ঢাকাFriday , 16 July 2021
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জে জমে উঠেছে ঈদ বাজার : বালাই নেই স্বাস্থ্যবিধির

Link Copied!

তারেক হাবিব :  একটানা ১৪ দিন লকডাউনের পর করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি থাকলেও জেলার বাজার গুলোতে জমে উঠেছে ঈদ বাজার। হবিগঞ্জ শহরের বিপণি বিতানগুলোতে উপচেপড়া ভিড় দেখা গেলেও স্বাস্থ্যবিধি মানতে উদাসীন ক্রেতা-বিক্রেতারা।

বৃহস্পতিবার (১৫জুলাই) সকালে শহরের বিপণী বিতান গুলোতে সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায়, মুখে মাস্ক থাকলেও অনেকে ক্রেতারা-বিক্রেতারা মানছেন না সামাজিক দূরত্ব। ঈদের পোশাকসহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র কিনতে দোকানগুলোতে হুমড়ি খেয়ে পড়ছেন ক্রেতারা।

বাচ্চাদের জন্য কেনাকাটা করতে আসা গৃহবধু রুবি বেগম জানান, ঈদে নিজেদের জন্য না হলেও বাচ্চাদের জন্য নতুন জামা-কাপড় কিনতে হবে। তাই ঝুঁকি নিয়েও বাজারে এসেছেন তিনি। পুষ্পা আক্তার নামে আরেক ক্রেতা বলেন, মানুষের ভিড় কম হবে তাই সকাল-সকাল মার্কেটে এসেছি। কিন্তু এসে দেখি ক্রেতাদের অনেক ভিড়। সন্তানদের বায়না মেটাতে মার্কেটে আসা।

 

 

 

ছবি : ঈদকে সামানে রেখে বাজারে দাম কমেছে- পেয়াজ, রসুন, এলাচ, দারুচিনি এবং আদা’র।

 

 

 

একাধিক দোকান মালিক বলেন, আমরা চেষ্টা করছি সর্বোচ্চ স্বাস্থ্যবিধি মেনে ব্যবসা পরিচালনা করতে। কিন্তু দীর্ঘদিন মার্কেট বন্ধ থাকায় মানুষের ভিড় বেড়ে গেছে। তবে আমরা সামাজিক দূরত্ব ও মুখে মাস্ক ব্যবহারের করে ক্রেতাদের দোকানে আসতে অনুরোধ করছি। শুধু বিপণী বিতান গুলোতেই নয়, আসন্ন কোরবানী ঈদের আগে জেলার বৃহৎ বাজার গুলোতে বেশ জমে উঠেছে মসলার বাজার।

নিত্য প্রয়োজনীয় রান্নার মসলার দোকানগুলোতে এখন ক্রেতাদের ভীড়। দাম নিয়ে ক্রেতা-বিক্রেতার চিরচেনা দ্বন্ধের মাঝে সরবরাহ রয়েছে স্বাভাবিক। নতুন করে দামের কারসাজির আর কোন অবস্থা নেই বলে জানান ব্যবসায়ীরা।

এদিকে, এবার কোরবানি ঈদের আগে পাইকারি বাজারে দাম কমেছে পেঁয়াজ, রসুন ও আদার। পাইকাররা জানিয়েছেন, গেল ১৫ দিনে পেঁয়াজ, রসুনের দাম কেজিতে দুই থেকে ১০ টাকা পর্যন্ত কমেছে। আর আদার দাম কমেছে কেজিতে ২০ থেকে ৩০ টাকা। সরবরাহের তুলনায় চাহিদা কম থাকায় দাম কমেছে বলে জানিয়েছেন তারা।

আগামী সপ্তাহেই কোরবানির ঈদ। তাই এখন বাজার জমজমাট থাকার কথা। কিন্তু পাইকাররা বলছে পেঁয়াজ, রসুন এবং আদার সরবরাহ ভালো কিন্তু লক-ডাউনের প্রভাবে ক্রেতা একেবারেই কম তাই বিক্রিও কম। পাইকাররা বলছেন ক্রেতা না থাকায় অনেক আড়তের পণ্য পচে নষ্ট হয়েছে, এমন অবস্থায় দেশী আদা ৪০ টাকা কমে প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ১৩০ টাকায়। বার্মিজ আদা ছিলো ৭০ টাকা কেজি এখন ৬২। দেশি রসুন দুই সপ্তাহ আগেও ছিলো ৪০ কি ৪৫ টাকা এখন কেজি ৩৮ টাকা। তবে পাইকাররা বলছেন পণ্যবাহী গাড়ি লক- ডাউন মুক্ত থাকায় পেঁয়াজ, রসুন এবং আদার সরবরাহে কোন সমস্যা হয়নি।

 

করোনায় মহামারীতে হাঠ-বাজার নিয়ে নানা বিধি নিষেধ থাকলেও কোরবানীর পশু কেনা নিয়ে যুক্ত নতুনত্য, অনেকেই অনলাইন পেইজ বা ফেসবুকের আইডি থেকে পশুর ছবি পোস্ট করে শুরু করেছেন বেচা-কেনা। কোরবানির ঈদকে ঘিরে হবিগঞ্জের বাজার গুলোতে জমতে শুরু করেছে পশুর হাট। তবে করোনাভাইরাস সংক্রমণ এড়াতে স্থানীয় প্রশাসন স্বাস্থ্যবিধি মেনে পশুর হাটে কেনাবেচার নির্দেশনা দিলেও কোনো হাটেই তা মানা হচ্ছে না।

সংক্রমণের শঙ্কা থাকলেও ক্রেতা-বিক্রেতাদের কেউই মানছেন না স্বাস্থ্যবিধি। হবিগঞ্জ পৌর গরুর বাজার ঘুরে দেখা গেছে, দেশি ও বিদেশি বড় আকৃতির গরু যেমন উঠেছে তেমনি মাঝারি ও ছোট সাইজের গরুও উঠেছে। তবে অন্যান্য বছরের চেয়ে এবার বাজারে গরু উঠেছে অনেকটা কম। কিন্তু সেখানেও স্বাস্থ্যবিধি বা সামাজিক দূরত্ব না মেনেই চলছে কেনাবেচা। কেউই মানছেন না স্বাস্থ্যবিধি।

অনেকেই স্বাস্থ্য ঝুঁকির কথা জেনেও পরেন না মাস্ক। কারও কারও কাছে মাস্ক দেখা গেলেও তা ঝুলছিল থুতনিতে। ইজারাদাররা হাটে প্রবেশের আগে হাত ধোয়ার ব্যবস্থা রাখলেও অনেকেই তা গুরুত্ব দিচ্ছেন না। দূরত্ব বজায় না রেখে করছেন পশু বেচাকেনা।

গরু কিনতে আসা কয়েকজন জানান, মাস্ক পরে স্বাস্থ্যবিধি মেনে গরুর বাজারে এসেছি কোরবাণীর গরু ক্রয় করতে। কিন্তু এখানে স্বাস্থ্যবিধি অনেকেই মানছেন না। করোনা নিয়ে কারও ভীতি নেই। পশুর হাটে পুরোদমে বেচাকেনা শুরু হলে সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে যাবে।