ঢাকাMonday , 11 December 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সীমান্ত এলাকা দিয়ে অবৈধভাবে হবিগঞ্জে প্রবেশ করছে ভারতীয় চিনি

Link Copied!

বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী এলাকা দিয়ে হবিগঞ্জে প্রবেশ করছে বিপুল পরিমাণ অবৈধ চিনি ভারতীয় চিনি। এতে করে একদিকে যেমন সরকার হারাচ্ছে রাজস্ব অন্যদিকে, মারাত্বকভাবে ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে দেশীয় দেশীয় চিনি শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলো।

হবিগঞ্জ জেলার পাশ্ববর্তী সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই, শাল্লা উপজেলার প্রতাপপুর বাজারে গোদামজাত করার পর আজমিরীগঞ্জ উপজেলার কয়েকটি গুদামে বস্তাবদল করার মাধ্যমে হবিগঞ্জ জেলার বাজারগুলোতে ছড়িয়ে পড়ছে এ সকল ভারতীয় অবৈধ চিনি।

অনুসন্ধানে জানা যায়, সুনামগঞ্জের সীমান্তবর্তী এলাকা দিয়ে আজমিরীগঞ্জের চোরাকারবারিদের গুদামে পৌছানোর পর ভারতীয় বস্তা পরিবর্তন করে দেশীয় চিনির বস্তার মাধ্যমে মিনিট্রাক,টমটম ও নদীপথে আজমিরীগঞ্জ বাজার,কাকাইলছেও বাজারে পাচার করা হয়।

আজমিরীগঞ্জ ও কাকাইলছেও বাজারের কতিপয় ভারতীয় চিনি বিভিন্ন মধ্যম ব্যবহার করে ভারতীয় চিনিগুলি হবিগঞ্জ জেলাসহ পার্শ্ববর্তী কিশোরগঞ্জ জেলার বিভিন্ন বাজারে বাজার জাতের কাজটি সম্পূর্ণ করা হয়।

বাজারজাত করা ছাড়াও ভবিষ্যতে অধিক লাভের আশায় আজমিরীগঞ্জের পাহাড়পুর বাজারের হরি দাস কুড়ি, শিরন মিয়া, সুজিত রায়, বিক্রম কুড়িসহ আরও কয়েকজনের দোকানে বিক্রির উদ্দেশ্য মুজুদ করা হয়।

এ ছাড়াও উপজেলার পুরাতন সিনেমা হল এলাকার ‍বিকাশ কুড়িরর দুই গুদাম, বাঁশসহল এলাকার শিরনের গুদামে প্রায় হাজারখানেক বস্তা চিনি মুজুদ করে রাখা হয়।

সারাদেশের বিভিন্নস্থানে চিনি জব্দ ও পাচারকারীদের আটক করা হলেও আজমিরীগঞ্জে তার ব্যাতিক্রম। নৌকা গাড়িযোগে এই চিনি আমদানী ও বাজারজাত অনেকটা দিনের আলোতেই সংগঠিত হচ্ছে।

স্থানীয় ব্যবসায়ীদের সাথে আলাপকালে তারা বলেন, বাজারের চিনির তুলনায় ভারতীয় চিনির প্রতি প্রতি কেজিতে ৩০ টাকা ব্যবধান হওয়ায় দেশীয় চিনি কেউ এখন আর কিনতে চায় না।

কেউ কেউ আবার ভারতীয় চিনির বস্তা পরিবর্তন করে দেশীয় চিনি বলে বেশি দামে বিক্রয় করছে। মূলত প্রশাসনের কোনো ধরনের তৎপরতা না থাকায় বাজারে খোলামেলাই মিলছে এসব চিনি।

স্থানীয় ও ভোক্তা পর্যায়ে ভারতীয় চিনি নিয়ে মিশ্র প্রতিক্রিয়া বিরাজ করছে, বাজারগুলিতে দেশী পরিশোধিত চিনি না থাকায় অনেকটা বাধ্য হয়ে ভারতীয় অপরিশোধিত ভেজাল যুক্ত চিনি ক্রয় করতে হচ্ছে।

স্থানীয় প্রশাসন যদি সময় থাকতে সঠিকভাবে বাজার মনিটরিং না করে এবং অসাধু ব্যবসায়ীদের আইনের আওতায় না আনে তাহলে অপরিশোধিত ভেজালযুক্ত চিনির জন্য যেমন একটা বিরাট অংকের লোক নানান অজানা রোগে আক্রান্ত হবে ঠিক তেমনি অর্থনৈতিক খাতেও সরকারের বড় ক্ষতি হবে।

লাভবান হবে ভারতীয় চিনি ব্যবসায়ী সিন্ডিকেটের কতিপয় অসাধু ব্যবসায়ী। ভারতীয় চিনি আমদানী বন্ধ ও আমদানিকারকদের যথাশীঘ্র আইনের আওতায় আনতে প্রশাসনের সদয় দৃষ্টি কামনা করেন তারা।

এ ব্যাপারে আজমিরীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার জুয়েল ভৌমিকের সাথে যোগাযোগ করা হল তিনি বলেন, ‘বিষয়টি সংবাদ মাধ্যমে দেখেছি, সঠিক তথ্য পেলে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হব’।