যন্ত প্রায় ৩০ টি ডিঙ্গি (কোষা) নৌকা বিক্রয় করেছেন। প্রতিটার মূল্য ৫ থেকে ৬ হাজার। এ বছর তিনি ৪ থেকে ৫শ নৌকা বিক্রয় করতে পারবেন বলে আশাবাদী। তিনি আরো জানান যে বছর বর্ষায় বেশি পানি হয় সেই বছর নৌকার ব্যবসাও ভালো হয়। এ পেশায় তিনি প্রায় ২৫ বছর যাবত আছেন।

কামরুল মিয়া নামের আরেক নৌকা ব্যবসায়ী বলেন, বছরের অন্যান্য সময় আমি বিভিন্ন হাটে বিক্রির উদ্দেশ্যে কমদামি খাট, চৌকি, দরজা, জানালা তৈরি করি। আর বর্ষা এলে নৌকা বানাই। এ সময় আমার কারিগররা দম ফেলার সময় পায় না। আমার এখানে যারা কাজ করে প্রতিদিন তাদেরকে ৫ থেকে ৬ শ টাকা মজুরি দেই।

নৌকা কারিগর আব্দুল শহীদ বলেন, এমনিতে আমি টিনের ঘর তৈরি করি। তবে বছরে দুই মাস নৌকা বানাই। বর্ষাকালে ঘরের কাজ একটু কম থাকে। তাই বিকল্প হিসেবে নৌকা বানাই। আর রোজ হিসাব করলে অন্য সময়ের চেয়ে ২ থেকে ৩শ টাকা বেশি মজুরি পাই। ঘরের কাজে আমাদের মজুরি ৬শ টাকা। আর একটি নৌকা বানাতে পারলে পাই ৭শ টাকা। দুই দিনে একটা নৌকা তৈরি করতে পারি।