ঢাকাMonday , 3 April 2023
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শিক্ষা কর্মকর্তার ভূলের মাশুল দিচ্ছেন উপজেলার শিক্ষকরা

Link Copied!

সরকার দীর্ঘ দিন পরও হলেও সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারি শিক্ষকদের একই জেলার মধ্যে আন্ত:উপজেলা বা থানায় বদলির আবেদনের সিদ্ধান্ত নেয়ায় আনন্দে মেতে উঠেছিলেন বিদ্যালয়ে ৫ থেকে ৬ বছর ধরে দায়িত্বপালন করা শিক্ষকরা। শিক্ষা কর্মকর্তার গাফিলতির কারণে তা আর হয়ে উঠেনি।

জানা যায়,গত ২৭ ফেব্রুয়ারি প্রাথমিক শিক্ষা অদিপ্তরের সহকারী পরিচালক (বিদ্যালয়) নাসরিন সুলতানার স্বাক্ষরিত এক অফিস আদেশে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের একই জেলার মধ্যে আন্ত: উপজেলা বা থানায় বদলির আবেদন ২৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ৩মার্চ পর্যন্ত শিক্ষকরা অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন মর্মে একটি নোটিশ প্রদান করা হয়।

এতে আরো জানানো হয় ৪ থেকে ৫মার্চ পর্যন্ত উপজেলার শিক্ষা অফিসাররা প্রয়োজনীয় কার্যক্রম শেষ করবেন। ৬ ও ৭ মার্চ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের শিক্ষক বদলি সংক্রান্ত কাজ করবেন। আর ৮ ও ৯ মার্চ বিভাগীয় উপপরিচালকরা বদলির সকল কার্যক্রম শেষ করবেন। নোটিশ পাওয়ার পর বদলি হওয়ার জন্য বানিয়াচং উপজেলার আগ্রহী প্রায় ৪০ জন শিক্ষকরা তাদের আবেদন তৈরী করেন। শিক্ষকদের আবেদনের প্রেক্ষিতে প্রধান শিক্ষক,টিইও এবং এটিইও’র সুপারিশের ভিত্তিতে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার বরাবরে প্রেরণ করা হয়।

এসব আবেদন যাচাই-বাছাই শেষে অনলাইনে শিক্ষা অধিদপ্তরের ঠিকানায় প্রেরণ করার কথা থাকলেও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা গোলাম মাওলা নির্ধারিত সময়ের পূর্বে এসব না করায় শেষ মুহুর্তে সার্ভার ডাউন হয়ে যায়। ফলে বানিয়াচং উপজেলাসহ মাধবপুর উপজেলার শিক্ষকদের বদলির আবেদন থমকে গেছে।

জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা গোলাম মাওলার ভূলের কারণে বদলি হওয়া থেকে ব্যর্থ হন আবেদনকারীরা। উপজেলার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের আবেদন অনলাইনে ঠিকমতো কাজ না করায় নির্ধারিত সময় পার হয়ে যায়।

অর্ডার টাইম আউট হওয়ার পর ফরওয়ার্ড করে দেয়ার কারণে শিক্ষকদের বদলির বিষয়টি থমকে আছে। অথচ তিনি যদি ঠিকমতো আবেদনগুলো এপ্রুভ করতেন তাহলে এমনটা হতো না বলে শিক্ষকরা জানিয়েছেন।

শিক্ষা কর্মকর্তার এহেন কান্ডজ্ঞানহীন কাজের ক্ষোভ জানিয়েছেন পুরো উপজেলার শিক্ষকরা। কর্মক্ষেত্রে দায়িত্ব পালনে নানা সমস্যার সম্মুখীন হতে হবে মর্মে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একাধিক শিক্ষক জানান,দীর্ঘদিন ধরে একই বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করে আসছি।

সরকার এবার বদলির সুযোগ দেয়ায় ভাবছিলাম নিজের এলাকায় যাবো। কিন্তু জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার অবহেলার কারণে সেটা আর হয়নি।

তারা আরো জানান,নির্ধারিত সময়ে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা কক্সবাজারে আমোদ-ফুর্তিতে রপ্ত ছিলেন বিধায় শেষ মুহুর্তে তিনি এপ্রুভ দেয়ার সময় পাননি তিনি। তার এই গাফিলতির শিকার আমরা।

এই বিষয়ে জানতে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কবিরুল ইসলাম জানান,যারা বদলির জন্য আবেদন করেছিল আমি আমার কাজ কমপ্লিট করে ডিপিইও’র বরাবরে পাঠিয়ে দিয়েছি। আমি কোন কাজ ফেলে রাখিনা। কেন এমনটা হইছে সেটা জেলা কর্মকর্তাকে জিজ্ঞাসা করতে পারেন।

বিস্তারিত জানতে কথা হয় জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা গোলাম মাওলার সাথে। তিনি জানিয়েছেন,আমার কোনো গাফিলতি নাই। সফটওয়্যার এবং সার্ভারের জটিলতার কারণে এমনটা হইছে। তবে এখন কার্যক্রম বিভাগ টু বিভাগে চলমান আছে। আশা করছি এটার পরপরই বানিয়াচং উপজেলার বদলি কার্যক্রম শুরু করতে পারবো।