ঢাকাসোমবার , ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২২
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লুকড়ায় সরকারি রাস্তার ইট তুলে নেওয়ার অভিযোগ তদন্তে প্রমাণিত

স্টাফ রিপোর্টার
সেপ্টেম্বর ১৯, ২০২২ ৯:১১ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ সদর উপজেলার লুকড়া গ্রামের গ্রাম্য কিছু কথিত মাতব্বরদের রোষানলের শিকার ওই গ্রামের শান্তিপ্রিয় অসহায় নিরীহ প্রায় ৩০ টি পরিবারের সদস্যরা। ইতিপূর্বে একাধিকবার গ্রাম্য মাতবরদের নেতৃত্বে নিরীহ পরিবার গুলোর বাড়িঘরে দফায় দফায় হামলা করা হয়েছে।

মধ্যযুগীয় পন্থায় করা হয়েছে সমাজচ্যুত! সরকারী রাস্তা ও নিরীহ পরিবারগুলোর জমি দখলের উদ্দেশ্য সরকারী ম্যাপ পরিবর্তন করে নিজেরাই নতুন ম্যাপ তৈরী করে স্থাপন করেছে রাস্তায়।

সরকারি রাস্তার ইট সলিং তুলে নিয়ে নিরীহ পরিবারগুলোর বাড়ি ঘর ভেঙে নতুন করে কাঁচা রাস্তা তৈরী করার পায়তারা করছে । এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক পুলিশ সুপার ও ইউএনও বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছেন ভুক্তভোগীরা। এমনকি দুষ্কৃতিকারীদের বিরুদ্ধে আদালতে মামলাও করেছেন।

লিখিত অভিযোগ ও মামলা সূত্রে জানা যায়,লুকড়া গ্রামের বাসিন্দা আকবর হোসেন বাচ্ছুর ছেলে ইউনিয়ন আওয়ামিলীগের সাধারণ সম্পাদক আঃ শহিদ , মৃত আমির উদ্দিনের ছেলে আফতাব উদ্দিন মিয়া,মৃত ফিরোজ মিয়ার ছেলে দুদু মিয়া, আফতাব উদ্দিনের ছেলে কায়ুম মিয়া,দুদু মিয়ার ছেলে আব্দুল হামিদ,সিজিল মিয়ার ছেলে নানু মিয়া ও মৃত তারা মিয়ার ছেলে রফিক মিয়া সহ আরো বেশ কয়েকজন দুস্কৃতিকারীরা মিলে সরকারি রাস্তার ইট তুলে নেওয়াসহ তাদের নেতৃত্বে একাধিকবার নিরীহ পরিবারগুলোর বাড়িঘরে হামলা হয়েছে।

দুষ্কৃতিকারীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করায় ক্ষিপ্ত হয়ে ওই পরিবার গুলোর পুরুষ সদস্যদের দেখে নেয়ার হুমকি দিয়েছেন। এতে ভয় পেয়ে নিরীহ পরিবারগুলোর পুরুষ সদস্যরা গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

ত ২৫ আগস্ট লুকড়া গ্রামের বাসিন্দা মৃত হাজী আব্দুল জব্বারের ছেলে শামসুল হক সহ আরো ৪/৫ জনের লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে সদর উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার মোঃ সাকি-উল হাফিজকে তদন্তের নির্দেশ প্রদান করেন সদর উপজেলা নির্বাহি অফিসার নাজরাতুন নাঈম।

এরপর সরেজমিনে তদন্ত করেন উপ-সহকারী ইঞ্জিনিয়ার এমদাদুল হক। অভিযোগে উল্লেখিত রাস্তাটি বিভিন্ন সময়ে সরকারি অর্থ ব্যয়ে ইউনিয়ন পরিষদ, উপজেলা পরিষদ ও বি এস এস এর অর্থায়নে জনসাধারণের যাতায়াতের উপযোগী করা হয়েছে।

এ বিষয়ে তদন্ত শেষে গত ৫ সেপ্টেম্বর ১০০ মিটার অর্থাৎ প্রায় ৩০০ ফুট রাস্তার ইট তুলে নিয়ে যাওয়ার সততা পেয়েছেন বলে একটি তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে। এছাড়াও তিনি প্রতিবেদনে উল্লেখ করেন সরেজমিনে তদন্তের সময় অভিযুক্ত ব্যক্তিদের পাওয়া যায়নি বিদায় তাদের মতামত নেওয়া সম্ভব হয়নি।

সরকারি সম্পদ বিনষ্ট ও আত্মসাৎকারী ব্যক্তিদেরকে চিহ্নিত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সদর উপজেলা নির্বাহি অফিসার নাজরাতুন নাঈমকে সুপারিশ করেছেন তদন্ত কর্মকর্তা সদর উপজেলা ইঞ্জিনিয়ার মোঃ সাকিব-উল হাফিজ ও উপ-সহকারী ইঞ্জিনিয়ার এমদাদুল হক ।

এ বিষয়ে সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার নাজরাতুন নাঈম বলেন অপরাধী যেই হোক তাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Developed By The IT-Zone