ঢাকারবিবার , ৪ ডিসেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে মঞ্চে রেখেই বীর মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মানিক চৌধুরীকে নিয়ে আবু জাহির এমপির কটূক্তি

স্টাফ রিপোর্টার
ডিসেম্বর ৪, ২০২২ ৯:৪৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

সুধী সমাবেশে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উপস্থিতিতে স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত একজন প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধার সম্পর্কে কটূক্তি
করায় হবিগঞ্জ সদরের এমপি আবু জাহিরের সাথে সংরক্ষিত নারী আসনের সাবেক এমপি আমাতুল কিবরিয়া কেয়া চৌধুরীর তর্কবিতর্কের ঘটনা ঘটেছে।

এমপির এই  অনাকাঙ্খিত বক্তব্যে স্বয়ং স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী উপস্থিত সুধীজনের নিকট দুঃখ প্রকাশ করেছেন।  শনিবার (৩ডিসেম্বর) শায়েস্তাগঞ্জ নতুন থানা ভবন উদ্বোধন করতে আসেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। এ উপলক্ষে বিকেলে নতুন থানা চত্বরে এক সুধী সমাবেশের আয়োজন করা হয়।

অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছাড়াও বিমান ও পর্যটন প্রতিমন্ত্রী মাহবুব আলী, হবিগঞ্জ সদরের এমপি আবু জাহির, হবিগঞ্জ ২ আসনের এমপি আব্দুল মজিদ খান, হবিগঞ্জ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মুশফিক হোসেন চৌধুরী, হবিগঞ্জ সিলেট সংরক্ষিত নারী আসনের সাবেক এমপি আমাতুল কিবরিয়া চৌধুরী কেয়া, সিলেটের ডিআইজি মফিজ উদ্দিন আহমেদ, পুলিশ সুপার এস এম মুরাদ আলীসহ সরকারি, বেসরকারি ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ও গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

আবু জাহির এমপি তার বক্তব্যে হবিগঞ্জের তৎকালীন মহকুমা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী ৭৫এ বঙ্গবন্ধু হত্যার পর বিএনপিতে যোগদানের জন্য আবেদন করা ছাড়াও ৮৮ সালে জাতীয় পার্টির লাঙ্গল নিয়ে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার অভিযোগ তুলে ধরেন।

তিনি বলেন, আজও এসব সুবিধাবাধীরা আওয়ামী লীগে ঘাপটি মেরে বসে আছে। এ সময় মানিক চৌধুরীর কন্যা আমাতুল কিবরিয়া চৌধুরী কেয়া দর্শকসারি থেকে উঠে এর প্রতিবাদ জানাতে জানাতে মঞ্চের দিকে এগিয়ে আসতে থাকলে আবু জাহির মাইকে পুলিশকে উদ্দেশ্যে বলেন ‘এই বেয়াদবটাকে সরাও’।

তখন কেয়া চৌধুরী তার বাবার বিরুদ্ধে মিথ্যা বক্তব্য বন্ধ করার জন্য আবু জাহিরকে হুঁশিয়ার করেন। এ নিয়ে দুপক্ষের লোকজনকে অনুষ্ঠানস্থলে হৈ চৈ করতে দেখা দেয়। কয়েকজন নারী পুলিশ কেয়া চৌধুরী হাতে ধরে একটি কক্ষে নিয়ে যান। প্রায় ১৫ মিনিট সমাবেশস্থলটি বিশৃঙ্খলার মধ্যে পড়ে।

মঞ্চে উপবিষ্ট স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও অন্যান্য অতিথিরাও অস্বস্তিবোধ করেন। তারাও আবু জাহির এমপির বক্তব্যের জন্য অসন্তোষ প্রকাশ করেন। পরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তার বক্তব্যের শুরুতেই ওই ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ করে বলেন, প্রয়াত মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরীকে প্রধানমন্ত্রী ব্যাক্তিগতভাবে চেনেন। মানিক চৌধুরী কোনো ভুল করে থাকলে প্রধানমন্ত্রী তা ক্ষমার দৃষ্টিতে নিয়ে ২০১৫ সালে স্বাধীনতা পদকে ভূষিত করেছেন।

তিনি আবু জাহির এমপির অনাকাঙ্খিত বক্তব্যের জন্য দুঃখ প্রকাশ করে উপস্থিত সকলের কাছে ক্ষমা চান। এ প্রসঙ্গে কেয়া চৌধুরী বলেন, আমার বাবা মুক্তিযুদ্ধে কী অবদান ছিল তা হবিগঞ্জসহ দেশবাসী জানেন। আবু জাহির আমার পিতাকে কটুক্তি করবেন তা মেনে নেওয়া যায় না।

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ’দেয়া এক ভিডিও বক্তব্যে মানিক চৌধুরীর সহধর্মীনি রোকেয়া চৌধুরী জানান, মানিক চৌধুরী একজন সাহসী বীর ছিলেন। কমান্ড্যান্ট মানিক চৌধুরী ৭৫এ বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদ ও লাশের জন্য মিছিলের নেতৃত্ব দিয়েছেন।

এ ঘটনার পর দীর্ঘ ৪ বছর মানিক চৌধুরীকে গুম করে রাখা হয়েছিল। এর আগে জিয়াউর রহমানকে রাষ্টনায়ক মানার শর্তে স্বামীকে মুক্তি দেয়া হবে বলে জানানো হয়। কোন শর্তেই আপোষ করেননি মানিক চৌধুরী।

Developed By The IT-Zone