ঢাকাSaturday , 1 April 2023

স্যানিটারি ন্যাপকিনের সহজলভ্যতার অভাবে স্বাস্থ্যঝুঁকিতে হবিগঞ্জের চা বাগান ও হাওরাঞ্চলের নারীরা

Link Copied!

নারীদের পিরিয়ড বা মাসিককালীন স্বাস্থ্য পরিচর্যা বা পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতার ঘাটতিতে বিভিন্ন ধরনের অসুখ-বিসুখে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এজন্য চিকিৎসকরা ওই সময়ে নারীদেরকে স্যানিটারি ন্যাপকিন বা স্যানিটারি প্যাড ব্যবহারের পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

কিন্তু এখনও হবিগঞ্জ জেলার চা বাগান ও হাওরাঞ্চলের গ্রামগুলোতে এ ব্যাপারে অধিকাংশ নারীদের মধ্যে অসচেতনতা রয়েছে। এছাড়া এসব অঞ্চলে এখনও স্যানিটারি ন্যাপকিন সহজলভ্য হয়ে উঠেনি। ফলে এই আধুনিক এবং ডিজিটাল যুগেও স্বাস্থ্যঝুঁকিতে রয়েছেন এসব অঞ্চলের নারীসমাজ।

হবিগঞ্জের অগ্রসর চিন্তার নারীদের কাছ থেকে জানা গেছে, জেলার চা বাগানগুলোর নারী শ্রমিক ও তাদের বয়োঃসন্ধিকাল অতিক্রম করা কন্যা সন্তানেরা মাসিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা জ্ঞানের অভাবে এবং স্যানিটারি ন্যাপকিন কেনা তাদের সামর্থের বাহিরে হওয়ায় অনেকেই পুরাতন ও অনিরাপদ কাপড় ব্যবহার করে থাকেন।

ফলে প্রজনন অঙ্গে চুলকানি, জ্বালাপোড়াসহ বিভিন্ন রোগে ভুগেন। তাদেরকে এসব অসুখ-বিসুখ থেকে রক্ষা করতে মাসিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা সম্পর্কে সচেতন করার পাশাপাশি মাঝেমধ্যে বিনামূল্যে স্যানিটারি ন্যাপকিন বিতরণ করে থাকেন বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন হবিগঞ্জ জেলা সংসদের সাবেক সভাপতি ও কেন্দ্রীয় সংসদের সাবেক সদস্য উন্নয়নকর্মী মাহমুদা খাঁসহ অনেকে।

মোহন রবিদাস, খাইরুন আক্তারসহ চা শ্রমিক জনগোষ্ঠীর শিক্ষিত অনেক যুবক-যুবতীদেরকেও এধরণের কাজ করতে দেখা যায়।

এদিকে হাওরাঞ্চলের গ্রামগুলোতেও মাসিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা জ্ঞানের অভাব বা অসচেতনতার কারণে অনেক নারীরা পুরাতন ও অনিরাপদ কাপড় ব্যবহার করে প্রজনন অঙ্গের বিভিন্ন অসুখ-বিসুখে আক্রান্ত হওয়ার কথা স্বাস্থ্যকর্মী ও চিকিৎসকদের কাছ থেকে জানা গেছে।

অনেকের স্যানিটারি ন্যাপকিন কিনে ব্যবহার করার সামর্থ থাকলেও লাজলজ্জাবশতঃ মাসিকের সময় নিজের পুরাতন কাপড় ব্যবহার করে থাকেন। অনেকের মধ্যে স্বাস্থ্য সচেতনতা গড়ে ওঠায় বাড়ীর পুরুষ সদস্যদের মাধ্যমে বাজার থেকে স্যানিটারি ন্যাপকিন কিনে ব্যবহার করছেন।

তবে চাহিদার তুলনায় এখনও গ্রামগঞ্জের বাজারগুলোতে স্যানিটারি ন্যাপকিনের সরবরাহ কম বলে মনে করছেন অনেকে। একারণেও ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও কেউ কেউ স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহার করতে পারেন না।

এক্ষেত্রে গ্রামগঞ্জের নারীদের মধ্যে বিনামূল্যে স্যানিটারি ন্যাপকিন বিতরণের জন্য সরকারিভাবে প্রত্যেক কমিউনিটি ক্লিনিকে প্রতিমাসে পর্যাপ্ত স্যানিটারি ন্যাপকিন সরবরাহের দাবি জানিয়েছেন নারী অধিকারকর্মীরা।

একই সাথে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতেও ছাত্রীদের মধ্যে বিনামূল্যে স্যানিটারি ন্যাপকিন সরবরাহ এবং প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মেয়েদের মাসিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা উপযোগী স্থাপনা নির্মাণের দাবি জানান।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, মেয়েরা যাতে লাজলজ্জামুক্ত পরিবেশে অন্তর্বাস, স্যানিটারি ন্যাপকিনসহ তাদের ব্যবহার্য সামগ্রী নিজে পছন্দ করে কেনাকাটা করতে পারেন সেজন্য সরকার প্রতিটি উপজেলায় একটি করে লেডিস মার্কেট নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে। নারীদের দ্বারা এই লেডিস মার্কেট বা মহিলাদের দোকান পরিচালনা করা হবে বলে জানা গেছে। যাতে নারীরা লাজলজ্জামুক্ত পরিবেশে ওইসব দোকানে গিয়ে কেনাকাটা করতে পারেন।

বানিয়াচং উপজেলার বড়ইউড়ি গ্রামের বাজারে এমন একটি লেডিস মার্কেট নির্মাণ করতে দেখা গেলেও এখন পর্যন্ত চালু হতে দেখা যায়নি।

খোঁজ নিয়ে আরও জানা গেছে, হাওরাঞ্চলের নারীদের মাসিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা বিষয়ে সচেতন করে তুলতে এবং তাদের স্যানিটারি ন্যাপকিন ব্যবহারের সহজলভ্য পরিবেশ সৃষ্টি করতে একটি কর্মসূচী হাতে নিয়েছে হিলিপ (হাওরাঞ্চলের অবকাঠামো ও জীবনমান উন্নয়ন প্রকল্প)।

গ্রামীণ নারীদের স্যানিটারি ন্যাপকিন তৈরির প্রশিক্ষণ দিয়ে তাদের মধ্যে থেকে উদ্যোক্তা সৃষ্টি ও স্থানীয়ভাবে তৈরিকৃত স্যানিটারি ন্যাপকিনের বাজার সম্প্রসারণ করা হিলিপ’র এ কর্মসূচীর অংশ বলে জানা যায়। ২০২২ খ্রিস্টাব্দের ২৪, ২৫ ও ২৬ মে হিলিপ’র এ কর্মসূচীর আওতায় বানিয়াচং উপজেলা পরিষদ হলরুমে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়নের ৩০/৩৫ জন নারীকে হাতেকলমে স্যানিটারি ন্যাপকিন তৈরির প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।

ঢাকা থেকে এসে এ প্রকল্পের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা মুশফিকা লাইজু, খুজিস্তা বেগম জোনাকিসহ কয়েকজন প্রশিক্ষক তাদেরকে প্রশিক্ষণ প্রদান করেন।

৩ দিনব্যাপী ওই প্রশিক্ষণে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছিলেন ৩নং বানিয়াচং দক্ষিণ-পূর্ব ইউনিয়নের দেশমুখ্যপাড়া গ্রামের বন্যা দাশ। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আর্থিক সংকটের কারণে তিনি স্যানিটারি ন্যাপকিনের উদ্যোক্তা হয়ে উঠতে পারেননি।

সরকারী অনুদান পেলে প্রশিক্ষণলব্ধ জ্ঞান কাজে লাগিয়ে উদ্যোক্তা হওয়ার এবং এলাকার বৃহত্তর নারীসমাজের মাসিক স্বাস্থ্যসেবায় অবদান রাখতে পারবেন বলে তিনি জানান।