ঢাকাশুক্রবার , ৫ আগস্ট ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সুতাং নদী থেকে অবৈধ ড্রেজার মেশিন দিয়ে চলছে বালু উত্তোলন

মুহিন শিপন
আগস্ট ৫, ২০২২ ১০:১৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার নুরপুর ইউনিয়নের সুতাং নদী থেকে অবৈধ ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলনের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সুতাং নদীতে বৈধ কোন বালুমহাল না থাকা সত্ত্বেও কিভাবে বালু উত্তোলন করা হচ্ছে তা নিয়ে প্রশ্ন এলাকাবাসীর।

এছাড়াও বালু পরিবহনের জন্য নদীর আড়াআড়ি ভাবে পাইপ নেওয়াতে ব্যহত হচ্ছে নৌযান চলাচল। এতে ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে নদী পথে আসা যাত্রী এবং ব্যবসায়ীদের।

সরেজমিনে দেখা যায়, নুরপুর ইউনিয়ন এর সুতাং স্টেশন এলাকায় সুতাং নদীতে বিকট শব্দে চলছে ড্রেজার মেশিন। বালুমহাল ও মাটি ব্যবস্থাপনা আইন ২০১০ এর ৪ এর ‘খ’ তে ব্রিজের এক কিলোমিটারের মধ্যে বালু উত্তোলন নিষিদ্ধের কথা উল্লেখ থাকলেও সুতাং রেলওয়ে ব্রিজের দেড়শো মিটারের মধ্যে বসানো হয়েছে এই ড্রেজার মেশিন।

বালু উত্তোলনরত ড্রেজার শ্রমিকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, নুরপুর ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের সদস্য আব্দুল হাশিম জারন মিয়ার তত্ত্বাবধানে চলছে এই বালু উত্তোলন।

এ বিষয়ে ড্রেজার শ্রমিক সাব্বির বলেন, জারন মেম্বার (৮ নং ওয়ার্ডের সদস্য) আমাদেরকে নিয়ে এসেছেন সরকারি একটা আশ্রয়নের মাটি ভরাটের জন্য। আমরা দৈনিক ৭ শ’ টাকা মজুরিতে কাজ করি। এখানের মাটি ভরাটে ১৫-২০ দিন লাগতে পারে।

একই বিষয়ে ৮ নং ওয়ার্ডের সদস্য আব্দুল হাশিম জারনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ড্রেজার মেশিন তহশিলদার (সুতাং ইউপি ভুমি অফিসের সহকারী কর্মকর্তা) এবং ইউএনও মহদোয় লাগিয়েছেন। আশ্রয়নের জন্য বালু নেওয়া হচ্ছে। তারা আমার মাধ্যমে ড্রেজারটি আনিয়েছেন। আমি এনে দিয়েছি।

ড্রেজার মেশিন নিয়ে আসার কথা স্বীকার করলেও কত টাকায়? কিভাবে চুক্তি করে মেশিন ব্যবহার করা হচ্ছে এমন প্রশ্নের কোন সদুত্তর দেননি তিনি।

পরবর্তীতে আবারও যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমি কমিটির সভাপতি হলেও সবকিছুর মালিক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আপনি উনার সাথে যোগাযোগ করেন।

এ বিষয়ে শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাজরাতুন নাঈমের সরকারি নাম্বারে একাধিকবার কল দিলেও তিনি কল রিসিভ করেননি। পরবর্তীতে সাংবাদিক পরিচয়ে ক্ষুদে বার্তা প্রেরণ করলেও তিনি কোন প্রতিউত্তর করেন নি।

একই বিষয়ে বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা) হবিগঞ্জের সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল সোহেল মুঠোফোনে বলেন, দেশের প্রচলিত আইনে ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু উত্তোলন করা আইন বিরুদ্ধ।

নদী থেকে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলন করার ফলে নদীর গতিপ্রকৃতি পরিবর্তনের পাশাপাশি নদীর পরিবেশ, প্রতিবেশ এবং জলজ প্রানী ক্ষতিগ্রস্ত হয়। নদী, নদীর পরিবেশ ও প্রতিবেশকে রক্ষা করার জন্য মাটি ব্যবস্থাপনা আইন অনুযায়ী বালু উত্তোলনের জন্য আমরা আহবান জানাচ্ছি।

উল্লেখ্য, শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলার নুরপুর ইউনিয়নের খারামারা গ্রামে ৪০ শতাংশ জমিতে আশ্রয়ণ প্রকল্পের মাটি ভরাটের জন্য ২০ দশমিক ১৫৩ মেট্রিক টন গম বরাদ্দ আসে। প্রতি টন ৩১ হাজার ৬৬৫ টাকা হিসাবে এই গমের মূল্য প্রায় ৬ লাখ ৩৮ হাজার ১ শ’ ৪৪ টাকা। এটি সহ শায়েস্তাগঞ্জ উপজেলায় মোট ৭ টি স্থানে আশ্রয়নের জন্য মাটি ভরাট কাজের জন্য বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে ১১৬ দশমিক ৭১৭ মেট্রিক টন গম।

Developed By The IT-Zone