ঢাকাশনিবার , ৮ অক্টোবর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জে জাল সনদ দিয়ে মাদ্রাসার পদ ভাগিয়ে নিলেন দুই শিক্ষক !

রায়হান উদ্দিন সুমন
অক্টোবর ৮, ২০২২ ৭:০৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ১০নং লস্করপুর ইউনিয়নের নূরে মোহাম্মদীয়া সুন্নিয়া দাখিল মাদ্রাসায় ভূয়া বিজ্ঞাপন ও ভুয়া অভিজ্ঞতার সনদ দেখিয়ে সুপার পদ ভাগিয়ে নিলেন বদরুর রেজা সেলিম ও সহ সুপার জাহাঙ্গীর আলম। জানা যায়,২০২০ সালে সারা বাংলাদেশে এক যুগে নন এমপিও মাদ্রাসা এমপিও ভুক্তের তালিকায় আনা হয়।

তালিকায় নূরে মোহাম্মদী মাদ্রাসার নামও রয়েছে। উক্ত সময়ে বদরুর রেজা সেলিমের ভিতরের শয়তানিকে কাজে লাগিয়ে নূরে মোহাম্মদীয়া সুন্নিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার পদ নিজ দখলে নিয়ে আসেন ও বাকি পদ বাণিজ্য করেন লাখ লাখ টাকা।

তথ্যানুসন্ধানে জানা যায়, এমপিও ভুক্ত হওয়া নূরে মোহাম্মদীয়া সুন্নীয়া দাখিল মাদ্রাসার অফিস সহকারী পদ বিক্রি করেও ক্ষান্ত হননি অত্র মাদ্রাসার সুপার বদরুর রেজা সেলিম। সভাপতি ও কমিটিকে এড়িয়ে গিয়ে নিয়োগ দিয়েছেন সহকারী জুনিয়র মৌলভী মোছাঃ রেফা বেগমকে।

রেফা বেগমকে ২০০৪ সালের নিয়োগ দেখিয়ে ০০০২১৯৪ ইনডেক্স ধারী করে সদ্য এমপিও ভুক্ত বেতন ভুক্ত সহকারী জুনিয়র মৌলভী পদে বেতন উত্তোলন করাতে সক্ষম হন অত্র মাদ্রাসার সুপার বদরুর রেজা সেলিম। ২০০৫ সালের নীতিমালা অনুসারে মোছাঃ রেফা বেগম সহকারী জুনিয়র মৌলভী পদ পাওয়ার কোনো যোগ্যতাই তার ছিল না।

এনটিআরসি কর্তৃক নিবন্ধন পাস করার সারটিফিকেট না থাকায় রেফা বেগমকে ২০০৪ সালে প্রতিষ্ঠাকালীন হতে নিয়োগ দেখিয়ে অত্র মাদ্রাসার মাঝে বিতর্কিত বর্ণবাদী আচরণ তৈরী করেছেন সুপার বদরুর রেজা সেলিম। বিষয়টি নিয়ে বঞ্চিত শিক্ষক শিক্ষিকা ও কর্মচারীদের মনে সন্দেহ জাগে। কয়েক বছর অত্র মাদ্রাসায় সততার সহিত নিরলসভাবে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ভেবে বিনা বেতনে চাকুরী করে এসেছেন তারা। অথচ তাদেরকে বাদ দিয়ে নতুন অতিথি হিসেবে স্থান পেল রেফা বেগম।

সবার মনে একই প্রশ্ন জাগে কে সেই ব্যক্তি উড়ে এসে জুড়ে বসে গেল? এই রেফা বেগমের কথা ছড়াছড়ি হয়ে গেলে আশে পাশের গ্রামের মানুষের মধ্যে জানার আগ্রহ প্রবল হয়। অত্র প্রতিষ্ঠানের আশে পাশে তিন চার গ্রামের ভিতর তার বাড়ি নয়। খোঁজ নিয়ে জানা যায় বাহুবল থানার লামাতাসী গ্রামে তার বাড়ি। ঠিক যেন এক অদ্ভুত মিলনের চুম্বকীয় গুণাবলী।

অত্র প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাকালীন সুপার হিসাবে যাকে নিয়োগ দেখানো হয়েছে তার বাড়ি ও লামাতাসী গ্রামে। লোক মুখে আওয়াজ উঠে তিন চার গ্রামের মধ্যে কি কোনো রেফা বেগমের মত যোগ্য ব্যক্তি ছিল না? অনেকেই ছিল কিন্তু অত্র মাদ্রাসার সুপার নিয়োগ বানিজ্য নিয়ে মেতে উঠেছেন। কে সেই রেফা বেগম? জানতে গিয়ে জানা গেল, সে আর কেউ না অত্র প্রতিষ্ঠানের সুপার সেলিমের আপন চাচাতো বোন।

কথায় আছে রক্তের টান রক্তেই টানে। শেষ রক্ষা হল কি বদরুর রেজা সেলিমের নাকি তার ভিতর আরো গোমর লুকিয়ে আছে। সেলিমের এই রেফা বেগমের প্রতি আত্নীয় বন্ধনে কমিটির স্বজনপোষণ করে চালিতে দিলেন দুর্নীতির কাজ।

অবশেষে দুর্নীতি করে রেফা বেগম আজ বেতন ভুক্ত সহকারী মৌলভী নিয়োগ দেখিয়ে বঞ্চিত হলেন পুরনো শিক্ষিকারা। ২০০৪ সাল হতে অদ্যবধি পর্যন্ত রেফা বেগমের কোনো ক্লাস অত্র মাদ্রাসার ছাত্র ছাত্রী করেছেন বলে কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি।

অথচ রেফা বেগমকে অত্র মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাকালীন হতে নিয়োগ প্রাপ্ত দেখানো হয়েছে। দেখানো হয়েছে সকল জালিয়াতি ডক্যুমেন্টস ও ইন্টেলিজেন্সী প্রক্রিয়ায় নতুন অত্র মাদ্রাসার স্টাফ হাজিরা খাতাসহ রেফা বেগমের উপস্থিতি। অত্র মাদ্রাসার শুরু হতে নিয়োগ প্রাপ্ত অফিস সহকারী মোছাঃ ছফিনা খাতুনের সাথে আলাপ করে জানা গেল রেফা বেগম কে সে চিনেন না।

সদ্য এমপিও ভুক্ত হওয়ার পর আজ প্রথম জানলেন গায়েবী সহকারী জুনিয়র মৌলভী রেফা বেগম নামের একজন রাতের আধারে এসে অত্র মাদ্রাসায় হাজিরা দিতেন। অথচ সেই অফিস সহকারী ছফিনা খাতুন ও আজ নিজ পদ বঞ্চিত। যে ছফিনা খাতুন নিরলসভাবে পরিশ্রম করে এসেছিলেন অত্র মাদ্রাসার জন্য সেই ব্যক্তি আজ সেলিমের পদ বিক্রির লালসার স্বীকার হয়েছেন। নিয়োগ বানিজ্য করতে যা যা প্রয়োজন ছিল অত্র মাদ্রাসার সুপার সেলিম ও তার সহচর সহ সুপার পদের আশায় জাহাঙ্গীর আলম ও সেলিমের দুর্নীতির পক্ষে।

সভাপতি ও কমিটির সদস্যরা ঘরে বসে বসে শুধু গোপাল বারের মতো বুদ্ধির খোঁটা নেড়ে নেড়ে নিয়োগ বাণিজ্যের টাকা খাচ্ছেন। এ দিকে বদরুর রেজা সেলিম নূরে মোহাম্মদীয়া সুন্নিয়া দাখিল মাদ্রাসার সুপার পদে নিজেকে আসিন করিতে ভূয়া অভিজ্ঞতার জাল সনদ দেখিয়ে নিজেই সুপার পদে নিয়োগ প্রাপ্ত হয়ে ভাগিয়ে নিয়েছেন এমপি’রও ছাড়ও।

অপর দিকে বনগাঁও গ্রামের এক স্থায়ী বাসিন্দা জাহাঙ্গীর আলম কে সহ সুপার পদে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে নিয়োগ প্রদান করেন বলে জানা গেছে। বিষয়টি নিয়ে চারদিকে গুঞ্জন থাকলেও সত্য বলে প্রতিয়মান। সহ সুপার পদে নিয়োগ দিতে গেলে এমপিও নিয়ম অনুযায়ী দশ (১০) বছরের ইন্ডেক্স ধারী অন্য যেকোনো মাদ্রাসার অভিজ্ঞতা সনদ বাধ্যতামূলক থাকলেও সেলিমের ঘুষের বাণিজ্যর কাছে অভিজ্ঞতার জাল সনদ দেখিয়ে সহ সুপার নিয়োগ প্রাপ্ত হোন জাহাঙ্গীর আলম।

বিষয়টি হবিগঞ্জ জেলা শিক্ষা অফিসার রুহুল্লাহ জানলে ও এ নিয়ে কোনো মাথা ব্যথা দেখা যায়নি তার। উক্ত মাদ্রাসার নিয়োগ সংক্রান্তের বিষয় নিয়ে শিক্ষা অধিদপ্তরে নানান অভিযোগ থাকার পরও এখনো শিক্ষা মন্ত্রণালয় নিরবতা পালন করছেন।

কথা হয় নুরে মোহাম্মদীয়া মাদ্রাসার সহকারী সুপার জাহাঙ্গীর আলমের সাথে। তিনি জানান,আপনি যেভাবে বিষয়টা জানছেন সেটা আসলে তা নয়। নিউজ করার দরকার হলে আমার সুপারের সাথে কথা বলে নিউজ করুন। এছাড়া অন্য কিছু আমি জানি না।

নুরে মোহাম্মদীয় সুন্নীয় দাখিল মাদ্রাসার সুপার বদরুর রেজা সেলিমের সাথে। এই প্রতিনিধিকে তিনি জানান,আমি শুরু থেকেই এই প্রতিষ্ঠানে আছি। এমপিওভুক্ত প্রতিষ্ঠানে নিবন্ধন দিয়ে আবেদন করা যায়। আমাদের অভিজ্ঞতা সার্টিফিকেট নাই সেটা সত্য। তবে মুল বেতনের চেয়ে আমরা কম বেতন নিচ্ছি। নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হলে অভিজ্ঞতার সার্টিফিকেট লাগেনা বলেও তিনি জানিয়েছেন। আর নিয়োগ সংক্রান্ত কোনো রেকর্ড নাই বলে বদরুর রেজা সেলিম নিজে স্বীকার করে নিলেন।

বিস্তারিত জানতে জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোহাম্মদ রুহুল্লাহর সাথে কথা হলে তিনি জানান,এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে নিয়োগ প্রদান করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। এখানে আমাদের কোন হাত নেই। তারপও এটার বিষয়ে যদি কোন কিছু থেকে থাকে অভিযোগ পেলে সেটা খতিয়ে দেখে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিব।

Developed By The IT-Zone