ঢাকাSunday , 19 March 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সুতাং নদীতে বাঁধ দিয়ে গতিপথ পাল্টে ড্রেইনে রুপান্তর : সিলিকা বালু ও মাটি বিক্রির অভিযোগ

Link Copied!

চুনারুঘাট উপজেলায় অভিনব কায়দায় সুতাং নদীর মাঝ বরাবর বাঁধ দিয়ে নদীর পানি আটকে ড্রেইনের আকারে অন্যদিকে নদীটিকে প্রবাহিত করে মাটি ও বালু বিক্রির অভিযোগ উঠেছে একটি প্রভাবশালী চক্রের বিরুদ্ধে ।

উপজেলার শানখলা ইউনিয়নের মির্জাপুর গ্রামের রজব আলী এবং তার পুত্র নুর ইসলাম মিলে ওই নদী আর কৃষি জমির সিলিকা বালু ও মাটি সাহেব আলী নামে এক ব্যক্তির মাধ্যমে দীর্ঘদিন ধরে বিক্রি করে আসছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শানখলা ইউনিয়ন পরিষদ ভবনের সন্নিকটে মহিমউরা গ্রামের পাশে সুতাং নদীতে এ ঘটনা ঘটেছে। সরেজমিনে দেখা যায়, দখলে দখলে সরু হয়ে আসা নদীর ওই স্থানটিতে এক পার থেকে আরেকবার পর্যন্ত প্রায় দশ ফিট চওড়া মাটির বাঁধ দিয়ে নদীর পানি আটকে ফেলা হয়েছে।

নদীর পূর্ব দিকে একটি খাল খনন করে নদীটিকে অন্যদিকে ছোট ড্রেইনের আকারে প্রবাহিত হতে দেয়া হয়েছে। নদীর বাঁকের মধ্যবর্তী প্রায় কয়েক একর কৃষি জমি ও নদী থেকে এক্সকেভেটর মেশিন দিয়ে ২০ থেকে ৩০ ফুট গভীর গর্ত করে লক্ষ লক্ষ ঘনফুট সিলিকা বালু ও মাটি উত্তোলন করা হচ্ছে।

নদীতে ঢল নামলে গর্তগুলি পুনরায় সিলিকা বালুতে ভরাট হয়ে গেলে পুনরায় বালু উত্তোলন করা হয়। এভাবে কয়েক বছর ধরে এ স্থান থেকে সিলিকা বালু ও মাটি উত্তোলন করে বিক্রি করে আসছে প্রভাবশালী ওই চক্রটি।

এলাকার লোকজন জানান তারা প্রভাবশালী ব্যক্তি হওয়ায় ভয়ে মুখ খুলতে পারছেন না কেউ। এর আগে স্থানীয় তহশীলদেরকে জানালেও এ ঘটনা বন্ধ করা হয়নি। পার্শ্ববর্তী গোড়ামি গ্রামের বাসিন্দা কৃষক আব্দুল মতিন জানান, রজব আলী এ স্থান থেকে দীর্ঘদিন ধরে বালু ও মাটি উত্তোলন করছেন।

এদিকে, সুতাং নদীর উজান অংশের একাধিক স্থানে এভাবে নদীর গতিপথ পরিবর্তন করে বালু ও মাটি উত্তোলন করায় নদীতে পানি প্রবাহ বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। এতে হবিগঞ্জ সদর, শায়েস্তাগঞ্জ ও লাখাই উপজেলার কৃষকরা পানি বঞ্চিত হয়ে জমিতে পানি সেচ দিতে পারছেন না। ধান উৎপাদনও ব্যাহত হচ্ছে।

এ ব্যাপারে রজব আলীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি নদীর মাঝখানে বাঁধ দেয়ার বিষয়টি স্বীকার করেন। তিনি জানান এখান থেকে মাটি ও বালু তিনি সাহেব আলীর কাছে বিক্রি করে দিয়েছেন। সাহেব আলী জানান, তার মাধ্যমে ইটভাটার কাছে মাটি বিক্রি করছেন রজব আলী।

এ বিষয়ে চুনারুঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার সিদ্ধান্ত ভৌমিকের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, সাত-আট মাস পূর্বে ওখানে অভিযান পরিচালনা করে মাটি ও বালু উত্তোলন করার দায়ে মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে পাঁচ জনকে কারাদ- প্রদান করা হয়েছিল।

ইদানিং ওখানে এ ধরনের কাজ হচ্ছে বিষয়টি তাকে কেউ জানায়নি। আবারো অভিযান চালানো হবে। তবে গত বছরের ৯ এপ্রিল ৫ ব্যক্তিকে একমাস করে কারাদন্ড দেওয়া হলেও এ ঘটনার মূল হোতারা পার পেয়ে যান। এ কারনেই তারা বেপরোয়া হয়ে একই ঘটনা ঘটিয়ে যাচ্ছে বলে তথ্য পাওয়া গেছে।