ঢাকাWednesday , 5 April 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জে টমটম ভাড়া বৃদ্ধির নেপথ্যে কোটি টাকার টমটম বাণিজ্যের অভিযোগ

Link Copied!

হবিগঞ্জ শহরে টমটমের ভাড়া বৃদ্ধির নেপথ্যে রমরমা টমটম বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে। প্রভাবশালীদের টমটম সিন্ডিকেট নিয়ন্ত্রণ করছে হবিগঞ্জ শহরের রাস্তায় চলাচলকারী উল্লেখযোগ্য পরিমাণ টমটমের কোটি টাকার ব্যবসা।

সম্প্রতি টমটম ব্যবসায়ীদের নাছোড়বান্দা চেষ্টায় হবিগঞ্জ পৌরসভা কর্তৃক টমটম ভাড়া ৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে ১০ টাকায় বৃদ্ধি করা হয়। এ নিয়ে যাত্রীরা প্রতিবাদ জানালেও সব পক্ষকে ‘ম্যানেজ’ করে ভাড়ার বিষয়ে এ প্রতিবাদের তোয়াক্কা করা হয়নি। এর নেপথ্য কারণ হিসেবে অনুসন্ধানে উঠে আসে চাঞ্চল্যকর তথ্য।

টমটম চালক ও মালিকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, হবিগঞ্জ শহরের রাস্তায় চলাচলকারী টমটম গাড়ি গুলিকে নিয়ন্ত্রণ করছেন প্রভাবশালী মহল। তথ্য রয়েছে, এদের অনেকেই ৫ থেকে ১০ টি টমটমের মালিক। এসব টমটম গাড়িকে বেকার লোকজনের মধ্যে দৈনিক ভিত্তিতে ভাড়া দেন তারা।

প্রতিটি টমটম গাড়ি প্রতিদিন ৫ শত টাকা থেকে ৫ শত ৭০ টাকায় ভাড়া দেন তারা। শুধু টমটম গাড়ী ভাড়া দেয়া হয় তা নয়, শুধুমাত্র নাম্বার প্লেট ও ভাড়া হয়। হবিগঞ্জ পৌরসভায় চলাচলকারী প্রতিটি টমটম চলাচলের জন্য বছরে ১০ হাজার টাকা ফি দিয়ে হবিগঞ্জ পৌরসভার নিকট থেকে নাম্বার প্লেট সংগ্রহ করতে হয়।

ওই নাম্বার প্লেটগুলি সংশ্লিষ্ট মহলকে ম্যানেজ করে বাগিয়ে নিয়েছেন অনেকে। কেউ কেউ ২০ থেকে ২৫ টি নাম্বার প্লেট নিজের দখলে এনেছেন। প্রতিদিন ১ শত ৫০ টাকা করে এসব নাম্বার প্লেট ভাড়া দেন তারা। মাসিক চার হাজার টাকা করে ভাড়া নেয়া হয় একটি নাম্বার প্লেটের।

এসব নাম্বার প্লেট আবার কেনাবেচা ও হয়ে থাকে। একেকটি নাম্বার প্লেট ১ লক্ষ থেকে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকায় বিক্রি হয়। হবিগঞ্জ পৌরসভা এখন পর্যন্ত ১৩ শত টমটমের নাম্বার প্লেট প্রদান করেছে বলে জানা গেছে।

প্রতিটি টমটম নাম্বার প্লেট বাবদ ১০ হাজার টাকা করে নেয়া হলে এবছর ১ কোটি ৩০ লক্ষ টাকার আদায় করার কথা। এছাড়া শৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণের কথা বলে মাসিক একশত টাকা করে মোট ১ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা আদায় করা হয়। শুধুমাত্র একটি লেমোনেটিং করা কার্ড বাবদ ৫০ টাকা করে টমটম প্রতি আদায় করেছে হবিগঞ্জ পৌরসভা।

হবিগঞ্জ পৌরসভার নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ ফয়েজ আহমেদের সাথে কথা বলে টমটম এর নাম্বার প্লেট এর ফি এর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়। ভর্তুকি মূল্যের সরকারি বিদ্যুৎ ব্যবহার করে টমটম গুলি পরিচালিত হলেও এভাবে বিভিন্ন খাতে টাকা বেরিয়ে যাওয়ায় টমটম চালকেরা বেশ চাপে রয়েছেন।

এ চাপ এসে শেষ পর্যন্ত টমটমের ভাড়া ৫ টাকা থেকে ১০ টাকা হয়ে যাত্রীদের ঘাড়ে চেপেছে বলে অনেকেই মন্তব্য করেন।

এদিকে টমটমের ভাড়া নিয়ে যাত্রীদের সাথে চালকদের বাক-বিত-া থেকে হাতাহাতি পর্যন্ত ঘটে চলেছে বলে তথ্য রয়েছে। টমটম ভাড়া পূর্বের ন্যায় ৫ টাকা গ্রহণ করা অথবা কিলোমিটার প্রতি দুই টাকা করে নেয়ার জন্য যাত্রীদের অব্যাহত চাপের মুখেও পৌরসভা কর্তৃপক্ষ এখনো অটল রয়েছে।

এ বিষয়ে হবিগঞ্জ পৌরসভার নির্বাহী কর্মকর্তা ফয়েজ আহমেদ জানান, যাত্রী সাধারণের বেশি অসুবিধা হলে কিংবা সেরকম কোনো পরিস্থিতির উদ্ভব হলে পৌরসভা কর্তৃপক্ষ টমটম ভাড়া কমানোর বিষয়টি পুনঃবিবেচনা করবে।