ঢাকারবিবার , ১৬ জানুয়ারি ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জের ফসলি জমির প্রাণ পুড়ছে ইটভাটায়

আলফু মিয়া,সদর প্রতিনিধি
জানুয়ারি ১৬, ২০২২ ১:১৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জের ধানি জমির বুক চিরে মাইলের পর মাইল ছুটে চলছে যন্ত্রমানব ট্রাক্টর। উদ্দেশ্য একটাই ফসলি জমি থেকে উর্ভর মাটি উত্তোলন করে ইট ভাটায় নিয়ে যাওয়া।

অত্যাধুনিক ভেকু মেশিন দিয়ে জমির মাটি ধানি জমির উপরিভাগে চলে মাটি কাটার কর্মযজ্ঞ। সে মাটি সংগ্রহে ব্যস্ত অসংখ্য ইটভাটার শ্রমিক। সরকারি আইনকে দেখানো হচ্ছে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে ফসলি জমির প্রাণ পোড়ানো হচ্ছে ইটভাটায়। কিন্তু এতে নজর নেই হবিগঞ্জের প্রশাসনের।

হবিগঞ্জ জেলার প্রায় সবকটি উপজেলায়ই নিয়মিত ইটভাটায় আইন লঙ্ঘন করে ফসলি জমির মাটি দিয়ে ইট তৈরি করা হচ্ছে। সাধারণ কৃষককে নগদ টাকার লোভ দেখিয়ে সংগ্রহ করছে আবাদি জমির উপরি ভাগের (টপ সয়েল) মাটি।

দালালদের খপ্পরে পরে কতিপয় জমির মালিক লোভে পড়ে ইটভাটায় মাটি বিক্রি করছেন। এদিকে আইন থাকলেও প্রশাসন তা প্রয়োগ করছে না অজ্ঞাত কারণে। তাই অবাধে চলছে জমির উপরিভাগের মাটি বিক্রি। এর সাথে পুড়ছে কৃষকের স্বপ্ন উৎপাদনে রয়েছে ধস নামার আশঙ্কা, নজর নেই প্রশাসনের।

সরেজমিনে দেখা যায়, হবিগঞ্জ জেলার সদর উপজেলার বেশির ভাগ ফসলি জমির টপ সয়েল কেটে তৈরি করা হচ্ছে ইট। ভাটার মালিকদের ব্যক্তিগত নিয়োগকৃত এজেন্ট বা দালাল এবং এক শ্রেণির ভূমি দস্যু কৃষকদের সাথে ছলচাতুরী করে জমির উপরিভাগের মাটি বিক্রি করতে বাধ্য করছেন।

কৃষি জমি থেকে এভাবে ইট তৈরির মাটি সংগ্রহ ভাটা স্থাপন নিয়ন্ত্রণ আইনের সুস্পষ্ট লঙ্ঘন। উদ্ভিদের বেঁচে থাকার জন্য যে পুষ্টির প্রয়োজন তা সাধারণত মাটির উপরিভাগে থাকে। যা উদ্ভিদ বা ফসলের জন্য অতি প্রয়োজনীয়। কিন্তু জমির উপরিভাগের মাটি কেটে নেয়ার ফলে জমি থেকে এসব পদার্থ চলে যাচ্ছে ইট ভাটায়। যা ফসলের জন্য অপূরণীয় ক্ষতির কারণ।

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার নোয়াবাদ এলাকার কৃষক নাজমুল ইসলাম ,মজনু মিয়া,রফিক মিয়া সহ জেলার অনেক কৃষকরা অভিযোগ করে বলেন, প্রতিটি ইটভাটায় গড়ে ২২ থেকে ২৮ লাখ ইট তৈরি করতে প্রায় সাড়ে ছয় কোটি ঘনফুট মাটি ও বালু ব্যবহার করা হয়। তাই নাগরিক সমাজের দাবি, ফসলি জমিতে ইট ভাটা তৈরি বন্ধ বা অভিযুক্তদের আইনের আওতায় না এনে সঠিক আইন প্রয়োগ করে দ্রুত এসমস্ত লোকদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।

এভাবে চলতে থাকলে ভবিষ্যতে জেলার কোনো জমিতে ফসল উৎপাদন তো দূরের কথা এ অঞ্চল বিরান ভূমিতে পরিণত হবে। ফসলি জমির মাটিকাটার শ্রমিকরা জানান, আমরা ভাড়ায় মাটি কাটি।হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ধুলিয়াখাল টু মিরপুর রোডস্থ অবস্থিত সকল ইট ভাটায় কাজ করে আসছি।

প্রশাসনের লোকজন আসে আমাদেরকে দেখে কিছু প্রশ্ন করে আবার চলে যায়। এইভাবেই চলছে আমাদের মাটি কাটা। তবে হবিগঞ্জ জেলার ইটভাটা মালিক সমিতির সভাপতি মোতাব্বির মিয়া ফসলি জমির মাটি কেটে ইটের ভাটায় নেয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন, ইটের ভাটায় ফসলি জমির মাটি যাচ্ছে না। জমির মালিকরা প্রজেক্ট করলে মাটির সরদারের কাছে মাটি বিক্রি করলে তারা আমাদের ইটের ভাটায় দেন।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার কৃষি কর্মকর্তারা জানান, আমাদের ফিল্ড অফিসাররা কৃষকদের মাটি বিক্রি থেকে বিরত থাকার জন্য সব সময় পরামর্শ দিয়ে থাকেন।কিন্তু মাটির বিষয়টি উপজেলা কর্মকর্তারা অনুমোদন দিয়ে থাকেন বলেও জানান।

এলাকাবাসীর অভিযোগ উৎকোচ ও রাজনৈতিক প্রভাবে পরিবেশ অধিদফতর থেকে ছাড়পত্র ছাড়াই জেলা প্রশাসক কার্যালয় থেকে লাইসেন্স নিয়ে ইটভাটা গড়া হচ্ছে। হাজার হাজার মানুষের ক্ষতি করা হলেও প্রশাসনের পক্ষ থেকে এর কোনো প্রতিকার করা হচ্ছে না।

Developed By The IT-Zone