ঢাকামঙ্গলবার , ১৪ ডিসেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সনদ ছাড়াই নিয়মিত রোগী দেখছেন কথিত ডাঃ সায়মা আক্তার তালুকদার

দৈনিক আমার হবিগঞ্জ
ডিসেম্বর ১৪, ২০২১ ১০:৪৯ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

তারেক হাবিব/দিলোয়োর হোসেন :  গ্রহনযোগ্য সনদ ও বিএমডিসির নিবন্ধন ছাড়াই নিজেকে ডাক্তার এবং মেডিসিন, গাইনী ও প্রসূতি,
চর্ম, মা ও শিশুরোগ অভিজ্ঞ পরিচয়ে প্রতারণা করে আসছেন সায়মা আক্তার তালুকদার (৩০) নামে কথিত ডাক্তার।

 

ডাক্তার পরিচয়ে আবাসিক মেডিকেল অফিসার হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন সিলেটের লায়ন শিশু হাসপাতালে এবং সপ্তাহের দুইদিন মোটা অঙ্কের ফিস নিয়ে রোগী দেখছেন আজমিরীগঞ্জ উপজেলার মধ্য বাজার ঔষধ ঘর ফার্মেসীতে। দৈনিক আমার হবিগঞ্জের অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে তার বিরুদ্ধে ভূয়া সনদের তথ্য।

 

 

 

 

 

 

 

 

 

ছবি : কথিত চিকিৎসক সায়মা আক্তারের ফাইল ছবি

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

জানা যায়, সায়মা আক্তার তালুকদার এমবিবিএস ডিগ্রি সম্পন্ন করার পর ২০১৯ সালের নভেম্বর মাসে বাংলাদেশ মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমডিসি) থেকে নিবন্ধিত হন। তবে বিএমডিসির সনদ ও রোগীর ব্যবস্থা পত্র এবং ভিজিটিং কার্ডে ব্যবহৃত নিবন্ধন নং- ১০৭৪১৪ এ বিএমডিসির অনলাইনে সায়মা আক্তার তালুকদারের কোন তথ্য খোজেঁ পাওয়া যায়নি।

 

অনলাই অনুসন্ধানে সেখানে দিনাজপুর সদর উপজেলার মির্জাপুর গ্রামের মৃত আব্দুল হাইয়ের কন্যা ডাঃ মাফিয়া হাসনার তথ্য পাওয়া যায়। তবে এ প্রতিবেদকের কাছে সনদটি সাময়িক সময়ের জন্য দাবী করে ৯৯৪৯৪ নিবন্ধন নাম্বারটি প্রদান করেন সায়মা আক্তার তালুকদারের স্বামী এনামুল হাসান নিলয়।

 

পরে ৯৯৪৯৪ নিবন্ধন নাম্বারটির অনলাইন অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে মাদারীপুর জেলার জনৈক রোমানা ইসলাম নামে অন্য আরেক ডাক্তারের তথ্য। শুধু ভূয়া তথ্যই নয়, তার প্রাতিষ্ঠানিক সনদ পর্যবেক্ষণ করে একাদিক ভূল বানান লক্ষ্য করা যায়।

 

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত কথিত ডাক্তার সায়মা আক্তার তালুকদারের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলে তার স্বামী এনামুল হাসান নিলয় ফোন রিসিভ করে প্রথমে তার স্ত্রীর সাথে কথা বলা যাবে না বলে নিজেদের ডাত্তার দম্পত্তি দাবী করেন।

 

পরে তার স্ত্রী সায়মা আক্তার তালুকদার বলেন, ‘আমি সত্যি একজন এমবিবিএস ডাক্তার, আমার বিএমডিসির রেজিষ্ট্রেশন আছে। তবে আমি এখনো পুরোপুরি কোর্স সম্পন্ন করিনি বিধায় আমাকে একটি সম্পূরক নাম্বার দেয়া হয়েছে’। তবে উক্ত নিবন্ধন নাম্বারে কেন অন্য তথ্য আসে এমন প্রশ্নে তিনি তথ্য এড়িয়ে যান।

 

সিলেট লায়ন শিশু হাসপাতালের ইনচার্জ্য সোহেল আহমদ জানান, সায়মা আক্তার তালুকদার ভূয়া ডাক্তার এটা জানতাম না। তথ্য পেলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

 

বাংলাদেশ মেডিকেল এন্ড ডেন্টাল কাউন্সিল (বিএমডিসি)র আইন অনুযায়ী কেউ স্বীকৃত মেডিকেল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ডাক্তারী ডিগ্রি ছাড়া নামের আগে ডাঃ ব্যবহার রীতিমত শাস্তিযোগ্য অপরাধ। নিবন্ধন ব্যতীত এলোপ্যাথি চিকিৎসা নিষিদ্ধ ।

 

কোন ব্যক্তি উপ-ধারা (১) এর বিধান লংঘন করলে উক্ত লংঘন হবে একটি অপরাধ, এবং তজ্জন্য তিনি ৩ (তিন) বৎসর কারাদন্ড অথবা ১ (এক) লক্ষ টাকা অর্থদন্ড অথবা উভয় দন্ডে দন্ডনীয় হবেন।

Developed By The IT-Zone