ঢাকামঙ্গলবার , ১৭ জানুয়ারি ২০২৩
আজকের সর্বশেষ সবখবর

লাখাইয়ে সেচে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদানে নিষেধাজ্ঞার আবেদন আদালতে খারিজ

স্টাফ রিপোর্টার
জানুয়ারি ১৭, ২০২৩ ৯:১৬ পূর্বাহ্ণ
Link Copied!

‘লাখাইয়ে মামলা জটিলতায় সেচ বন্ধে ২ শত টন ধান ক্ষতির আশঙ্কা’ শিরোনামে ১০ জানুয়ারি দৈনিক আমার হবিগঞ্জ পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশের পর ওই সেচ প্রকল্পে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদানে নিষেধাজ্ঞা চেয়ে করা আবেদন খারিজ করে দিয়েছেন হবিগঞ্জের আদালত।

রবিবার (১৫ জানুয়ারি) ওই নিষেধাজ্ঞার আবেদনটির উপর আদালতে শুনানি অনুষ্ঠিত হয়। শুনানী শেষে সহকারী জজ ফারহান আমিনের আদালত নিষেধাজ্ঞার আবেদনটি খারিজ করে দেন। এ অবস্থায় ওই সেচ প্রকল্পে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদানে আর কোন জটিলতা তৈরি হবে না বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

উল্লেখ্য, লাখাই উপজেলা সেচ কমিটির সিদ্ধান্তে পশ্চিম বুল্লা গ্রামের মানিক বন্দ সেচ প্রকল্পের ম্যানেজার হিসেবে একই গ্রামের কৃষক রফিক মিয়াকে ম্যানেজার নিযুক্ত করে আগের ম্যানেজার জাহারুল ইসলাম তাউসকে বাতিল করে দেন।

এতে তাউছ ক্ষুব্ধ হয়ে গত ৩ জানুয়ারি বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদানের উপর নিষেধাজ্ঞা চেয়ে উপজেলা সেচ কমিটি নিয়ম বহির্ভূত ভাবে রফিক মিয়াকে ম্যানেজার নিযুক্ত করেছেন উল্লেখ করে আদালতে মামলা দায়ের করেন।

ওই সময় আদালত বিদ্যুৎ বিভাগকে শোকজ করায় সেচ স্কীমটিতে বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে জটিলতা তৈরি হয় কৃষকরা প্রায় ২ শত বিঘার চেয়ে বেশি জমি চাষাবাদ না করতে পারায় প্রায় কয়েকশত টন ধানের ক্ষতি হবার আশঙ্কা দেখা দেয়।

জানা যায় আদালত পর্যালোচনা করেন যে, বাদী জাহারুল ইসলাম তাউছ বিদ্যুত বিভাগের বিরুদ্ধে অস্থায়ী ও অন্তর্র্বতীকালীন নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনা করেন যাতে ৪ নং বিবাদী লাখাই পল্লী বিদ্যুত সমিতির ডিজিএম ওই সেচ স্কীমে ৫ নং বিবাদী ম্যানেজার রফিক মিয়াকে বিদ্যুৎ সবরাহ করতে না পারে।

বাদী তাউছ মামলায় দাবি করেন, মানিক বন্দ সেচ স্কীমে ৫ নং বিবাদী রফিক মিয়াকে খানেজার হিসেবে নিয়োগ প্রদান করা আইন বহির্ভূত। কিন্তু বাদী অস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার প্রার্থনা করেন ৪ নং বিবাদী লাখাই পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডেপুটি জেনারেল ম্যানেজারের বিরুদ্ধে যাতে করে ৫ নং বিবাদী রফিক মিয়াকে বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া না হয়।

৫ নং বিবাদী রফিক মিয়াকে ম্যানেজার হিসেবে নিয়োগ প্রদান বৈধ কি অবৈধ, তা সাক্ষ্যপ্রমাণ সাপেক্ষে পরবর্তীতে বিচারে নিষ্পত্তি হবে। কিন্তু ম্যানেজার নিয়োগের বৈধতা বা অবৈধতার প্রশ্নে এ ধরনের সেচ স্কীমে বিদ্যুৎ সরবরাহ বন্ধ থাকতে পারে না।

বাদী তাউছ নিধোজ্ঞার দরখাস্তে উল্লেখ করেন, ”৪ নং বিবাদী কর্তৃক ৫ নং বিবাদীর আবেদনের প্রেক্ষিতে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান করলে বাদীসহ উপকার ভোগী কৃষকগণ তা মেনে নিবে না। ফলে নানা প্রকার দাঙ্গা হাঙ্গামা হয়ে এবং তফসিল সেচ স্কীমের বোরো ধান চাষাবাদ বন্ধ হয়ে যেতে পারে।”

কিন্তু তার বিপরীতে পরিলক্ষিত হয়, বরং বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান না করলে ধান চাষাবাদ বন্ধ হয়ে যাবে যা কৃষকদের অপূরণীয় ক্ষতির কারণ। এসব দিক বিবেচনায় আদালত সিদ্ধান্ত নেন, নিষেধাজ্ঞার দরখাস্তে বাদী পক্ষের প্রাইমা ফেসি কেইস প্রতীয়মান হয় না এবং নিষেধাজ্ঞা নামঞ্জুর করলে বাদীপক্ষের অপুরণীয় ক্ষতির কোন কারণ নেই।

নিষেধাজ্ঞা প্রদান করলে বরং চাষাবাদ বন্ধ হয়ে গিয়ে কৃষকদের অপূরণীয় ক্ষতির সম্ভাবনা রয়ে যায়। এ অবস্থায় বাদী জাহারুল ইসলাম তাউছ লাখাই পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির ডিজিএম বিবাদীর বিরুদ্ধে অস্থায়ী ও অন্তবর্তীকালীন নিষেধাজ্ঞা পেতে পারে না বলে আদালত সিদ্ধান্ত দেন ।

আদালত আদেশ দেন জাহারুল ইসলাম তাউছের করা অস্থায়ী ও অন্তর্র্বতীকালে নিষেধাজ্ঞার দরখাস্ত উভয়পক্ষের শুনানি শেষে বিনা খরচায় খারিজ করার। এদিকে নিষেধাজ্ঞার আবেদনটি খারিজ হয়ে যাওয়ায় মানিক বন্দ সেচ প্রকল্পের কৃষকরা স্বস্তি প্রকাশ করেন।

Developed By The IT-Zone