ঢাকাসোমবার , ২৯ নভেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

সংঘর্ষ, হামলা ও ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়ার মধ্যে দিয়ে হবিগঞ্জের ২১টি ইউনিয়ন পরিষদে ভোটগ্রহণ

তারেক হাবিব
নভেম্বর ২৯, ২০২১ ২:৪৫ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

৩য় ধাপে অনুষ্ঠিতব্য ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে সংঘর্ষ, হামলা ও ধাওয়া পাল্টা-ধাওয়ার মধ্যে দিয়ে হবিগঞ্জের দুইটি উপজেলার ২১টি ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) নির্বাচনে ভোটগ্রহণ করা হয়েছে। গতকাল রবিবার সকাল ৮টা থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহন করা হয়।

ব্যালট পেপারের মাধ্যমে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন এবং নবীগঞ্জ উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ করা হয়। হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ৮টি ইউনিয়নের ৪টি বিজয়ী হয়েছে নৌকা। উপজেলার ১০নং লস্করপুর ইউনিয়নে ৪৫০৬ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান হিরু। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী পেয়েছেন সাবেক চেয়ারম্যান আমজাদ আলী পেয়েছেন ৩৯১৭ ভোট। ৯নং নিজামপুর ইউনিয়নে আনারস প্রতীকে ৬৫৫৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান তাজ উদ্দিন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত সাবেক চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল তালুকদার পেয়েছেন ৬০৬১ ভোট। ৬নং রাজিউড়া ইউনিয়ন পরিষদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বদরুল করিম দুলাল ৪৪৯০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী তাজ উদ্দিন পেয়েছেন ৩৬২ ভোট।

৫নং গোপায়া ইউনিয়ন পরিষদে ঘোড়া মার্কা প্রতীকে মোঃ আব্দুল মন্নান পেয়েছেন ৫২৩৮ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী নুরুজ্জামান চৌধুরী পেয়েছেন ৪৩২৯ ভোট। ৪নং পৈল ইউনিয়ন পরিষদে স্বতন্ত্র ঘোড়া প্রতীক নিয়ে ৮৪০৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান সৈয়দ মঈনুল হক আরিফ। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী সাহেব আলী পেয়েছেন ৪৩৮৬ ভোট। ৩নং তেঘরিয়া ইউনিয়ন পরিষদে ২৯৬১ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী এমএ মোতালিব। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সেবুল মিয়া মোটরসাইকেল প্রতীকে পেয়েছে ২৮৫৫ ভোট। ২নং রিচি ইউনিয়নে ৭৭৮৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আব্দুর রহিম। তার নিকটতম স্বতন্ত্র প্রার্থী সারাজ মিয়া আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ৭২৩২ ভোট। ১নং লোকড়া ইউনিয়ন পরিষদে চশমা প্রতীকে ২৫৬৩ ভোট পেয়ে বিজয়ি হয়েছেন কায়সার রহমান। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আমিরুল ইসলাম অটোরিক্সা প্রতীকে পেয়েছেন ২৫৪৭ ভোট।

আমাদের নবীগঞ্জ প্রতিনিধি মোঃ হাসান চৌধুরীর পাঠানো তথ্যমতে, নবীগঞ্জ উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নের দু’একটি বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া উৎসব মূখোড় পরিবেশে শান্তিপুর্ণভাবে ভোট গ্রহন সম্পন্ন হয়েছে। রবিবার সকাল ৮ ঘটিকা থেকে বিকাল ৪ টা পর্যন্ত একটানা ভোট গ্রহন শুরু হয়। কুর্শি ইউনিয়নের গহরপুর সেন্টারে চেয়ারম্যান প্রার্থীও ব্যালট পেপার যথা সময়ে না পৌছায় ভোটারদের মাঝে তীব্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। পরে সকাল ১১টায় ওই কেন্দ্রে ব্যালট পেপার পৌছার পর ভোট গ্রহন শুরু হয়। বেলা ৩টার দিকে বাউসা ইউপির রিফাতপুর সরকারী প্রাইমারী কেন্দ্রে জাল ভোট প্রদানকে কেন্দ্র করে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া প্রতীকের সর্মথকরা লাটি সোটা নিয়ে নৌকার প্রার্থীর সর্মথকদের উপর হামলার চেষ্টা করা হয়। এ সময় আইনশৃংখলা বাহিনীর কটোর হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আসে।

এছাড়া গজনাইপুর ইউপির শতক প্রাইমারী স্কুল কেন্দ্রে মেম্বার প্রার্থী মোঃ সেলিম মিয়া (ফুটবল) প্রতীক’কে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। এ সময় বিদ্যুৎ চলে যায়। বিদ্যুৎ আসার সাথে সাথে রেজাল্ট পরিবর্তন করে অপর মেম্বার প্রার্থী মোঃ ছালিক মিয়া (টিউবওয়েল) প্রতীককে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। এ সময় ফুটবল প্রতীকের এজেন্ট স্বাক্ষর না দিলে জোরপুর্বক তাকে আহত করে স্বাক্ষর নেয়া হয় বলে অভিযোগ করেছেন প্রথম বিজয়ী মোঃ সেলিম মিয়া। আহত’কে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

এছাড়া উপজেলার কোথায়ও কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। উপজেলার ১৩টি ইউনিয়নে ৪টিতে নৌকা, ৪টি বিদ্রোহী, বিএনপির সমর্থিত ৩টি এবং স্বতন্ত্র প্রার্থী ২টিতে বেসরকারী ভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তারা হলেন, ১নং বড় ভাকৈর(পশ্চিম) ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী রঙ্গলাল দাশ(ঘোড়া)। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দী বর্তমান চেয়ারম্যান সত্যজিৎ দাশ(চশমা)। ২নং বড় ভাকৈর(পুর্ব) ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক নিয়ে আক্তার মিয়া ছুবা বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সাবেক চেয়ারম্যান বিদ্রোহী প্রার্থী মেহের আলী মালদার (আনারস)। ৩ নং ইনাতগঞ্জ ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থীকে হারিয়ে বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিদ্রোহী প্রার্থী নোমান আহমদ(ঘোড়া)। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী অপর বিদ্রোহী জায়েদুল হক(মটরসাইকেল)। ৪নং দীঘলবাক ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থীও বর্তমান চেয়ারম্যান আবু সাঈদ এওলাকে হারিয়ে বিজয়ী হন স্বতন্ত্র প্রার্থী বিএনপি নেতা মোঃ ছালিক মিয়া (আনারস)। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বর্তমান চেয়ারম্যান ও নৌকার প্রার্থী আবু সাঈদ এওলা। ৫নং আউশকান্দি ইউনিয়নে নৌকার মনোনিত প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান দিলাওর হোসেন (নৌকা) প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র পদপ্রার্থী মোফাজ্জুল হোসেন (চশমা)। ৬নং কুর্শি ইউনিয়নে বিজয়ী হয়েছেন সাবেক চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা সৈয়দ খালেদুর রহমান খালেদ(আনারস)। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকার প্রার্থী আলী আহমদ মুসা। ৭নং করগাঁও ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী আওয়ামীলীগ থেকে বহিস্কৃত নির্মলেন্দু দাশ রানা বিশাল ভোটের ব্যবধানে (ঘোড়া) প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হয়ে আলোড়ন সৃষ্টি করেছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বর্তমান চেয়ারম্যান বিএনপি নেতা মোঃ ছাইম উদ্দিন (আনারস)। ৮নং নবীগঞ্জ সদর ইউনিয়নে প্রথম বারের মতো নির্বাচিত হন নৌকার প্রার্থী হাবিবুর রহমান হাবিব। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বর্তমান চেয়ারম্যান বিদ্রোহী প্রার্থী সাজু চৌধুরী(আনারস)। ৯ নং বাউসা ইউনিয়নে প্রথমবারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন বিএনপি নেতা সাদিকুর রহমান শিশু(আনারস)। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিদ্রোহী প্রার্থী জুনেদ হোসেন চৌধুরী (ঘোড়া)। ১০ নং দেবপাড়া ইউনিয়নে প্রাক্তন চেয়ারম্যান মরহুম এডভোকেট জাবিদ আলীর পুত্র স্বতন্ত্র প্রার্থী শাহ রিয়াদ নাদির সুমন (চশমা) প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী নৌকার প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল মুহিত চৌধুরী। ওই ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের বর্ষিয়ান নেতা প্রাক্তন মন্ত্রী মরহুম দেওয়ান ফরিদ গাজী এবং বর্তমান এমপি দেওয়ান শাহ নেওয়াজ মিলাদ গাজী’র জন্ম স্থানে নৌকার ভরাডুবিতে আলোচনার ঝড় বইছে। ১১ নং গজনাইপুর ইউনিয়নেও বিপুল ভোটে বিজয়ী হন বর্তমান চেয়ারম্যান সদ্য বহিস্কৃত উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি বিদ্রোহী প্রার্থী ইমদাদুর রহমান মুকুল(আনারস)। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি নেতা সফিউল আলম বজলু (চশমা)। ১২নং কালিয়ারভাঙ্গা ইউনিয়নে বিপুল ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হয়েছেন বিদ্রোহী প্রার্থী সাবেক চেয়ারম্যান এমদাদুল হক চৌধুরী(আনারস)। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি নেতা আজিজ আহমদ মেরাজ (চশমা)। ১৩নং পানিউন্দা ইউনিয়নে বিপুল ভোটের ব্যবধানে ৬ষ্ট বারের মতো নির্বাচিত হন বর্তমান চেয়ারম্যান নৌকার প্রার্থী ইজাজুর রহমান। তার একমাত্র নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিদ্রোহী প্রার্থী মুহিবুর রহমান মামুন(আনারস)।

এদিকে এবারের নির্বাচনে নৌকার বিশাল ভরাডুবি হওয়ায় ব্যাপক আলোচনার জন্ম নিয়েছে। তবে কোনো বড় ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটলেও সন্ধ্যার দিকে ৫নং গোপায়া ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বহুলা সরকারি মডেল স্কুলে একদল দুর্বৃত্ত ব্যালট ছিনতাইয়ের চেষ্টা করে। এ সময় আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা বাঁধা দিলে তাদের সাথে ধাওয়া হয়। পরে টিয়ারসেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। এ সময় ওই কেন্দ্রে ভোট গননা স্থগিত করা হয়। পরে রাত ১০টার দিকে হবিগঞ্জ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সাদেকুল ইসলাম ওই কেন্দ্রের ভোট ঘোষণা করেন এবং আব্দুল মন্নানকে জয়ী ঘোষণা করেন।

Developed By The IT-Zone