ঢাকারবিবার , ১৯ জুন ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

হবিগঞ্জের খোয়াই নদীর বাঁধ ভেঙে আরো ৮টি গ্রাম প্লাবিত

এম এ রাজা
জুন ১৯, ২০২২ ৯:১৮ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জের খোয়াই নদীর বাঁধ ভেঙ্গে নতুন করে আরও ৮টি গ্রাম প্লাবিত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। শনিবার (১৮ জুন) বিকেল ৫টার দিকে সদর উপজেলার লোকড়া ইউনিয়নের গোপালপুর নামক স্থানে খোয়াই নদীর বাঁধ ভাঙার ঘটনা ঘটে।

নতুন প্লাবিত গ্রাম গুলো হল ,যাদবপুর, গোপালপুর,গোয়াল নগর,মুতুরানগর,জয়নগর সহ আরো কয়েকটি গ্রাম। সাদমান দাস নামের স্থানীয় এক যুবক জানান ,বিকেলে হঠাৎ করেই খোয়াই নদীর বাঁধ ভেঙে যাওয়ায় আশেপাশের বেশ কয়েকটি গ্রামের মানুষের ঘর বাড়িতে পানি ঢুকে গেছে।এ বিষয়ে হবিগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মিনহাজ আহমেদ শোভন জানান, শহর থেকে দূরে ভাটি অঞ্চলে নদীর বাঁধ ভাঙ্গায় নদীর পানির বেগ অনেকটাই কমে গেছে। এতে করে শহর মোটামুটি নিরাপদ বলে আমরা মনে করছি।

এর আগে টানা বৃষ্টির কারণে ভারত থেকে নেমে আসা ঢলে সিলেট-সুনামগঞ্জ এর পাশাপাশি হবিগঞ্জের আজমিরীগঞ্জ ও নবীগঞ্জে বন্যা দেখা দিয়েছে।এছাড়া দেশে গত দুইদিনের বৃষ্টি আর উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে কালনী-কুশিয়ারাসহ বিভিন্ন নদ-নদীর পানি দ্রুত বাড়তে থাকে। এতে করে প্রতিনিয়ত প্লাবিত হচ্ছে ভাটি অঞ্চলের একাধিক গ্রাম।

এ নিয়ে এখন পর্যন্ত প্রায় ৭০টি গ্রামের হাজারো পরিবার পানিবন্দি হয়ে পরেছেন। বন্যায় কবলিতদের আশ্রয়ন কেন্দ্রে নেয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বন্যার্থদের মধ্যে খাদ্য সহায়তা পৌঁছে দেয়া হচ্ছে।

গত শুক্রবার বিকেলের দিকে কুশিয়ারা নদীর পানি বেড়ে বাঁধ ডুবে যায়, এতে করে হাওরে পানি ডুকতে থাকে প্লাবিত হয় ওই এলাকার নিজ গ্রাম গুলো। এছাড়াও ডুবে যায় আজমিরীগঞ্জ-পাহারপুর ও আজমিরীগঞ্জ-কাকাইলছেও সড়ক। এতে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায় আজমিরীগঞ্জ উপজেলার কয়েকটি ইউনিয়নের মানুষের।

শুক্রবার রাত থেকে বৃষ্টিপাতের কারণে নদ-নদীর পানি আরও বাড়তে থাকে। শনিবার সকালে পাহাড়পুর-মারকুলি সড়কের নিখলির ঢালা এবং ফিরোজপুর-বদলপুর সড়কের কৈয়ার ঢালায় কুশিয়ারা নদীর বাঁধ ভেঙে যায়। এতে করে প্রবল বেগে লোকালয়ে পানি ঢুকে প্লাবিত হতে থাকে একের পর এক গ্রাম।

আজমিরীগঞ্জ পৌরসভার ভিতরে আদর্শনগর, জয়নগর, শরীফনগর এলকায় অন্তত ২শতা শতাধিক পরিবার পানিবন্দি হয়ে পরে। এছাড়া ফিরোজপুর, পাহাড়পুর, কাকাইলছেও ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রাম ও মারকুলি এলাকায় বেশ কয়েকটি গ্রামে পানিবন্দি হয়ে পরেন কয়েকশ’ পরিবার।

পানিবন্দি মানুষদের জন্য ইতিমধ্যে, জেলা প্রশাসনের ৪০ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার প্রস্তুত করা হয়েছে, পাঠানো হচ্ছে সুনামগঞ্জ ও সিলেটে এর মধ্যে ৫ হাজার প্যাকেট পাঠানো হয়েছে সুনামগঞ্জ জেলায়, আরো ৫হাজার পাঠানো হবে সিলেটে। বাকি ৩০ হাজার প্যাকেট খাবার বিতরণ করা হবে হবিগঞ্জের পানি বন্দি মানুষদের মধ্যে।

Developed By The IT-Zone