ঢাকাWednesday , 27 October 2021
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সমাজটাকে অসুন্দর করে তুলছি না তো ?

Link Copied!

অনজন কুমার রায়  :  যদি কষ্টগুলো প্রকাশের কোন আশ্রয় খুঁজে না পাই তবে উদ্বিগ্ন হই। বুঝতে পারি এ সমাজের মানুষ একে অন্যকে হৃদয় দিয়ে ভালবাসতে শিখেনি। তাই, পাশে বন্ধু থাকলেও মনের কষ্টগুলো জমিয়ে রাখি। নিজের অস্তিত্ব রক্ষার জন্য যারা লড়তে জানে না তাদের চেয়ে অসহায় আর কে হতে পারে।

 

তবে, অস্তিত্ব লড়াইয়ে টিকে থাকলেও দেখতে পাওয়া যায় বিপন্ন জীবনের খন্ডিত চিত্র। আকাশপানে চেয়ে বিচার প্রত্যাশায় ক্রন্দন করলে হয়তো ঈশ্বরও শুনতে পায় না। সেজন্যই সংখ্যালঘুরা নিগৃহীত থেকে যায়, নিষ্পেষিত হতে হয় বার বার। কালের বিবর্তনে সেটাই দেখে আসছি। আমরা খেলার মাঠে পরমানন্দে খেলতে যাই; শিক্ষাক্ষত্রেও কোন সমস্যা নয়। যদি বলি আমি স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূুচীতে রক্ত দিয়েছি; তোমরা আমাকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করবে।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শিক্ষাক্ষেত্রে ভাল ফলাফল করলে মেধাবী ছাত্র হিসেবে তারিফ করবে। ডাক্তার হিসেবে যদি রোগীকে বাঁচিয়ে তুলি; আমার শুভ কামনায় তোমরা উতলে উঠবে। ভালবাসার হাত বাড়িয়ে দিলে অকপটে তোমার হাতটাও আমাকে স্পন্দিত করবে! কিন্তু, বিপত্তি তখনি; যখন পরম মমতায় পরম প্রতিভাকে ডাকতে চাই; হৃদমাঝারে ঈশ্বরের স্পন্দনটুকু অনুভব করতে চাই!

 

মুখে মানবতার জয়গান শুনালেও এক সময় জাত-পাতের বালাইয়ে তা বিনষ্ট হয়ে যায়। নতুনভাবেও সম্প্রীতির কোন উদ্যোগ চোখে পড়ে না। অন্য দেশে বর্বরোচিত হত্যাকান্ডহলে আমরা দু:খ প্রকাশে কার্পণ্য করি না। অথচ, নিজ দেশের ভেতর কারো ক্রন্দনের আর্তনাদ আমাদের ভাবায় না! আমরা দিন দিন এতটাই স্বার্থপর হয়ে যাচ্ছি যে, নিজেদের নিরাপদ কিংবা সুরক্ষিত রাখতে পারলেই সার্থক বাঁচা মনে হয়। অথচ, আমাদের চিরাচরিত সমাজ ব্যবস্থা এমন ছিল না।

 

অতীতে ফিরে তাকালে দেখতে পাই, সর্ব ধর্মের রক্ত স্রোতের বিনিময়েই দেশ স্বাধীনতা অর্জন করে। স্নেহময়ী দেশটাকে পরম মমতায় আগলে রেখে যারা সমগ্র বাঙ্গালী জাতিকে মহিমান্বিত করে তোলেছিল সেদিন হয়তো বাঙ্গালী জাতি যুদ্ধক্ষেত্রে নৈরাশ্যবাদের কথা ভুলে থাকলেও সাম্প্রদায়িকতার উগ্র চেহারাটা যে তাদের ঝুলিতে ভর করেনি তা নিশ্চিত করেই বলা যেতে পারে।

 

তখন ছিল না কোন ভেদাভেদ, কোন হানাহানি। ছিল সাম্য, সম্প্রীতি, ভ্রাতৃত্ববোধ। একজন হামলার শিকার হলে সমাজের অন্যান্যরা প্রতিরোধ গড়ে তোলার চেষ্টা করতো। এখন তেমনটা চোখে পড়ে না। ক্রমেই বিলীন হয়ে যাচ্ছে মানবিকতা। ফলে আমাদের সমাজে সামাজিক মেলবন্ধনের যে পটভূমি রচিত হয়েছিল আস্তে আস্তে তা হারিয়ে যাচ্ছে।

 

তাই, সত্যের ধারক খুঁজে পাওয়া কঠিন। পন্ডিত ফ্র্যান্সিস ফুকুয়ামা ‘ট্রাস্ট’ নামক বইয়ে লিখেছেন, “ সামাজিক ও অর্থনৈতিক মুলকথা- ট্রাস্ট বা আস্তা ”। সমাজে মানুষ আস্তার সংকটে ভোগছে। যে কারণে মানুষে মানুষে বিভেদ বাড়ছে। মানুষের অগ্রগতি এবং সমগ্র মানব সভ্যতার অগ্রগতি এক নয়। সভ্যতার গায়ে উন্নয়নের ছোঁয়া লাগলেও মানব সভ্যতার উন্নয়নে যে ছোঁয়া লাগেনি।

 

মানবতাকে সভ্যতার শিক্ষা হিসেবে বিবেচনা করলে মূল্যবোধ, বিশ্বাস, সহমর্মিতা, ভালবাসা, মহত্ত্ববোধ মানুষের মাঝে আরো সভ্য হয়ে ধরা দেবার কথা। কালের নিয়মে উৎকৃষ্ট থেকে উৎকৃষ্টতর হওয়ার কথা। কিন্তু, তার কোনটাই হয়নি। কি হবে সভ্য সমাজকে দোষ দিয়ে। বর্বরতা সমাজের সৃষ্টি নয়, নিজেরা প্রতিনিয়ত মনের মাঝে পোষণ করে রাখি। এমন সভ্য সমাজ দিয়ে কি হবে যদি মানুষকে পরম মমতায় আগলে না রাখতে পারি।

 

অন্যের হৃদয়কে ক্ষত-বিক্ষত করার মাঝে কি আনন্দ লুকিয়ে থাকে। যেখানে, আগুনের লেলিহান শিখা উন্মত্ত হাসি জাগানোর খোরাক জোগায়, আমরা এমন সভ্য সমাজের অংশীদার হতে চাই না। দেশের নিষ্পেষিত লোকের চাহনি যদি আমাদের বিবেক দংশিত না করে নির্দয়্ শব্দটি বার বার তাড়া করে। তাই বলি, দিন দিন আমরা সভ্য সমাজটাকে অসুন্দর করে তোলছি না তো? বিভাজন, কথাটা শুনলেই আঁৎকে উঠি।

 

সামাজিক বিভাজনে আমরা নিরব সমর্থন দিয়ে যাই বলে আচরণে কেউ কেউ সহিংস হয়ে উঠে। তাতেই চলে অন্য কারো কন্ঠ রোধের উত্তম পন্থা। আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম যখন বুঝতে পারবে সমাজে এক শ্রেণী মানুষের নিরবতা অন্যের ক্ষতির কারণ,ঠ। তখন তাদের প্রতি ক্ষমার দৃঢ়তা আসবে কি করে। আজ আমাদের মানবিকতা বৈকল্যে পরিণত হয়েছে।

 

পাশের বন্ধুটি শঙ্কিত থাকলেও আমাদের বুকে চির ধরে না। সদা নিজেকে নিয়ে ব্যস্ত থাকি বলেই কি এমন সত্ত্বা? উন্নয়ন! গ্রাম-গঞ্জে ইট সুরকির দালান, কাঠের আবাসন? আগুনের লেলিহান শিখায় যদি সবই দগ্ধ হয়ে যায়। কি হবে উন্নয়ন দিয়ে। তারপরও ভাবি, একদিন সবকিছু ঠিক হয়ে আসবে। কিন্তু, যে দিন চলে গেল সে দিন কি আর ফিরে আসবে? হিসাব মেলানো ভার, মিলে না কোন সদুত্তর। পীরগঞ্জের জেলে পল্লী প্রত্যক্ষ করেছে, আগুনের লেলিহান শিখায় কিভাবে দগ্ধ হয়ে যায় খেটে খাওয়া মানুষের ভবিষ্যতের স্বপ্ন। ষড়যন্ত্রের ধোঁয়া নাকি ইতিহাসকে পাল্টে দিতে পারে।

 

সেক্ষেত্রে মানুষে মানুষে বিভাজন তৈরি করা সমাজে ফ্যাশন হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমি বলি, তোমরা ইতিহাস কেন বদলে দেবে। তোমরা তো নতুন করেই ইতিহাস গড়তে জানো। তবে, সে ইতিহাস যে স্বাধীনতার ইতিহাস নয়, সে ইতিহাস বাংলা রক্ষার ইতিহাসও নয়। সে ইতিহাস মনে রক্তক্ষরণের ইতিহাস, মনের ক্ষত-বিক্ষতের ইতিহাস।

 

আমাদের প্রজন্ম ১৯৭১ সালে স্বাধীনতার যুদ্ধ না দেখলেও ২০২১ সালে রক্তে রঞ্জিত শারদ দেখেছে। দেখেছে কত অবলীলায় মানুষের অনভূতিকে ভোঁতা করে দেওয়া যায়। এক অজুহাতে সমগ্র দেশটাকে আতঙ্কে ভরিয়ে দেয়া যায়। সে দেশটি যে আমার প্রিয় মাতৃকা, প্রিয় স্বদেশ।

 

কবি শামসুর রহমানের ভাষায় বলি, লুন্ঠিত মন্দির আর অগ্নিদগ্ধ বাস্তুভিটা থেকে, একটি বিবাগী স্বর সুধাংশুকে ছুঁলো। “আখেরে কি তুমি চলে যাবে?” বেলা শেষে, সুধাংশু ভস্মের মাঝে খুঁজে বেড়ায়- দলিল, ভাঙা চুড়ি, সিঁদুরের কৌটা, স্মৃতির বিক্ষিপ্ত পুঁতিমালা … ..এ পবিত্র মাটি ছেড়ে কখনো কোথাও পরাজিত সৈনিকের মতো সুধাংশু যাবে না।

 

মাঝে মাঝে ভাবি, এ জন্যই হয়তো পাশের বাড়ির ছোট্ট খোকাটি স্বাধীনতার তাৎপর্য বুঝে না। সে পাঠ্য বইয়ে পড়েছে, ১৯৭১ সালে কত অবলীলায় ঘর-বাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়া হয়েছে। বর্তমান সময়েও রংপুরের পীরগঞ্জে আগুনের লেলিহান শিখায় ঘর-বাড়ি ভম্মিভূত হতে শুনেছে। তাতে যেটুকু বুঝে, তা বাস্তব জ্ঞানে অর্জিত স্বাধীনতা থেকে ভিন্নতর। তার অবুঝ মনকে বুঝানোর কোন ভাষা খুঁজে পাই না।

 

তাহলে, পীরগঞ্জের সহজ-সরল জেলে পল্লীর মানুষেরা কিভাবে উত্তর খুঁজে পাবে জানা নেই। উদ্বেগ- উৎকন্ঠা তাদের জীবন যাত্রাকে সীমাবদ্ধতার মাঝে আরো সীমাবদ্ধ করে দিল। তারপরও আমরা আশায় বুক বাধি। আমরা আমাদের ছোট্ট স্বপ্নকে রাঙিয়ে পথ চলতে শিখবো। দেশের সন্তানেরা দেশকে মনের মতো করে গড়ে নেবে। সে আশায় পথ চেয়ে রইলাম।