ঢাকাসোমবার , ২৭ ডিসেম্বর ২০২১
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাই ও বানিয়াচংয়ে ৫ম ধাপের ইউপি নির্বাচন সম্পন্ন : দুই উপজেলায় ১১টি আওয়ামী লীগ বিজয়ী

তারেক হাবিব
ডিসেম্বর ২৭, ২০২১ ৯:৪৪ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

হবিগঞ্জ জেলা প্রশাসনের কড়া নিরাপত্তা ব্যবস্থার মধ্যদিয়ে গতকাল রোববার উৎসবমূখর পরিবেশে বানিয়াচং ও লাখাই উপজেলার ২০টি ইউপির নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। সকাল থেকেই ভোট কেন্দ্রগুলোতে নারী ভোটারের লাইন দীর্ঘ হতে থাকে। সকাল সাড়ে ছয়টায়
প্রতিটি ভোট কেন্দ্রে ব্যালট পেপার পৌঁছে দেন রিটার্নিং অফিসার।

সকাল ৮ টা থেকে বিকেল চারটা পর্যন্ত ওই কেন্দ্রে গুলোতে ব্যালট পেপারে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। সরেজমিনে লাখাই ও বানিয়াচং উপজেলার ইউনিয়নের সবগুলো ভোট কেন্দ্র ঘুরে শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ চলতে দেখা গেছে।

আমাদের লাখাই প্রতিনিধি আতাউর রহমান ইমরান জানান, গতকাল ২৬ ডিসেম্বর লাখাই উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে ৪র্থ ধাপে ভোট গ্রহণ করা হয়। সারাদিন দু-একটি কেন্দ্রে বিচ্ছিন্ন কিছু ছোটকাখো ঘটনা ছাড়া ভোটগ্রহণ অবাধ শান্তিপূর্ণ নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু হয়েছে।

ভোটগ্রহণ শেষে বেসরকারি ফলাফলে ১নং লাখাই ইউপিতে ঘোড়া প্রতীক নিয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী আরিফ আহমেদ রুপন, ২নং মোড়াকরি ইউপিতে মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন আবুল কাশেম মোল্লা ফয়সল, ৩নং মুড়িয়াউক ইউপিতে আনারস প্রতীক নিয়ে নোমান মিয়া, ৪নং বামৈ ইউপিতে ঘোড়া প্রতীক নিয়ে আজাদ হুসেন ফুরুক, ৫নং করাব ইউপিতে নৌকা প্রতীক নিয়ে আব্দুল কুদ্দুস ও ৬নং বুল্লা ইউপিতে নৌকা প্রতীক নিয়ে খোকন চন্দ্র গোপ বিজয়ী হয়েছেন।

এদের মধ্যে আবুল কাশেম মোল্লা ফয়সাল লাখাই উপজেলার সকল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদপ্রার্থীদের মধ্যে সর্বোচ্চ ৬ হাজার ৫১ ভোট ও সবচেয়ে বেশি ২৪১৩ ভোটের ব্যবধানে নিকটতম প্রতিদ্বন্ধী সালাহুদ্দিন সুমনকে পরাজিত করে জয়লাভ করেন। এছাড়া ফুলবাড়িয়া গ্রামে সালাহ উদ্দিন সুমনকে একক প্রার্থী ঘোষণা করা নিয়ে বিতর্কের জের ধরে হার্টঅ্যাটাকে মৃত্যুবরণকারী এক ব্যক্তিকে কেন্দ্র করে বিজয়ী প্রার্থী আবুল কাশেম মোল্লা ফয়সল এর বিরুদ্ধে হামলা-মামলা সড়ক অবরোধসহ নানা ঘটনা হয়ে থাকলেও এ গ্রামের কেন্দ্রে ৮৬০ ভোটে জয়ী হন ফয়সল মোল্লা।

এখানে সালাহ উদ্দিন সুমন পেয়েছেন ৫৩৫ ভোট। লাখাই উপজেলায় ৬টি ইউনিয়নের প্রার্থীদের প্রাপ্ত ভোট নিমরুপঃ- ১নং লাখাই ইউপিতে আরিফ আহমেদ রুপন ঘোড়া প্রতীক নিয়ে ৬০০৬ ভোট, এনায়েত হোসেন-নৌকা ৫৬৮১, মোঃ শরীফ উদ্দিন-আনারস ৩২৫৪ ও মোঃ ছাদির মিয়া মোটরসাইকেল-১৯৪টি ভোট পেয়েছেন।

২নং মোড়াকরি ইউনিয়নে আবুল কাশেম মোল্লা ফয়সল মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে ৬০৫১ ভোট, মোঃ সালাহ উদ্দিন সুমন-চশমা ৩৬৩৮, মাহমুদুল হাসান- ঘোড়া ৩৩৪০, মাহফুজুর রহমান-নৌকা ১০২৬, মোঃ সফিকুল আলম গোলাপ-আনারস ১৭৫ ও জাহিদুল ইসলাম- অটোরিকশা ৭৫ ভোট পেয়েছেন।

৩নং মুড়িয়াউক ইউনিয়নে মোঃ নোমান মিয়া আনারস প্রতীকে পেয়েছেন ৩৯৪৫ ভোট, মোঃ মখলিসুর রহমান টেবিল ফ্যান ৩২৫৭, মোঃ জানে আলম অটোরিকশা ৩১৮৪, আজিজুল হক রনক-নৌকা ২৬৫৮, মোঃ নুুরুজ্জামান মোল্লা- ঘোড়া ২২৮০, মোঃ মাসুক-চশমা ৮৭১ এবং কাজল- মটরসাইকেল প্রতীকে পেয়েছেন ১৩৭ ভোট।

৪ নং বামৈ ইউনিয়নে আজাদ হোসেন ফুরুক ঘোড়া প্রতীকে পেয়েছেন ৪৬৩২ ভোট, মোঃ মোর্শেদ কামাল- মোটরসাইকেল ৪৫৫৫, মোঃ খসরু নোমান-আনারস ৩৬০৫, মোঃ এনামুল হক মামুন-টেবিল ফ্যান ২৭৮৪ এবং শাহ রেজাউদ্দিন আহমেদ দুলদুল-নৌকা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৮২৭ ভোট।

৫নং করাব ইউনিয়নে মোঃ আব্দুল কুদ্দুস নৌকা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৫১৫৮ ভোট, মোঃ আব্দুল হাই এর ঘোড়া ৩৯৬৭, মোঃ বাদশা মিয়া- মোটরসাইকেল ৩৭৯৩, মহিউদ্দিন আহমেদ, আনারস ৭৩৩ এবং কামরুল হাসান-চশমা প্রতীক নিয়ে ৭৬ ভোট পান।

৬নং বুল্লা ইউনিয়নে খোকন চন্দ্র গোপ নৌকা প্রতীক নিয়ে ৪৬৩৩ ভোট, শেখ মোঃ মোর্শেদ কামাল চশমা প্রতীক নিয়ে ৩১৫৮ ভোট, জাহারুল ইসলাম তাউস- মোটরসাইকেল ১৭৬৬, মোঃ ইয়ার হোসেন-টেলিফোন ১৬২৫ ও অমুল্য চন্দ্র রায়-আনারস ২০৬ ভোট পান।

বানিয়াচং প্রতিনিধি তানজিল সাগর জানান, ৫ম ধাপে বানিয়াচং উপজেলার ১৪টি ইউনিয়নে নির্বাচন অবাধ, সুষ্ঠ, নিরপেক্ষ ও উৎসবমুখর পরিবেশে শেষ হয়েছে। নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীক নিয়ে ৯টি ইউনিয়নে বিজয়ী হয়েছেন প্রার্থীরা। অন্যদিকে ৪ টাতে নৌকার বিদ্রোহী আর ১টাতে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। বানিয়াচং ১নং উত্তর-পুর্ব ইউনিয়নের নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী মিজানুর রহমান খান,২নং উত্তর-পশ্চিম ইউনিয়নে বীরমুক্তিযোদ্ধা হায়দারুজ্জামান খান ধন মিয়া,৩নং দক্ষিণ-পূর্ব ইউনিয়নে নৌকা প্রতীক নিয়ে আরফান উদ্দিন,৫নং দৌলতপুর ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে বিদ্রোহী প্রার্থী মঞ্জু কুমার দাশ,৬নং কাগাপাশা ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী আনারস প্রতীকের এরশাদ আলী,৭নং বড়ইউড়ি ই¦উনিয়নে নৌকা প্রতীকের ফরিদ আহমেদ,৮নং খাগাউড়া ইউনিয়নে বিদ্রোহী প্রার্থী মোটরসাইকের প্রতীকের মাসুদ কোরাইশী মক্কি,৯নং পুকড়া ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের হাফেজ শামরুল ইসলাম,১০নং সুবিদুপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের ইঞ্জিনিয়ার জয় কুমার দাস,১১নং মক্রমপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের আহাদ মিয়া,১২নং সুজাতপুর ইউনিয়নে বিদ্রোহী ঘোড়া প্রতীকের প্রার্থী সাদিকুর রহমান,১৩নং মন্দরি ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকের শেখ সামছুল হক,১৪নং মুরাদপুর ইউনিয়নে নৌকার প্রতীকের মিজানুর রহমান মিজান ও ১৫নং পৈলারকান্দি ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকের নাসির উদ্দিন বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

এর আগে রবিবার (২৬ ডিসেম্বর) সকাল ৮টা থেকে বিরতিহীনভাবে বিকাল ৪টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়। কেন্দ্রগুলোতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর বিপুল সংখ্যক সদস্য মোতায়েন ছিল। সকাল থেকেই প্রতিটি কেন্দ্রে বিশেষ করে ভোটারদের উপস্থিতি ছিল বেশি। প্রতিটি ভোট কেন্দ্রের সামনে মহিলাদের দীর্ঘ লাইন ছিল চোখে পড়ার মতো। বেলা বাড়ার সাথে সাথে বাড়তে থাকে ভোটারদের উপস্থিতি। সকল কেন্দ্রের পুরুষ ও মহিলাদের আলাদা সারিতে দাঁড়িয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে পছন্দের প্রার্থীকে ভোট প্রদান করেন। নির্বাচন শান্তিপুর্ণ ভাবে সম্পন্ন করতে পুলিশ, র‌্যাব, বিজিবি স্ট্রাইকিং ফোর্সের টহল ছিল চোখে পড়ার মতো। পাশাপাশি নির্বাচনী এলাকায় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট সার্বিক অবস্থা পর্যবেক্ষণ করেন। এদিকে, বিজয়ী সকল জনপ্রতিনিধিদের অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা জানিয়েছেন দৈনিক আমার হবিগঞ্জ প্রতিক্ষার সম্পাদক ও প্রকাশক প্রকৌশলী সুশান্ত দাস গুপ্ত।

Developed By The IT-Zone