ঢাকাTuesday , 2 July 2024
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাশ তুলে কবরস্থানে চাষাবাদ করায় স্বজনদের কান্না !

Link Copied!

হবিগঞ্জের মাধবপুরে পুরনো কবরস্থান দখল ও লাশের ক্ষয়ক্ষতি সাধন করে চাষাবাদ করায় লাশের স্বজন ও এলাকাবাসীদের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ দেখা দিয়েছে । উপজেলার চৌমুহনী ইউপির কমলপুর গ্রামের মুসলিম মিয়ার পুত্র বজলু মিয়া (৫৫) বৈধ দলিলাদি না থাকা সত্ত্বেও ওই কবরস্থান দখল করায় স্থানীয়দের পক্ষ থেকে প্রশাসনের কাছে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।

এলাকাবাসীর দাবি,কবরস্থানটিতে কমলপুর গ্রামের ইউনুস মিয়ার পুত্র রফিক মিয়ার ভাগিনা সজীব মিয়ার ও তার চাচা শাহজাহান মিয়ার কবর রয়েছে। আব্দুল হাসিমের ২ ছেলের কবর ,মতলিব মিয়ার কন্যা মর্জিনা বেগমের কবর ও মুমিন মিয়ার শাশুড়ির কবরও রয়েছে সেখানে। এছাড়া কয়েকজন শহিদ মুক্তিযোদ্ধার কবরসহ অসংখ্য জ্ঞাত-অজ্ঞাত বহু মানুষের কবর রয়েছে ওই কবরস্থানটিতে। স্থানীয়রা আরো জানাচ্ছে, কবরস্থানে কৃষি সবজি ফলানো অত্যন্ত রুচি বিবর্জিত কাজ।জেনে কেউ ওই সবজি খাবে না।এতে ভোক্তাদের সাথে এক ধরনের প্রতারণা বা ছলনাও করা হচ্ছে।

জানা যায়,কয়েক যুগ আগে আব্দুল মাওলা নামে এক লোক স্থানীয় কমলপুর মৌজার এসএ দাগ ২৪৪৭ এর ০৯ শতক জায়গা কবরস্থান হিসেবে দান করলে তা রেকর্ড হয়। এসএ রেকর্ডে এটি কবরস্থান হিসেবে রেকর্ড রয়েছে। কবরস্থানের বর্তমান দখলদার বজলু মিয়া জানান,এটি একাধিক বিক্রির মাধ্যমে তার কাছে এসেছে। এটি কবরস্থান নয় বরং তাদের মালিকানাধীন কৃষি জমি।

স্থানীয় বাসিন্দা রফিক মিয়া জানান,এখানে আমার ভাগিনা ও আপন চাচার লাশ রয়েছে। এরা তাদের কঙ্কাল তুলে ফেলে চাষাবাদ করছে। এরা জঘন্য কাজ করছে। এটি দখলমুক্ত না হলে আমরা তীব্র আন্দোলনের ডাক দেব। আমরা এর বিচার চাই স্থানটিতে শতাধিক কবরও রয়েছে এলাকাবাসীর। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মাহবুবুর রহমান সোহাগ বলেন,আমরা আইন-শৃঙ্খলা সভায় এটি উদ্ধারে জোরালো প্রস্তাব রাখবো।

সহকারী কমিশনার (ভূমি) রাহাত বিন কুতুব জানান, ‘বিষয়টি খুবই গুরুত্ব দিয়ে দেখা হচ্ছে। মঙ্গলবার (২ জুলাই) একজন তহশিলদারকে সেখানে পাঠানো হয়েছে প্রাথমিকভাবে খোঁজখবর নিতে। ইউএনও এ কে এম ফয়সাল জানান বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে খোঁজ নিয়ে দেখবো।’