ঢাকাবৃহস্পতিবার , ১২ মে ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

শহরের কোর্ট স্টেশন পুকুর অবৈধ মাছ চাষকারীদের বিরুদ্ধে মামলা : পুকুর পাড়ের অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদের সিদ্ধান্ত

আতাউর রহমান ইমরান
মে ১২, ২০২২ ১১:৪৩ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

শহরের সরকারী কোর্ট স্টেশন পুকুরে প্রভাবশালীদের ইজারা ছাড়াই মাছ চাষ শিরোনামে গত ২৮ এপ্রিল দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হয়।

এরই প্রেক্ষিতে হবিগঞ্জ জেলা সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর হবিগঞ্জ শহরের কোর্ট স্টেশন পুকুরে অবৈধভাবে মাছ চাষ কারীদের বিরুদ্ধে হবিগঞ্জ সদর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। জেলা সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তরের উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী কাজী নজরুল ইসলাম বাদী হয়ে গত ৯ মে অভিযোগটি দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে কাজী নজরুল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, পুকুরটি অবৈধভাবে মাছ চাষ করে দখলকারীদের নিকট থেকে রক্ষা করার জন্যই আইন প্রয়োগকারী সংস্থার নিকট অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। তিনি আরো জানান, পুকুর ও তৎসংলগ্ন প্রায় পাঁচ একর জমিতে সরকারি ট্রাক স্ট্যান্ড নির্মাণ করার পরিকল্পনা করা হয়েছে।

এ বিষয়ে হবিগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ গোলাম মর্তুজার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, অভিযোগটি দেখে এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। এদিকে পুকুরের পাড় অবৈধ দখলদারদের নিকট থেকে মুক্ত করার জন্য ইতিমধ্যেই নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট নিযুক্ত করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

আগামী সপ্তাহেই পুকুরপাড় সহ সড়ক বিভাগের মালিকানাধীনক জমি অবৈধ দখলমুক্ত করা হতে পারে। এর আগে সংবাদ প্রকাশিত হয় যে, হবিগঞ্জ শহরের মোতালেব চত্বর এর নিকটবর্তী সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর এর মালিকানা এবং দখলে থাকা কয়েক একর পরিমানের বিশাল আকারের কোর্ট স্টেশন পুকুরটিতে ইজারা ছাড়াই অবৈধভাবে মাছ চাষ করছেন কয়েক ব্যাক্তি। এতে রাজস্ব হারাচ্ছে সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগ। দীর্ঘদিন পর অবৈধ দখল মুক্ত হওয়া পুকুরটি পুনরায় বেদখল হওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরে পুকুর এবং পুকুরপাড় সংলগ্ন জমি অবৈধ দখলে ছিল। পুকুর পাড়ে মার্কেট নির্মাণও করা হয়। বছর দুয়েক আগে সড়ক ও জনপথ বিভাগের উদ্যোগে পুকুরটি দখলমুক্ত করা হয়।

সুলতান মাহমুদপুর গ্রামের বেশ কয়েকজন বাসিন্দার সাথে কথা বলে জানা যায়, গত কয়েক মাস ধরে সুলতান মাহমুদপুর গ্রামের বাসিন্দা রাজ্জাক মুহুরি, আলাউদ্দিন মিয়া ও আব্বাস মিয়া সহ আরো কয়েকজন লোক পুকুরটিতে গোপনে মাছ চাষ করে আসছেন। বিশাল আকারের পুকুরটি থেকে রাতের আঁধারে মাছ আহরণ করে ইতিমধ্যেই লক্ষাধিক টাকায় বিক্রি করা হয়েছে।

মাছ চাষ করে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করলেও ইজারা না নেয়ায় এ থেকে সরকার রাজস্ব হারাচ্ছে। অবৈধ ভাবে মাছ চাষের বিষয়টি নিয়ে এলাকায় ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে রাজ্জাক মুহুরির সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি মাছ চাষ করার বিষয়টি স্বীকার করেন। তবে তিনি সড়ক ও জনপথ বিভাগের নিকট পুকুর ইজারা নেওয়ার জন্য আবেদন করেছেন বলে দাবি করেন।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ জেলা সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী শাকিল মোহাম্মদ ফয়সালের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, পুকুরটিকে কারো নিকট ইজারা দেয়া হয়নি। পুকুর ইজারা নেয়ার জন্য কেউ আবেদনও করেননি। পুকুরটিতে কেউ মাছ চাষ করছেন কিংবা দখল করে আছেন কিনা এ ব্যাপারে খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এ বিষয়ে সুলতান মাহমুদপুর গ্রামের স্থানীয় বাসিন্দারা জানান, পুকুরটি আগে সুলতান মাহমুদপুর গ্রামবাসীর নিয়ন্ত্রণাধীনে থাকলেও বর্তমানে এটি আর গ্রামবাসী ভোগ দখল করছেন না।

এভাবে বিশাল আকারের সরকারি পুকুরটিতে ইজারা ছাড়াই মাছ চাষ করে বিক্রি করা হলে সরকার রাজস্ব হারাবে। ভবিষ্যতে এটি প্রভাবশালীদের দখলে চলে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।

Developed By The IT-Zone