ঢাকাSaturday , 29 June 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান : কারসাজিতে বাড়ানো হয়েছে টিকিটের দাম

তারেক হাবিব
June 29, 2024 10:13 am
Link Copied!

সিন্ডিকেট ও কারসাজি করে প্রবেশ মূল্যের দাম বাড়ানো হয়েছে হবিগঞ্জের চুনারুঘাট উপজেলার সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানের। আগের তুলনায় প্রায় তিনগুণের বেশী বাড়ানো হয়েছে টিকিটের দাম। স্থানীয় পর্যটন খাতের জন্য বিষয়টি মঙ্গলজনক হলেও এতে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করছেন আগত দর্শনার্থীরা। কেউ কেউ বলছেন, স্থানীয় একটি চক্র তাদের অসৎ উদ্দেশ্যে হাসিলের জন্য কৌশলে কাজ করে এ ঘটনা সৃষ্টি করেছে। হঠাৎ করে উচ্চমূল্যে টিকিটের দাম বেড়ে যাওয়ায় মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন দর্শনার্থীরা।

শুক্রবার (২৮জুন) সাপ্তাহিক ছুটির দিনে সরেজমিনে সাতছড়ি জাতীয় উদ্যানের মূল ফটকে গেলে দেখা যায় পর্যটক শূন্য অবস্থা। আছেন নিরাপত্তায় নিয়োজিত কয়েকজন সদস্য কিংবা হাতেগোন কয়েকজন লোক, তাও আবার স্থানীয়! বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃৃতি সংরক্ষণ বিভাগ সূত্র জানায়, সাতছড়িতে প্রবেশ ফি তিনগুণের চেয়ে বেশি বেড়েছে। চলতি বছরের ১৩ জুন সাতছড়ির টিকিট কাউন্টারের কালেক্টরের কাছে চিঠি পাঠিয়ে ৯টি নির্দেশনায় নতুন করে নির্ধারিত প্রবেশ ফি গ্রহনের নির্দেশনা দিয়েছে বন বিভাগ।

আগে সাতছড়িতে প্রাপ্ত বয়স্কদের জন্য প্রবেশ ফি ছিল ৩৩.৫০ টাকা। এখন সেই ফি করা হয়েছে ১১৫ টাকা। অপ্রাপ্তবয়স্কদের প্রবেশ ফি ১৭.৫০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ৫৭ টাকা ৫০ পয়সা। জাতীয় উদ্যানটিতে প্রবেশের ক্ষেত্রে আগে বিদেশি পর্যটকদের গুনতে হতো ৫০০ টাকা।

এখন সেটা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ১৫০ টাকা। এছাড়াও শুটিংয়ের জন্য প্রবেশ ৬ হাজার ৯০০ টাকা থেকে বেড়ে ১৩ হাজার ৮০০ টাকা করা হয়। পিকনিক পার্টির জন্য জনপ্রতি ১১ টাকা নেওয়া হলেও নতুন সূচিতে করা হয়েছে ২৩ টাকা।

পার্কিংয়ের জন্য ছোট গাড়ির ফি ছিল ২৭ টাকা। এখন সেটা বেড়ে ১১৫ টাকা করা হয়েছে এবং বড় গাড়ি ফি ১০৫ থেকে বেড়ে ২৩০ টাকায় দাঁড়িয়েছে। সাতছড়ি উদ্যানের টুরিস্ট গাইড রাসেল দেববর্মা বলেন, টিকিটের দাম বাড়ার কারণে অনেকেই গেট থেকে ছবি তুলে চলে যাচ্ছেন। গেটের সামনে তাই ভিড় বেশি থাকে। উদ্যানের রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্বে থাকা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রতি বছর যেখানে ঈদের দিন লাখ টাকা রাজস্ব আসে, সেখানে এবার মাত্র ১২ হাজার ৭শ টাকা রাজস্ব এসেছে।

এছাড়া ঈদের পরদিন এক হাজার টাকাও রাজস্ব আসেনি। অবশ্য সেদিন বৃষ্টি ছিল। এ ছাড়াও গত সাত দিনের অবস্থা খুবই বাজে, দর্শনার্থী নেই বললেই চলে। তবে প্রবেশ ফি বাড়ানোর কারণে এখন থেকে কেউ অযথা প্রবেশ করতে চাইবে না এবং বন্যপ্রাণীদের বিরক্ত করবে না। উল্লেখ্য, ১৯৭৪ সালে বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ সংশোধন আইনের বলে ২৪৩ হেক্টর জমি নিয়ে ২০০৫ সালে সাতছড়ি জাতীয় উদ্যান প্রতিষ্ঠা করা হয়। এই উদ্যানে সাতটি পাহাড়ী ছড়া আছে, সেই থেকে এর নামকরণ সাতছড়ি। এর অর্থ হল সাতটি ছড়াবিশিষ্ট। সাতছড়ি আগের নাম ছিলো রঘুনন্দন হিল রিজার্ভ ফরেস্ট